কিভাবে ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করবেন

সবাই টাকা বা অর্থ উপার্জন করতে চায়। আর বর্তমানে ঘরে বসে টাকা উপার্জনের অন্যতম একটি মাধ্যম হল ইন্টারনেট। তাই প্রতিদিন অনেক মানুষ গুগলে সার্চ করে যে, “ কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায় ”, “ কিভাবে গুগল থেকে ইনকাম করা যায় ”, “ কিভাবে ইন্টারনেট থেকে ইনকাম করা যায় ” , “ কিভাবে অনলাইনে আয় করা যায় ” ইত্যাদি। সাধারনত মানুষের অর্থের প্রয়োজন হয়, যাতে তারা তাদের নিজেদের এবং পরিবারের প্রয়োজনীয় চাহিদা গুলো পূরণ করতে পারে।

মানুষ অনেক উপায়ে অর্থ উপার্জন করে থাকে, যেমন- চাকরি করে, নিজের ব্যবসা শুরু করে বা অনলাইন থেকে । আপনি নিশ্চয়ই ভাবছেন কিভাবে অনলাইনে টাকা আয় করা যায়?

আপনি চাইলে খুব সহজেই অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে পারেন । বর্তমানে পৃথিবীতে এমন অনেক মানুষ আছে যারা ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমে আয় করছেন। আর এর জন্য তাদের বাহিরেও যেতে হচ্ছে না, আবার কারো অধীনে কাজ করতেও হচ্ছে না। তবে এর জন্য কিছু স্কিল বা দক্ষতার প্রয়োজন হয়।  আপনার স্কিল ব্যবহার করে আপনি সহজেই অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

Table of Contents

অনলাইন ইনকাম কি

অনলাইনে আয় মূলত ইন্টারনেট ব্যবহার করে টাকা বা অর্থ উপার্জনের একটি পদ্ধতি। এর মধ্যে রয়েছে একটি ওয়েবসাইটের মালিকানা, যে কোন অনলাইন ব্যবসা শুরু করা বা ইন্টারনেটে থাকা অনলাইন উপার্জনের অন্যান্য যে কোন মাধ্যম বেছে নেওয়া। অনলাইনে আয় করা সত্যিই সুবিধাজনক কারণ এর জন্য কোনো বিনিয়োগ বা সঠিক সময় নির্ধারণের প্রয়োজন হয় না।

অনলাইন উপার্জনকে আপনার মৌলিক আয় ছাড়াও অর্থ উপার্জনের অন্যতম সেরা এবং প্রাসঙ্গিক উপায় হিসাবে বিবেচনা করা হয়। আমরা ইন্টারনেটের বিভিন্ন উৎস ব্যবহার করে করা উপার্জন হিসাবে অনলাইন উপার্জনকে আরও ভালভাবে সংজ্ঞায়িত করতে পারি। মানুষের আগ্রহের উপর নির্ভর করে, অনলাইন ব্যবসা, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এবং অন্যান্য অনেক উপায়ে অনলাইনে অর্থ উপার্জন করা যেতে পারে।

কিভাবে ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করা যায়

আপনারা যদি মনে করে থাকেন যে ইন্টারনেট থেকে অর্থ উপার্জন করা খুব সহজ বা খুব কঠিন, তবে আপনারা ভুল ভাবছেন, এটি এতটা সহজ বা অনেক বেশী কঠিন কিছু নয়। আবার ইন্টারনেট থেকে টাকা আয় করে রাতারাতি অনেক টাকার মালিক হওয়াও সম্ভব নয়। কিন্তু অনেক অনলাইন অর্থ উপার্জনের ওয়েবসাইট রয়েছে যেখান থেকে আপনারা ভাল মাপের অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

আপনাদের মধ্যে কেউ লিখতে পারদর্শী আবার কেউ গাইতে পারদর্শী। প্রত্যেকেরই আলাদা আলাদা বিষয়ের উপর দক্ষতা রয়েছে। সাধারনত আমরা যে বিষয় সম্পর্কে জানি না, তা আমরা অন্যদের কাছ থেকে শিখি। একইভাবে, আপনারা নির্দিষ্ট কোন বিষয়ের উপর থাকা দক্ষতার মাধ্যমে সহজেই অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে সক্ষম হবেন। তাই আজকের আর্টিকেলে আমরা আপনাদের জানাব, কিভাবে অনলাইনে টাকা আয় করা যায় ।

অনলাইনে টাকা ইনকাম করার জন্য কি প্রয়োজন

আপনি যদি অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে চান তবে আপনার নিচের জিনিসগুলো প্রয়োজন পড়বে-

  • স্মার্টফোন / ল্যাপটপ / কম্পিউটার
  • ভাল ইন্টারনেট সংযোগ
  • অনেক ধৈর্য বা সহনশীলতা

অনলাইনে ইনকাম করার উপায়

প্রতিনিয়ত নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবনের সাথে সাথে সব কাজ আগের থেকে অনেক সহজ হয়ে যাচ্ছে। আজ প্রযুক্তির কারণে ইন্টারনেট ব্যবহার করে অনলাইনে অর্থ উপার্জন করার একটি মাধ্যম তৈরি হয়েছে।

বর্তমানে অনেক মানুষ ইন্টারনেট এবং স্মার্টফোনকে তাদের উপার্জনের মাধ্যম বানিয়ে নিয়েছে। অনলাইনে অনেকেই প্রতি মাসে ইন্টারনেট থেকে লাখ লাখ টাকা আয় করছেন।

আজকের আর্টিকেলে আমরা আপনাদের সাথে অনলাইনে অর্থ উপার্জনের কিছু উপায় সম্পর্কে আলোচনা করব। যেগুলো অনুসরণ করে আপনারাও ঘরে বসে অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ কিভাবে অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড চেক এবং ডাউনলোড করবেন

ব্লগিং করে অনলাইনে ইনকাম

কীভাবে ইন্টারনেট থেকে অর্থ উপার্জন করা যায় সে সম্পর্কে কথা বললে, ব্লগিং প্রথম স্থানে আসে। কারণ এটি অর্থ উপার্জনের সহজ উপায় গুলোর মধ্যে একটি। ব্লগিং এর জন্য ২ টি জিনিস থাকা খুবই জরুরী-

  • যে কোন বিষয় বা টপিকের উপর ভাল জ্ঞান
  • লেখার দক্ষতা

এই দুটি ছাড়া আপনি যদি ব্লগিং এর যাত্রা শুরু করেন, তাহলে আপনাকে সামনে অনেক প্রতিকূলতার সম্মুখীন হতে হবে। আপনি যদি কোনো বিষয়ে পারদর্শী হন, সেটা হতে পারে টেকনোলোজি, রান্না, ব্যবসা বা অন্য যে কোনো ক্ষেত্রে। সেই বিষয় নিয়ে ব্লগিং শুরু করুন। এর ফলে আপনাকে নতুন নতুন কন্টেন্ট লিখতে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে না। এবং আপনি আপনার পাঠকদের প্রতিটি প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিতে সক্ষম হবেন।

সবসময় সেই বিষয় নিয়ে ব্লগিং শুরু করুন যে বিষয়ে আপনার আগ্রহ এবং যথেষ্ট জ্ঞান রয়েছে । ধরুন আপনার খেলাধুলার প্রতি আগ্রহ এবং জ্ঞান আছে, কিন্তু আপনি প্রযুক্তি নিয়ে একটি ব্লগ তৈরি করলেন। এর ফলে কিছু দিন পরে আপনার প্রযুক্তি সম্পর্কিত নতুন নতুন সামগ্রী খুঁজে পেতে সমস্যা হবে। আবার কেউ যদি প্রযুক্তি সম্পর্কিত কোন প্রশ্ন করে, তাহলে আপনার প্রযুক্তি বিষয়ে যথেষ্ট ধারনা না থাকায় আপনি তার উত্তর দিতে পারবেন না। তাই আপনার যে বিষয়ে ভাল ধারনা রয়েছে সেই বিষয় নিয়ে ব্লগিং শুরু করা উচিত।

ব্লগিং থেকে আয় করার অনেক উপায় আছে, তবে আমি আপনাদের সেরা 3 টি উপায় সম্পর্কে বলব।

  • বিজ্ঞাপন : অনেক অনলাইন বিজ্ঞাপন কোম্পানি আছে যেগুলোর বিজ্ঞাপন আপনি আপনার ব্লগে দিয়ে সেখান থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। কিছু জনপ্রিয় অনলাইন বিজ্ঞাপন কোম্পানি হল Google AdSense, Media.net, infolinks ইত্যাদি।
  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং : এটি হল, অন্যের জিনিস বিক্রি করতে সাহায্য করা। আপনি যখন অনলাইনে কোনো পণ্য বিক্রি করতে সাহায্য করেন, তখন সেই বিক্রেতা আপনাকে কমিশন দেয়। আপনারা ফ্লিপকার্ট বা অ্যামাজন এর মতো বিভিন্ন ই-কমার্স ওয়েবসাইটের পণ্য বিক্রি করে প্রচুর আয় করতে পারবেন। আপনার ব্লগে যদি ভাল মাপের ট্রাফিক থাকে তাহলে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে বিজ্ঞাপনের চেয়ে বেশি অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।
  •  স্পন্সর পোস্ট : আপনার ব্লগ যখন একটু জনপ্রিয় হয়ে ওঠে, অনেক কোম্পানি আপনাকে তাদের পণ্য আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে রিভিউ করতে বলে। এই রিভিউ করার জন্য বিভিন্ন কোম্পানি তাদের পণ্য সহ আপনাকে টাকা দিয়ে থাকে। আপনার ব্লগ যে সম্পর্কিত হবে, আপনি সাধারনত সেই ধরনের জিনিস রিভিউ করতে পারবেন।

ইউটিউব থেকে অনলাইনে অর্থ উপার্জন

ইউটিউব সম্পর্কে কে না জানে। তারপরও তথ্যের খাতিরে বলে রাখি যে এটি বিশ্বের ৩য় জনপ্রিয় ওয়েবসাইট। এটি বর্তমানে বহুল জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং ওয়েবসাইট। যারা এটা জানেন না তাদের বলতে চাই বর্তমানে ইউটিউব অনলাইনে অর্থ উপার্জনের একটি ভাল মাধ্যম। বিষয়বস্তু লেখাকে বলা হয় ব্লগিং এবং আর সেই লেখাকে ভিডিওর মাধ্যমে উপস্থাপন করাকে বলা হয় ভ্লগিং। Vlogging মানে ভিডিও ব্লগিং। ইউটিউবের ক্ষেত্রেও ব্লগিং এর মত আপনার জন্য কিছু জিনিস জানা থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

  • যে কোন বিষয় বা টপিকের উপর ভাল জ্ঞান
  • উপস্থাপনা করার দক্ষতা
  • ভিডিও এডিটিং করার ক্ষমতা

উপস্থাপনা মানে আপনি কীভাবে নিজেকে অন্যের সামনে উপস্থাপন করেন বা দেখান। উপস্থাপনা করার সাথে সাথে কথা বলার দক্ষতা থাকাও ইউটিউবিং করার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ব্লগিং এর থেকে ভ্লগিং এর খরচ একটু বেশি। যেমন আপনার একটি ক্যামেরা, স্ট্যান্ড, ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার ইত্যাদির প্রয়োজন হয়।

ইউটিউব থেকে আয় করার কয়েকটি উপায় রয়েছে, সেগুলো হল-

  • AdSense : YouTube এবং AdSense উভয়ই Google এর পণ্য। বেশীরভাগ ইউটিউবার এই AdSense থেকে অর্থ উপার্জন করে থাকে। আপনার অ্যাকাউন্টে ভিডিও আপলোড করার পরে, আপনি AdSense এর মাধ্যমে এটি মোনেটাইজ করতে পারবেন। মোনেটাইজ করার ফলে যখন কোন ভিজিটর আপনার ইউটিউব ভিডিও দেখবে তখন আপনার ভিডিও তে এড শো হবে। আর এর মাধ্যমে আপনি ইনকাম করতে পারবেন।
  • স্পন্সরড ভিডিও : একটি জনপ্রিয় ইউটিউব চ্যানেল অনেক পণ্য রিভিউ বা পর্যালোচনা করার অফার পায়। ভিডিওর মাঝে এই সব পন্য রিভিউ করার মাধ্যমেও আপনি অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।
  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং : আপনি যদি আপনার চ্যানেলে বিভিন্ন পণ্য ড়িভিউ করেন, তাহলে আপনি আপনার চ্যানেলের ভিডিওর নীচের বিবরণে সেই পন্যটি কেনার জন্য লিঙ্ক দিয়ে দিতে পারেন। যদি কোন ভিজিটর আপনার সেই লিংকে ক্লিক করে পন্যটি কেনে, তাহলে আপনি এটি থেকে কমিশন পাবেন।

ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইনে ইনকাম

ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার অর্থ হল আপনার ভিতরের যেকোনো ধরনের শিল্প বা দক্ষতার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা। এটি আপনার ভিতরের যেকোনো দক্ষতা হতে পারে – আপনি একজন ভাল ওয়েব ডেভেলপার হতে পারেন, আপনার যদি কন্টেন্ট লেখার যোগ্যতা থাকে, আপনি ভাল লোগো ডিজাইন করতে পারেন বা আপনার অন্য কোন ধরনের দক্ষতা থাকে, যা অন্যদের প্রয়োজন। তাহলেই আপনি অনলাইনে আপনার সার্ভিস দেওয়ার বিনিময়ে মোটা অঙ্কের টাকা ইনকাম করতে পারেন। আর একেই ফ্রিল্যান্সিং বলে।

বর্তমানে অনলাইনে অনেক ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট রয়েছে, যেখানে ফ্রিল্যান্সার এবং ক্লায়েন্ট উভয়ই থাকে এবং ফ্রিল্যান্সাররা তাদের কাজ অনুযায়ী টাকা উপার্জন করে থাকে।

ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে অনলাইনে ইনকাম করার কিছু ওয়েবসাইটের তালিকা নিচে দেওয়া হল। এই সব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনি আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করতে পারবেন-

জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং সাইটের তালিকা-

ফেসবুক থেকে অনলাইনে টাকা ইনকাম

আপনি কি জানেন যে, আপনি চাইলে ফেসবুক থেকেও অর্থ উপার্জন করতে পারেন। ফেসবুক বর্তমানে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোর মধ্যে অন্যতম। বর্তমান বিশ্বে বেশীর ভাগ মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। 

আজকাল মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে সোশ্যাল মিডিয়ায় জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। আর মাসে লাখ লাখ টাকা আয় করছেন।

আজ আমি বিস্তারিত আলোচনা করব কিভাবে আপনি ফেসবুক থেকে আয় করতে পারবেন।

স্টেপ 1: ফেসবুক থেকে অর্থ উপার্জন করতে আপনার একটি ফেসবুক পেজ লাগবে। আপনারা ফেসবুক পেজের মাধ্যমে অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের পন্য বিক্রি করে ইনকাম করতে পারেন।

এর জন্য প্রথমে আপনাকে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করতে হবে, তারপরে আপনি আপনার পেজে আপনার পণ্যের ছবি তুলে, সেই ছবির সাথে আপনার পণ্যের সুন্দর বিবরন এড করে আপলোড করুন।

এর পর আপনি ফেসবুক পেজে What’s App বাটন, মেসেঞ্জার বাটন রাখুন। এর মাধ্যমে লোকেরা আপনার সাথে যোগাযোগ করবে এবং আপনি পণ্য বিক্রি করে ইনকাম করতে পারবেন।

ধাপ 2:  আপনারা অনেকেই জানেন যে Facebook সম্প্রতি একটি নতুন মনিটাইজেশন ফিচার চালু করেছে। আপনি কি জানেন, কিভাবে আপনি আপনার ফেসবুক পেজ মনিটাইজ করবেন?

ফেসবুক পেজের মনিটাইজেশন অন করতে হলে আপনাকে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করতে হবে। এর পরে আপনাকে পেজে ভিডিও আপলোড করতে হবে।

এছাড়াও আপনার ফেসবুক পেজে কমপক্ষে 10,000 ফলোয়ার থাকতে হবে। এবং আপনার অবশ্যই 30,000 মিনিট ওয়াচ টাইম থাকতে হবে। তবেই আপনি আপনার ফেসবুক পেজ মনিটাইজেশনের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

এভাবে আপনি ফেসবুক পেজের মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন।

অনলাইন টিউশন দিয়ে অর্থ উপার্জন

বেশিরভাগ মানুষ আজ অফলাইনের চেয়ে অনলাইন কোর্স করতে বেশি পছন্দ করে। অনলাইন টিউশন এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে মানুষ টাকা দিয়ে প্রয়োজনীয় কোর্স কিনে তার মাধ্যমে নিজের দক্ষতা বৃদ্ধি করে। ধরুন আপনার ফটোগ্রাফিতে আগ্রহ আছে। তাই এটি শিখতে হলে আপনাকে একটি একাডেমিতে যোগ দিতে হবে।

কিন্তু আপনি যেখানে আছেন বা আপনার বাড়ির আশেপাশে এমন কোন একডেমী নেই। তখন অনলাইন টিউটরিংয়ের মাধ্যমে ঘরে বসে কোর্সটি ক্রয় করতে পারবেন এবং আপনি আপনার প্রয়োজনীয় বিষয়টি শিখতে পারবেন।

কিভাবে অনলাইন টিউটরিং থেকে টাকা পেতে হয়

ইন্টারনেটে, আপনি এমন অনেক ওয়েবসাইট পাবেন, যেখানে অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের কোর্স ক্রয় বিক্রয় হয়। Udemy আপনার জ্ঞান শেয়ার করার জন্য একটি ভাল প্ল্যাটফর্ম। এখানে রেজিস্ট্রেশন করে, আপনি ভিডিও এবং ডকুমেন্টের মাধ্যমে আপনার সম্পূর্ণ কোর্স আপলোড করতে পারবেন।

তারপর আপনাকে সেই কোর্সের জন্য একটি মূল্য নির্ধারণ করতে হবে। যদি কেউ আপনার কোর্সটি নিতে চান, তাহলে সেই ব্যক্তি উডেমির মাধ্যমে টাকা পে করে কোর্সটি কিনতে পারবে। এরপর Udemy সেই টাকা থেকে কিছু কমিশন রেখে আপনাকে আপনার অর্থ দিয়ে দেবে।

এছাড়াও skillshare এর মাধ্যমেও আপনারা একই ভাবে আপনাদের কোর্স বিক্রি করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ Foodpanda থেকে অনলাইনে খাবার অর্ডার করবেন কিভাবে

ছবি বিক্রি করে অনলাইনে টাকা ইনকাম

আপনি যদি মোবাইল বা ক্যামেরা দিয়ে প্রকৃতির দৃশ্য ধারণ করতে বা বিভিন্ন ধরনের ছবি তুলতে পছন্দ করেন, তাহলে আপনি আপনার এই শখ থেকেও অনলাইনে টাকা আয় করতে পারবেন।

আপনার যদি ভাল ফটো তোলার ক্ষমতা থাকে, তাহলে আপনি দামি ডিএসএলআর ক্যামেরার পরিবর্তে আপনার মোবাইল ক্যামেরা দিয়ে ক্লিক করা ছবি বিক্রি করেও অর্থ উপার্জন করতে পারেন। বর্তমানে অনলাইনে ফটো বিক্রি, ইনকাম করার অন্যতম মাধ্যম।

এর জন্য, আপনাকে প্রথমে ফটো ক্রয় বিক্রয় এর ওয়েবসাইটে আপনার অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে। Shutterstock, GettyImages, iStockphoto, Adobe Stock, Photoshelter প্রভৃতি ওয়েবসাইট যেগুলি লোকেদের কাছ থেকে ছবি কেনে এবং ব্লগ, ব্র্যান্ড বা ছোট ব্যবসার ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে।

ওয়েবসাইটে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করার পরে, এই ওয়েবসাইটে আপনার তোলা সেরা ছবি আপলোড করুন। যখন কেউ আপনার ছবি কিনবে, তখন ওয়েবসাইটটি কিছু কমিশন কেটে আপনার ছবির জন্য আপনাকে অর্থ প্রদান করবে। এইভাবে, আপনি সহজেই আপনার তোলা ছবি অনলাইনে বিক্রি করে অনেক উপার্জন করতে পারবেন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জন

সব বিক্রেতা তার পণ্য অনলাইনে বিক্রি করে সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হয় না। তখন অনেক বিক্রেতা তাদের পণ্য এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে বিক্রি করে থাকেন। ধরুন আপনার একটা কাপড়ের দোকান আছে, কিন্তু আপনি সেই দোকান থেকে বেশী পরিমাণে কাপড় বিক্রি করতে পারছেন না। তখন আপনি কাউকে বলবেন যে, সে যদি আপনার কাপড় বিক্রি করে দিতে পারে, তাহলে আপনি বিক্রি করা প্রতিটি কাপড়ের জন্য শতকরা পরিমাণ কমিশন দেবেন। একেই বলে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং।

এতে প্রচুর পরিমাণে আয় হলেও অন্য অনলাইন ইনকাম সোর্সের মতো এটি সহজ নয়। কাউকে কিছু কিনতে রাজি করানো অনেক বড় এবং ঝামেলার ব্যাপার। আপনার যদি সেই প্রতিভা থাকে তবে আপনি অনলাইনে অর্থ উপার্জনের অন্যান্য উপায়ের চেয়ে বহুগুণ বেশি অর্থ উপার্জন করতে সক্ষম হবেন।

অনলাইনে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করার জন্য আপনাকে কিছু বিনিয়োগ করতে হবে না। আপনি Flipkart এবং Amazon এর মত ই-কমার্স সাইট থেকে অ্যাফিলিয়েট লিংক সংগ্রহ করে আপনার প্রথম বিক্রি শুরু করতে পারেন। এটি করার জন্য প্রথমে তাদের অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামে যোগদান করতে হবে, এরপর আপনি প্রতিটি পণ্যের জন্য একটি অনুমোদিত লিঙ্ক পাবেন।এরপর আপনার সেই লিঙ্ক ব্যবহার করে যদি কেউ পণ্যটি ক্রয় করে, তাহলে আপনি তার জন্য কিছু শতাংশ কমিশন পাবেন। আপনি এই লিঙ্কটি আপনার ব্লগ, ভিডিও, সোশ্যাল মিডিয়া এবং ইমেলের সাথে শেয়ার করতে পারেন।

কিছু জনপ্রিয় এফিলিয়েট প্লাটফর্ম-

  • Amazon Associates. (সবচাইতে বেশী পরিচিত)
  • eBay Partners
  • RevenueWire
  • Shopify Affiliate Program
  • Click-bank
  • Awin
  • ShareAsale
  • CJ Affiliate
  • Rakuten Affiliate Network
  • LinkConnector

অনলাইন পেইড সার্ভে থেকে অর্থ উপার্জন

এটি অনলাইনে ইনকাম করার একটি খুব সহজ এবং নিরাপদ উপায়। অনলাইন সার্ভে বিষয়টি বর্তমানে অনেক জনপ্রিয়। কারণ এতে ব্যবহারকারীর কাজে মন বসানোর তেমন কোনো প্রয়োজন নেই, শুধু প্রদত্ত নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন। এই কোম্পানিগুলি আপনাকে এই ধরনের কাজগুলি সম্পন্ন করার জন্য কিছু অর্থ প্রদান করে।

এখন আপনি নিশ্চয়ই ভাবছেন যে কেন এই সংস্থাগুলি আপনাকে এত সহজ কাজের জন্য অর্থ সরবরাহ করে। তাহলে উত্তর হল এই অনলাইন জরিপগুলো মূলত সার্ভে কোম্পানিগুলোই চালায়। এই সার্ভে কোম্পানি গুলো সাধারণত বিখ্যাত পণ্য এবং পরিষেবাগুলি সম্পর্কে গ্রাহকদের মতামতের জন্য ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের অর্থ প্রদান করে।

অনলাইনে অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যে গুলোতে সার্ভে করে ইনকাম করা যায়। তবে এর মধ্যে অনেক ওয়েবসাইট পেমেন্ট করে না। ট্রাস্টেড কিছু সার্ভে সাইটের মধ্যে রয়েছে Survey Junkie, Swagbucks, InboxDollars, Branded Surveys ইত্যাদি। তবে বাংলাদেশ থেকে সার্ভে করার জন্য আপনাদের অবশ্যই ইউএসএ, কানাডা এই সব দেশের আইপি ব্যবহার করতে হবে।

ইউআরএল শর্টনার দিয়ে অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন

URL Shortener মানে হল যে কোন বড় URL কে ছোট করা। এখন আপনি নিশ্চয়ই ভাবছেন যে ইউআরএল ছোট করার দরকার কী এবং কীভাবে এটি থেকে অর্থ উপার্জন করা যায়। যাইহোক, এর উত্তর হল যে, কেউ লম্বা এবং বড় URL পছন্দ করে না। এমন পরিস্থিতিতে, আপনি যদি কারও সাথে একটি লিঙ্ক শেয়ার করতে চান, সেক্ষেত্রেও বড় URL বিরক্তির কারণ হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে ইউআরএল শর্টনার খুবই উপকারী।

যাইহোক, আপনি সম্ভবত Google শর্টনার (Goo.gl) এর নাম শুনেছেন, যা URL ছোট করতে ব্যবহৃত হয় । যদিও গুগল এই পরিষেবা বর্তমানে বন্ধ করে দিয়েছে। তবে এটি একটি বিনামূল্যে পরিষেবা ছিল। এর জায়গায়, আপনি অন্যান্য শর্টনার ব্যবহার করে অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন।

এর জন্য, আপনাকে শর্টনার ওয়েবসাইটগুলির সাহায্যে বড় লিঙ্কগুলি (যা আপনি অন্যদের সাথে শেয়ার করতে চান) ছোট করতে হবে। এবং আপনি যখন সেই শর্ট লিংক গুলি বিভিন্ন জায়গায় শেয়ার করবেন, এবং ভিজিটর এই লিঙ্কটিতে ক্লিক করবে, তখন সে প্রথমে একটি বিজ্ঞাপন দেখতে পাবে এবং তার পরেই সে মূল ওয়েবসাইটে রিডিরেক্ট হবে। এখন আপনি এই বিজ্ঞাপন দেখার জন্য অর্থ পাবেন.

ইন্টারনেটে এরকম অনেক ইউআরএল শর্টনার ওয়েবসাইট পাওয়া যায় কিন্তু সেগুলোর অনেকগুলো ফেক এবং অনেকগুলো খুব কম পেআউট প্রদান করে। এজন্য আমি সেরা ওয়েবসাইটগুলির একটি তালিকা প্রস্তুত করেছি যা আপনি অবশ্যই ব্যবহার করতে পারেন।

1. adf.ly
2. Ouo.io
4. shorte.st
5. clkim.com

আমি এই গুলোর সব গুলোই ব্যবহার করেছি, কিন্তু আপনি যদি আমাকে জিজ্ঞাসা করেন তবে আমার মতে প্রথম ওয়েবসাইটটি খুব ভাল ( adf.ly )। এর ইউজার ইন্টারফেস খুবই ভালো এবং এতে ৫ ডলার পে-আউটের সুবিধা রয়েছে। এছাড়াও, বিজ্ঞাপনগুলি এতে খুব বেশি আসে না, যা অন্যান্য ব্যবহারকারীদের বিরক্ত করে। আর অনেক গুলো পেমেন্ট মেথড আছে যে গুলো ব্যবহার করে আপনারা খুব সহজেই টাকা উঠাতে পারবেন।

এছাড়াও, আপনি বিজ্ঞাপন দেখার জন্য অর্থ পাবেন এবং এর সাথে আপনি রেফার করেও ইনকাম করতে পারবেন। এর অর্থ যদি কেউ আপনার লিঙ্কের মাধ্যমে এই সাইটে রেজিস্ট্রেশন করে তবে আপনি এর জন্য কিছু কমিশন পাবেন।

কন্টেন্ট রাইটিং করে অনলাইনে অর্থ উপার্জন

কন্টেন্ট রাইটিং ঘরে বসে অর্থ উপার্জনের একটি ভাল মাধ্যম। তাই আপনার যদি লেখার প্রতি আগ্রহ থাকে এবং আপনি খুব ভাল লেখেন তবে আপনি ঘরে বসে অনলাইনে ভাল মাপের অর্থ উপার্জন করতে পারেন। কন্টেন্ট রাইটিং করে অনেক ভাবে টাকা ইনকাম করা যায়।

যেমন নিউজপেপার রাইটার, ম্যাগাজিন রাইটিং, ব্লগ রাইটার বা বুক রাইটিং ইত্যাদি। আপনি এই সব লেখার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। এছাড়াও আপনারা অনলাইনে আর্টিকেল প্রকাশ করে আয় করতে পারবেন।

এরকম অনেক সাইট আছে যেগুলো আর্টিকেল লেখার কাজ করিয়ে নেয়। ফেসবুকে এরকম অনেক গ্রুপ এবং পেজ আছে যেখানে কনটেন্ট রাইটার প্রয়োজন হয়, তাহলে সেখানেও আপনি ব্লগারের সাথে কথা বলতে পারেন।

এবং তাদের সাথে আপনার রাইটিং অভিজ্ঞতার কথা বলে, আপনি তাদের থেকে আর্টিকেল লেখার কাজ নিতে পারেন। এভাবে আপনি সহজেই ২-৩ ঘন্টায় ১টি আর্টিকেল লিখে প্রতিদিন 200 থেকে 250 টাকা আয় করতে পারেন।

ইন্টারনেটে অনেক জনপ্রিয় সাইট রয়েছে, যেখান থেকে আপনি আর্টিকেল লেখার কাজ শুরু করতে পারেন। উদাহরণ স্বরূপ:

  • Contentmart.com
  • Truelancer.com
  • iwriter.com

মাইক্রো জবস করে ইনকাম

মাইক্রো জবস অর্থ হল ছোট ক্যাটাগরির কাজ । ইন্টারনেটে আপনি অনেক ধরনের মাইক্রো জবস রিলেটেড ওয়েবসাইট পেয়ে যাবেন। এইসব ওয়েবসাইটে ছোট ছোট কাজ যেমন- ইউটিউব ভিডিও দেখা, ফেসবুক পেজে লাইক দেওয়া, ইন্সটাগ্রামে ফলো করা, টুইটারে ফলো করা, ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করা, ছোট ছোট সার্ভে কমপ্লিট করা, বিভিন্ন ওয়েবসাইটে সাইন আপ করা, প্লে-স্টোর থেকে গেম বা অ্যাপ ডাউনলোড করা ইত্যাদি করে ইনকাম করতে পারবেন।

বর্তমানে মাইক্রো জবস সাইট গুলোর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় সাইট হল MicroWorkers । এই সাইটে একাউন্ট খুলে আপনারা ঘরে বসে ছোট ছোট কাজ করে অনলাইনে আয় করতে পারবেন। এতে আপনাকে পরিশ্রমও কম করতে হবে। আর আপনার যদি কম্পিউটার সম্পর্কে অল্প কিছু ধারনা থাকে তাহলেই আপনারা এই কাজগুলো সহজে করতে পারবেন।

পিটিসি সাইট থেকে ইনকাম

আপনারা পিটিসি সাইটের মাধ্যমেও ইনকাম করতে পারেন। পিটিসি হল সেই সব ওয়েবসাইট যেখানে বিভিন্ন এড দেখে টাকা ইনকাম করা যায় । পিটিসি এর ফুল ফর্ম হল পেইড টু ক্লিক। পিটিসি সাইটে বিভিন্ন কোম্পানি তাদের নানা রকম প্রোডাক্টের প্রোমোশন বা তাদের ওয়েবসাইটের ভিজিটর বাড়ানোর জন্য বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে।

আর আপনারা নিয়মিতভাবে সেই সব নির্দিষ্ট অ্যাড বা বিজ্ঞাপন দেখে পিটিসি সাইট থেকে ইনকাম করতে পারবেন। তবে পিটিসি সাইটে কাজ শুরু করার আগে ভালভাবে জেনে নিন সাইট টি ট্রাস্টেড কিনা। কারণ বর্তমানে ইন্টারনেটে থাকা বেশীরভাগ পিটিসি সাইট ভুয়া। আর এই সব সাইটে আপনারা আপনাদের স্মার্টফোন ব্যবহার করেও কাজ করতে পারবেন।

জনপ্রিয় কিছু পিটিসি সাইটের তালিকা

ড্রপশিপিং এর মাধ্যমে আয়

ড্রপশিপিং বর্তমানে অনলাইনে অর্থ উপার্জনের জন্য একটি খুব ভাল প্ল্যাটফর্ম । বেশীরভাগ মানুষ ড্রপ শিপিং সম্পর্কে অবগত নয়।। তাহলে চলুন একটি উদাহরনের মাধ্যমে জেনে নেই ড্রপশিপিং আসলে কি।

ধরুন, আপনার এলাকায় আপনার পরিচিত কেউ কোনো একটা পন্য তৈরি করে এবং সেই পণ্য বাজারে ৩০০ টাকায় বিক্রি করে। কিন্তু আপনি খোঁজ নিয়ে দেখলেন যে এই একই পন্য কোনো বড় ই-কমার্স সাইটে ১০০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এরকম বিষয় কিন্তু সচরাচর আমাদের দেশে হয়েই থাকে। কোনো একটা সবজি কৃষকদের থেকে প্রতি কেজি ১০ টাকা করে কিনে, বড় বাজারে বা হাটে সেই সবজি প্রতি কেজি ৪০ টাকা করে বিক্রি করে থাকে।

ঠিক একই ভাবে আপনি নিজেই বড় কোন ই-কমার্স সাইটে প্রোফাইল ওপেন করে ওই পন্যটি বিক্রি করতে পারেন। আপনি আপনার এলাকার উৎপাদনকারীর কাছে থেকে পন্য টা ৩০০ টাকায় কিনে সেটি ই কমার্স ওয়েবসাইটে ১০০০ টাকায় বিক্রি করতে পারবেন।

এর ফলে একটি পন্যেই আপনি ৭০০ টাকা পর্যন্ত লাভ করতে পারবেন।  অথবা আপনি যদি দাম একটু কমিয়ে দিয়ে ৯০০ টাকায় বিক্রি করেন তাহলেও আপনার ৬০০ টাকা লাভ থাকবে। এটিই মুলত Dropshipping। আপনার এলাকায় যদি এমন সুযোগ থেকে থাকে তাহলে আপনার অবশ্যই সুযোগটি কাজে লাগানো উচিৎ ।

মোবাইল থেকে টাকা ইনকাম

অর্থ উপার্জনের জন্য সবার কাছে ল্যাপটপ বা কম্পিউটার আছে এমন নয়। তবে আমরা আশা করতে পারি যে আপনাদের প্রত্যেকের একটি স্মার্টফোন রয়ছে। 

এখানে আমরা আপনাদের সাথে কিছু মোবাইল অ্যাপের তালিকা শেয়ার করছি, যেগুলোর সাহায্যে আপনারা মোবাইলের মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন। 

গুগল প্লে স্টোরে অনেক এপস রয়েছে যেগুলা ডাউনলোড করার পর ছোট ছোট কিছু কাজ যেমন এপ ডাউনলোডিং, রেফার করা, ভিডিও দেখা, ফেসবুকে লাইক দেওয়া ইত্যাদি করে কিছু টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।

জনপ্রিয় অনলাইন ইনকাম এপসের তালিকা

  • Meesho
  • Google’s Opinion RewardsFoap – sell your photos
  • Perk app
  • Cointiply
  • Swagbucks
  • True balance
  • Picxele
  • Make Money – Free Cash App
  • frapp

ডোমেইন ক্রয় এবং বিক্রয় করে ইনকাম

আপনি হয়তো জানেন না কিন্তু অনলাইনে ডোমেইন বিক্রি করে আপনি অনেক টাকা আয় করতে পারবেন। কম সময়ে এবং দ্রুত অর্থ উপার্জন করার অন্যতম মাধ্যম হল অনলাইনে ডোমেইন বিক্রি করা।

কিন্তু ডোমেইন ট্রেড করার জন্য আপনাকে প্রথমে ডোমেইন কেনা-বেচা সম্পর্কে ভাল ধারনা জানতে হবে। তবেই আপনি ডোমেইন বিক্রি করে ভাল পরিমাণ টাকা আয় করতে পারবেন। অন্যথায় আপনি আপনার অর্থ হারাতে পারেন।

আপনার যদি ইতিমধ্যে একটি ডোমেইন থাকে এবং আপনি যদি এটি ব্যবহার না করে থাকেন। তাহলে আপনি flippa.com বা godaddy.com-এ আপনার ডোমেইন বিক্রি করতে পারেন এবং সেখান থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

মোবাইল অ্যাপ তৈরি করে অনলাইনে অর্থ উপার্জন

আপনি যদি একজন এন্ড্রয়েড ডেভেলপার হন এবং আপনি অ্যাপস তৈরির উপর ভালো জ্ঞান রাখেন, তাহলে আপনি মোবাইল অ্যাপ তৈরি করে, এতে Google Admob এর বিজ্ঞাপন দিতে পারেন এবং এটি গুগল প্লে স্টোরে পাবলিশ করতে পারেন।

যখন মানুষ আপনার তৈরি অ্যাপটি ডাউনলোড করে ব্যবহার করবে, তখন আপনি অর্থ উপার্জন করতে শুরু করবেন। বর্তমান সময়ে, মোবাইল গেমের প্রবণতা শীর্ষে, শিশু থেকে বৃদ্ধ প্রায় সবাই অনলাইন গেম খেলতে পছন্দ করে। তাই সম্ভব হলে আপনারা মোবাইল গেমস ডিজাইন করেও ইনকাম করতে পারবেন।

অনলাইন ইনকাম সম্পর্কে কিছু কমন প্রশ্ন

প্রশ্নঃ অনলাইনে কত টাকা আয় করা যায়?

উত্তরঃ এই প্রশ্নের আসলে সঠিক কোন উত্তর নেই। অনলাইনে আপনি কত টাকা উপার্জন করবেন তা আপনার কাজের উপর নির্ভর করে। কারণ এটি বোতাম টিপুন এবং অর্থ উপার্জন শুরু করার মত যান্ত্রিক উপায় নয়।

অনলাইনের মাধ্যমে আয় করার অনেক সুযোগ রয়েছে এবং আপনারা এর মাধ্যমে আপনাদের ক্যারিয়ারও তৈরি করতে পারেন। তবে এর অর্থ এই নয় যে আপনাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে না, কঠোর পরিশ্রম না করে আপনি কোন জায়গা থেকেই অর্থ উপার্জন করতে পারবেন না।

অনলাইনে কত টাকা ইনকাম করা যায় তার কথা যদি বলি, তাহলে এটা সম্পূর্ণ আপনার উপর নির্ভর করে, আপনি পরিশ্রম করলে মাসে ৫০ হাজার বা ১ লাখ টাকাও ইনকাম করতে পারবেন, কিন্তু আপনি যদি পরিশ্রম না করেন তাহলে এক টাকাও উপার্জন করতে পারবেন না।

প্রশ্নঃ অনলাইনে অর্থ উপার্জনের জন্য কি কি জিনিস প্রয়োজন?

উত্তরঃ অনলাইনে অর্থ উপার্জনের জন্য নিচের জিনিসগুলোর প্রয়োজন হবে-

  • কোন এক বা একাধিক বিষয়ের উপর ভাল দক্ষতা
  • একটি ল্যাপটপ বা স্মার্টফোন
  • ইন্টারনেট
  • সহনশীলতা
  • কঠোর পরিশ্রমের পাশাপাশি স্মার্ট ওয়ার্ক
  • আত্মবিশ্বাস

প্রশ্নঃ বিনা পয়সায় ঘরে বসে কিভাবে আয় করবেন?

উত্তরঃ ঘরে বসে অর্থ উপার্জনের অনেক উপায় আছে, তবে একেবারে বিনামূল্যে শুরু করার জন্য ইউটিউব এবং ব্লগিং হল সেরা এবং নিরাপদ মাধ্যম। যা আপনি আপনার মোবাইল বা ল্যাপটপ ব্যবহার করে ফ্রিতে শুরু করতে পারবেন।

প্রশ্নঃ মোবাইল দিয়ে কীভাবে অনলাইনে ইনকাম করবেন?

উত্তরঃ মোবাইল থেকে ঘরে বসে অর্থ উপার্জনের অনেক উপায় রয়েছে যেমন – ব্লগিং, ইউটিউব ভিডিও তৈরি, ফ্রিল্যান্সিং, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, অ্যাপ ডাউনলোড ইত্যাদি।

প্রশ্নঃ আমি কিভাবে অনলাইনে আয় করতে পারি?

উত্তরঃ অনলাইনের মাধ্যমে আপনারা চাকরি করার থেকেও বেশি আয় করতে পারবেন, তবে এর জন্য আপনার দক্ষতা থাকতে হবে। বর্তমান সময়ে লাখ লাখ মানুষ অনলাইনে আয় করে জীবন চালাচ্ছে। আজকের আর্টিকেলে দেখানো যে কোন পদ্ধতি অনুসরন করে আপনারা অনলাইনে আয় শুরু করতে পারেন।

প্রশ্নঃ কিভাবে মোবাইল থেকে টাকা আয় করবেন?

উত্তরঃ আপনি মোবাইল ব্যবহার করে ব্লগিং, ইউটিউব ভিডিও তৈরি, ফটো বিক্রি, অ্যাপ ডাউনলোড ইত্যাদির মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

শেষ কথা

অর্থ উপার্জনের মাধ্যম অনলাইন হোক বা অফলাইনত, এর জন্য প্রয়োজনো কঠোর পরিশ্রম, ধৈর্য এবং স্মার্ট কাজ, আপনি অনলাইনে অর্থ উপার্জনের যে কোন পদ্ধতিকেই আপনার ক্যারিয়ার হিসাবে বেছে নিতে পারেন।

আপনি যদি অনলাইনে ইনকাম করতে চান তাহলে উপরে আলোচনা করা যে কোন পদ্ধতি নিয়ে কাজ শুরু করতে পারেন। আপনি যেকোনো একটি ক্ষেত্র বেছে নিয়ে কাজ শুরু করুন এবং ধৈর্য নিয়ে কাজ করতে থাকুন একদিন আপনি অবশ্যই অনলাইন ক্ষেত্রে সফলতা পাবেন।

আর্টিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরণের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান ।

ধন্যবাদ

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment