বাংলাদেশ থেকে কীভাবে ভেরিফায়েড Payeer একাউন্ট তৈরি করবেন

বর্তমানে অনলাইনে অর্থ পাঠানো বা গ্রহণ করা একটি সাধারণ বিষয় হয়ে উঠেছে । এছাড়াও আপনি যদি অনলাইনে কাজ করেন যেমন ফ্রি ল্যান্সিং বা যেকোনো ধরনের অনলাইন সম্পর্কিত কাজ, তাহলে আপনাকে অবশ্যই অনলাইনের মাধ্যমে টাকা বা ডলার পাঠাতে বা গ্রহণ করতে হবে। টাকা পাঠানো বা নেওয়ার জন্য অনেক ধরনের মাধ্যম রয়েছে যেমন- পেপ্যাল, ​​পারফেক্ট মানি, স্ক্রিল ইত্যাদি। আজকের আর্টিকেলে আমরা তেমনি আরও একটি অনলাইন ওয়ালেট Payeer নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করব। যার মাধ্যমে আপনারা কোন রকম ঝামেলা ছাড়াই খুব সহজে অনলাইনে ডলার লেনদেন করতে পারবেন। তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক বাংলাদেশ থেকে কীভাবে ভেরিফায়েড Payeer একাউন্ট তৈরি করবেন।

Payeer কি – Payeer ওয়ালেট কি

Payeer হল একটি ফ্রি ইলেকট্রনিক ওয়ালেট যা বর্তমানে বিভিন্ন দেশে ব্যবহৃত হচ্ছে। এই ইলেকট্রনিক ওয়ালেটের সাহায্যে আপনি দ্রুত এবং নিরাপদে টাকা পাঠাতে ও গ্রহণ করতে পারবেন। এমনকি এটিএম থেকেও টাকা তুলতে পারবেন।

Payeer প্ল্যাটফর্মটি বর্তমানে বিশ্বব্যাপী 127 টিরও বেশি দেশে সহজে অর্থ লেনদেনের জন্য পরিচিত এবং ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে । এছাড়াও এর মাধ্যমে আপনারা ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জ করতে পারবেন। বিটকয়েন, ইথেরিয়াম, লাইটকয়েন, বিটকয়েন ক্যাশ এবং আরও অনেক কিছু এখানে ট্রেড করতে পারবেন।

Payeer ওয়ালেটের বৈশিষ্ট্য

অন্যান্য পেমেন্ট সিস্টেমের মতো Payeer ওয়ালেটেরও কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে –

  • Payeer ট্রান্সফার সিস্টেম ব্যবহার করে ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন মানুষদের তাদের ই-মেইল ঠিকানায় একটি তাত্ক্ষণিক ইলেকট্রনিক ট্রান্সফার পাঠাতে পারে, অর্থাৎ লক্ষ লক্ষ নিবন্ধিত পেয়ার অ্যাকাউন্টে তহবিল বা টাকা স্থানান্তর করতে পারে।
  • পেয়ার প্রিপেইড ব্যবহারকারীদের, ব্যক্তিগত এটিএম বা ভার্চুয়াল প্রিপেইড কার্ডের মাধ্যমে লেনদেনের জন্য ফি 0%। এছাড়াও, কোন মাসিক ফি বা চার্জ নেই।
  • ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার ইলেকট্রনিক পেমেন্ট সিস্টেম, যা ডেবিট কার্ড এবং ক্রেডিট কার্ড এবং বিশ্বের 200 টিরও বেশি দেশে বিখ্যাত বিশ্ব ব্যাঙ্কের মাধ্যমে অর্থপ্রদান করে।
  • এই ওয়ালেটের মাধ্যমে আপনারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে টাকা ডিপোসিট এবং উইথড্র করতে পারবেন।
আরও পড়ুনঃ Mi অ্যাকাউন্ট কি? কিভাবে Mi অ্যাকাউন্ট তৈরি করবেন?

কীভাবে ভেরিফায়েড Payeer একাউন্ট তৈরি করবেন

বাংলাদেশ থেকে ফুল ভেরিফায়েড Payeer একাউন্ট তৈরি করার জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরন করুন –

  • এরপর Create Account এ ক্লিক করুন।
  • এরপর Email এড্রেসের ঘরে Email এড্রেস লিখে Create Account বাটনে ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনার মেইল এড্রেসে একটি কোড পাঠানো হবে। (নিচের ছবির মত)
  • এই কোডটি Code এর ঘরে বসিয়ে Create Account এ ক্লিক করুন।
  • পরের পেজে Password এবং Repeat Password এর ঘরে পাসওয়ার্ড টাইপ করুন। Secret Code এর ঘরে আপনার ইচ্ছামত ৬ ডিজিটের একটি সিক্রেট কোড লিখুন। Secret Code আপনার টাকা লেনদেনের ক্ষেত্রে প্রয়োজন হতে পারে, তাই এটি অবশ্যই মনে রাখবেন। এরপর Account Name এর ঘরে তাদের দেয়া ইন্সট্রাকশন অনুযায়ী একটি Account Name লিখে Next বাটনে ক্লিক করুন।
  • পরবর্তী পেজে নেম এর ঘরে আপনার নাম, লাস্ট নেমের ঘরে আপনার লাস্ট নেম এবং কান্ট্রি এর ঘরে বাংলাদেশ সিলেক্ট করে Done বাটনে ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনি নিচের ছবির মত আপনার পেয়ার একাউন্টের ড্যাশবোর্ড দেখতে পাবেন। এখান থেকে আপনি আপনার একাউন্টের সব ইনফরমেশন নিয়ে কোন নিরাপদ জায়গায় সেভ করে রাখুন।

উপরের ধাপ গুলো অনুসরন করে আপনারা আপনাদের পেয়ার একাউন্ট ক্রিয়েট করতে পারবেন। একাউন্ট ক্রিয়েট করার পরে Payeer একাউন্ট ভেরিফাই করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ ইউটিউব কি? কিভাবে ইউটিউব থেকে ইনকাম করবেন?

কীভাবে Payeer একাউন্ট ভেরিফাই করবেন

Payeer একাউন্ট ভেরিফাই করার জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরন করুন –

  • একাউন্ট ক্রিয়েট করার পরে পেয়ার ড্যাশবোর্ডে আপনার লগইন ইনফরমেশনের নিচে Not Verified লেখা দেখতে পাবেন। Not Verified লেখাতে ক্লিক করুন। (নিচের ছবিতে দেখুন)
  • পরের ভেরিফিকেশন পেজে Type of Account এর নিচের ঘরের ড্রপ ডাউন মেনু থেকে Personal সিলেক্ট করুন। Day এর নিচের ঘরে আপনার জন্ম তারিখ দিন এবং Country এর ঘরে বাংলাদেশ সিলেক্ট করে Go Next বাটনে ক্লিক করুন।

নোটঃ আপনার নাম, জন্ম তারিখ এগুলো আপনার ভোটার আইডি কার্ডের সাথে মিল রেখে দিন।

  • পরের পেজে Mobile Phone এর ঘরে আপনার ফোন নাম্বার টাইপ করে Ok বাটনে ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনার ফোনে একটি নাম্বার থেকে কল আসবে। সেই নাম্বারের শেষের ৫ টি সংখ্যা বক্স করা ঘর গুলোতে বসিয়ে Confirm বাটনে ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনারা নিচের ছবির মত Phone Number Successfully Linked লেখা একটি মেসেজ দেখতে পাবেন। এরপর Go Next বাটনে ক্লিক করুন।
  • পরের পেজে আপনাকে ডকুমেন্ট সাবমিট করতে হবে। আপনারা ড্রাইভিং লাইসেন্স, ভোটার আইডি কার্ড অথবা পাসপোর্টের মাধ্যমে ভেরিফিকেশন করতে পারবেন। আমি এইখানে ভোটার আইডি কার্ডের মাধ্যমে ভেরিফিকেশনের জন্য আবেদন করব তাই ID Card সিলেক্ট করে Choose File এ ক্লিক করে ভোটার আইডি কার্ডের ফ্রন্ট এবং ব্যাক সাইড সিলেক্ট করে দিয়েছি। আপনারা যদি ড্রাইভিং লাইসেন্স বা পাসপোর্টের মাধ্যমে আবেদন করতে চান তাহলে Driver’s License অথবা Passport সিলেক্ট করুন। এরপর Proof of address এর সেকশনে ব্যাংক স্টেটমেন্ট অথবা আপনার বাসার বিদ্যুৎ বিলের কপি দিতে পারেন। এরপর Submit for Verification বাটনে ক্লিক করুন। (নিচের ছবিতে দেখুন)
  • Submit for Verification বাটনে ক্লিক করার পরে নিচের ছবির মত Your Documents are Being Reviewed লেখা মেসেজ দেখতে পাবেন। আপনার ডকুমেন্ট সবকিছু ঠিক থাকলে ৩ দিনের মধ্যে আপনার একাউন্ট ভেরিফাই হয়ে যাবে। তবে সাধারনত ১ থেকে ২ দিনের মধ্যেই ভেরিফিকেশন মেসেজ পেয়ে যাবেন।

কীভাবে Payeer একাউন্টের পাসওয়ার্ড রিকভার করবেন

আপনি যদি কোন কারণে আপনার Payeer একাউন্টের পাসওয়ার্ড ভুলে যান তাহলে নিচের ধাপ গুলো অনুসরন করে খুব সহজেই Payeer একাউন্টের পাসওয়ার্ড রিকভার করতে পারবেন –

  • Payeer ওয়ালেটের পাসওয়ার্ড রিকভার করার জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন। এরপর Forgot password অপশনে ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনার লগইন আইডি (উদাহরনঃ P1–2348—) এবং সিক্রেট কোড লিখে Go Next বাটনে ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনার মেইল এড্রেসে ৫ ডিজিটের একটা কোড যাবে। কোডটি ইমেইল থেকে কালেক্ট করে ফাঁকা ঘর গুলোতে বসিয়ে Go Next বাটনে ক্লিক করুন।
  • পরের পেজে নতুন পাসওয়ার্ড টাইপ করে Next বাটনে ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনি আপনার নতুন পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার পেয়ার একাউন্টে লগইন করতে পারবেন।

Payeer মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড

Payeer অ্যাপটি অ্যাপেল iOS এবং সমস্ত অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের জন্য পাওয়া যায় । আপনি এটি বিনামূল্যে ডাউনলোড এবং ব্যবহার করতে পারবেন। অ্যাপটির সাহায্যে, আপনি যে কোন জায়গা থেকে খুব সহজে প্ল্যাটফর্মটি ব্যবহার করতে পারবেন।

আপনি Payeer অ্যাপের মাধ্যমে তাত্ক্ষণিক অর্থপ্রদান এবং স্থানান্তর করতে পারবেন। এছাডাও ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সেঞ্জ করতে পারবেন, মাল্টিকারেন্সি অ্যাকাউন্ট চালাতে পারবেন এবং আরও অনেক কিছুই করতে পারবেন৷

শেষ কথা

আপনারা চাইলে একাউন্ট ভেরিফাই না করেও Payeer ওয়ালেট নিশ্চিন্তে ব্যবহার করতে পারবেন। তবে নন ভেরিফায়েড একাউন্টে আপনি প্রত্যেকদিন সর্বোচ্চ ৯৯৯ ডলার পর্যন্ত ট্রানজেকশন করতে পারবেন। আমরা আশা করছি উপরের দেখানো ধাপ গুলো অনুসরন করে আপনারা খুব সহজেই Payeer ওয়ালেট একাউন্ট ক্রিয়েট করতে পারবেন এবং ভেরিফাই করতে পারবেন।

আর্টিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরনের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান।

ধন্যবাদ

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment