অ্যালোভেরা জুসের উপকারিতা ও অসুবিধা

অ্যালোভেরা বাংলাদেশের প্রায় সব জায়গাতেই সহজেই পাওয়া যায়। এর গুণাবলী সম্পর্কে প্রায় অনেকেই আমরা ভালোভাবে অবগত। বছরের পর বছর ধরে, এটি ত্বক থেকে চুল এবং স্বাস্থ্যের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে। এর রস পুষ্টির ভান্ডার হিসাবে বিবেচিত । তাই আজকের এই আর্টিকেলে আমরা অ্যালোভেরার জুস সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। এই আর্টিকেলে, আমরা কীভাবে অ্যালোভেরার জুস পান করতে হয়, অ্যালোভেরা জুসের উপকারিতা এবং এর কিছু আসুবিধা সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করব। 

অ্যালোভেরার জুস পান করার উপকারিতা

অ্যালোভেরার জুস আমাদের স্বাস্থ্য, চুল এবং ত্বকের জন্য খুব উপকারী। এর উপকারিতা নিচে বিস্তারিতভাবে দেওয়া হল-

ইমিউন সিস্টেম উন্নত করে

অ্যালোভেরার রস আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে এবং সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারে। এনসিবিআই (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এই গবেষণা অনুসারে, অ্যালোভেরার ইমিউনোমোডুলেটরি প্রভাব রয়েছে, যার কারণে এটির ব্যবহার আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে (তথ্যসূত্র) । 

হজমের জন্য

অ্যালোভেরার রস পান করার ফলে আমাদের শরীরের খাবার হজম করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এবং সেই সাথে পেটের বিভিন্ন সমস্যা নিরাময় করতে পারে। আসলে, অ্যালোভেরাযুক্ত পানীয় পরিপাকতন্ত্র পরিষ্কার করতে কাজ করে। এর সাহায্যে হজমজনিত কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় (তথ্যসূত্র) । NCBI ওয়েবসাইটে প্রকাশিত গবেষণা অনুসারে, অ্যালোভেরার রেচক বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা পেট পরিষ্কার করতে ভাল কাজ করে । এমন পরিস্থিতিতে বলা যেতে পারে অ্যালোভেরার রস হজমের জন্য উপকারী ভুমিকা পালন করে।

শরীর থেকে বিষাক্ত টক্সিন অপসারন করতে

অ্যালোভেরার রসের উপকারিতা সম্পর্কে কথা বললে, এটি আমাদের শরীর থেকে ক্ষতিকারক টক্সিন বের করে দিতে সহায়ক ভুমিকা পালন করে। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, অ্যালোভেরা একটি শক্তিশালী ডিটক্সিফায়ার হিসাবে কাজ করে।প্রকৃতপক্ষে, এটি ডিটক্সিফাইং এনজাইমগুলি প্রেরণ করতে পারে, যা শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে (তথ্যসূত্র) ।

ওজন কমাতে

আপনি যদি আপনার ওজন বৃদ্ধি নিয়ে বিরক্ত হন বা যদি আপনি আপনার শরীরের ওজন কমাতে চান তবে অ্যালোভেরার জুস এতে সহায়তা করতে পারে। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে, অ্যালোভেরাতে স্থূলতা-বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা শক্তি খরচ বাড়াতে এবং চর্বি কমাতে কাজ করে (তথ্যসূত্র) । এটি আমাদের শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে।

শরীর হাইড্রেটেড রাখতে

অ্যালোভেরার জুস আমাদের শরীরের হাইড্রেশন বজায় রাখতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। NCBI ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক চিকিৎসা গবেষণা অনুসারে, অ্যালোভেরার জেলে 99 শতাংশ পানি রয়েছে, যা শরীরকে হাইড্রেটেড রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে (তথ্যসূত্র) । অন্য একটি গবেষণা অনুসারে, অ্যালোভেরা জেলের একটি হাইড্রেশন প্রভাব রয়েছে, যা আমাদের ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে (তথ্যসূত্র) ।

 মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য ভাল রাখতে

অ্যালোভেরার রস মস্তিষ্কের জন্যও উপকারী বলে মনে করা হয়। এই বিষয়ে, প্রকাশিত গবেষণায় স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে যে অ্যালোভেরার নির্যাস, মাইটোকন্ড্রিয়াল (এটি কোষের অভ্যন্তরে, যা কোষে শক্তি সরবরাহ করে) ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে পারে। এছাড়াও, এটি নিউরোনাল কোষ এবং মস্তিষ্ক রক্ষা করতে কাজ করতে পারে। NCBI-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এই গবেষণাটি ইঁদুরের ওপর করা হয়েছে (তথ্যসূত্র) । অ্যালোভেরার রস মানুষের মস্তিষ্কের জন্য কতটা সহায়ক তার কোনো সঠিক প্রমাণ নেই।

আরও পড়ুনঃ চুল থেকে খুশকি দূর করার উপায়

প্রদাহ কমাতে

প্রদাহজনিত সমস্যা দূর করতেও অ্যালোভেরার জুসের উপকারিতা দেখা যায়। NCBI ওয়েবসাইটে প্রকাশিত গবেষণা অনুসারে, অ্যালোভেরাতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এই গুণটি আর্থ্রাইটিসের মতো প্রদাহের সমস্যাকে অনেকাংশে কমাতে পারে। এর পাশাপাশি ত্বকের প্রদাহজনিত সমস্যাও এর ব্যবহারে নিরাময় করা যায় (তথ্যসূত্র) ।

হার্ট ভাল রাখতে

অ্যালোভেরার জুস হার্টকে সুস্থ রাখতে এবং এর সাথে সম্পর্কিত সমস্যা রোধ করতেও ব্যবহার করা যেতে পারে। এই বিষয়ে প্রকাশিত বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, অ্যালোভেরার কার্ডিও-প্রতিরক্ষামূলক কার্যকলাপ রয়েছে, যা হার্টকে রক্ষা করতে কাজ করতে পারে (তথ্যসূত্র) । আরেকটি গবেষণা অনুসারে, অ্যালোভেরা রক্তে উপস্থিত চর্বি কমাতে সাহায্য করতে পারে। এতে রক্ত ​​সংক্রান্ত সমস্যা কমাতে পারে। এছাড়াও, এটি মোট কোলেস্টেরল, ট্রাইগ্লিসারাইডস (রক্তে চর্বি), ফসফোলিপিডস (এক ধরনের লিপিড) এবং নন-এস্টারিফাইড ফ্যাটি অ্যাসিডের মাত্রাও কমাতে পারে। এটি হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকাংশে কমাতে পারে (তথ্যসূত্র) ।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে

অ্যালোভেরার রস বা জুসের উপকারিতা সম্পর্কে বলতে গেলে, এটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণেও উপকারী ভুমিকা পালন করে। এ সম্পর্কিত একটি গবেষণায় প্রমানিত হয়েছে যে, অ্যালোভেরার পাতার নির্যাসে হাইপোগ্লাইসেমিক প্রভাব রয়েছে, যা রক্তে চিনির ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়ক ভুমিকা পালন করে (তথ্যসূত্র) । এছাড়াও, অ্যালোভেরাতেও রয়েছে অ্যান্টি-ডায়াবেটিক বৈশিষ্ট্য, যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে ।

বুকজ্বালার চিকিৎসায়

অম্বল হল এমন একটি অবস্থা যা বুকে বা গলায় জ্বলন্ত সংবেদন সহ তীব্র ব্যথা হতে পারে। পাকস্থলীর অ্যাসিড খাদ্যনালীতে ফিরে গেলে সাধারনত এই সমস্যা হয় (তথ্যসূত্র) । অ্যালোভেরার রসের একটি প্রশান্তিদায়ক প্রভাব রয়েছে, যা পেটে অ্যাসিডের ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করতে পারে। এটি বুকজ্বালার ঝুঁকি কমাতে পারে ।

মুখের স্বাস্থ্যের জন্য

অ্যালোভেরার রস ব্যবহার মুখের স্বাস্থ্যের জন্যও উপকারী হতে পারে। এই সম্পর্কিত একটি গবেষণায় স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে যে, অ্যালোভেরার অ্যান্টি-ভাইরাল এবং অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা মুখের সমস্যা সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া কমাতে কাজ করে । একই সময়ে, অন্য একটি গবেষণা অনুসারে, মৌখিক স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখতে অ্যালোভেরার রস মুখ ধোয়ার মতো করে ব্যবহার করা যেতে পারে ।

চুল সুস্থ রাখতে

চুল সুস্থ রাখতে অ্যালোভেরার রসের উপকারিতা পাওয়া যায় । আসলে, অ্যালোভেরা মাথার ত্বকে রক্ত ​​সঞ্চালন বাড়িয়ে চুলকে মজবুত করতে পারে। এটি চুলের বৃদ্ধিকে উন্নীত করতে পারে । এছাড়াও, অ্যালোভেরাতে সিস্টিন এবং লাইসিন নামক উপাদান রয়েছে, যা চুল পড়ার সমস্যা কমাতে কাজ করতে পারে । এভাবে চুলের জন্য অ্যালোভেরার জুস ব্যবহার করলেও উপকার পাওয়া যায়।

ত্বক সুস্থ রাখতে

ত্বক সুস্থ রাখতে অ্যালোভেরার জুসও ব্যবহার করা যেতে পারে। একটি চিকিৎসা গবেষণা অনুসারে, অ্যালোভেরাতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ফ্রি র‍্যাডিক্যালের প্রভাবকে কমিয়ে, বলি এবং বার্ধক্যের প্রভাব থেকে রক্ষা করতে পারে। এটি ত্বকের শুষ্কতা দূর করতে ময়েশ্চারাইজার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এ ছাড়াও এটি ব্রণ, রোদে পোড়া, কালো দাগ এবং ত্বক সংক্রান্ত আরও অনেক সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে (তথ্যসূত্র) ।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে

ক্যান্সার একটি মারাত্মক রোগ। এটি প্রতিরোধ করতে অ্যালোভেরার জুস উপকারী হতে পারে। এই বিষয়ে করা একটি গবেষণা অনুসারে, অ্যালোভেরায় অ্যান্টি-নিওপ্লাস্টিক এজেন্ট রয়েছে, যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি রোধ করতে এবং সিসপ্ল্যাটিনের মতো ওষুধের প্রভাব বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। এটি ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারে (তথ্যসূত্র) । এখানে আমরা এটা পরিষ্কার করি যে অ্যালোভেরার রস ক্যান্সারের নিরাময় নয়, এটি শুধুমাত্র এটি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে। ক্যান্সারের জন্য অ্যালোভেরার রসের উপর নির্ভর করা কোন সমাধান নয়। যদি কেউ ক্যান্সারে আক্রান্ত হন, তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী তার চিকিৎসা করানো খুবই জরুরী।

অ্যালোভেরার জুসের পুষ্টি উপাদান – অ্যালোভেরা জুসের পুষ্টির মান

অ্যালোভেরার রসে অনেক ধরনের পুষ্টি রয়েছে, যা এটি মানুষের জন্য উপকারী করে তোলে। এই পুষ্টিগুলি নীচের টেবিলের মাধ্যমে বলা হচ্ছে ।

পুষ্টি উপাদান  প্রতি 100 গ্রামে 
পানি 96.23 গ্রাম
শক্তি 15 কিলোক্যালরি
কার্বোহাইড্রেট 3.75 গ্রাম
চিনি 3.75 গ্রাম
ক্যালসিয়াম, Ca 8 মিলিগ্রাম
আয়রন, ফে 0.15 মিলিগ্রাম
সোডিয়াম, Na 8 মিলিগ্রাম
ভিটামিন সি, মোট অ্যাসকরবিক অ্যাসিড 3.8 মিলিগ্রাম

কীভাবে অ্যালোভেরার জুস ব্যবহার করবেন

অ্যালোভেরার জুস পান করার অনেক উপায় রয়েছে। অ্যালোভেরার রস নিম্নলিখিত উপায়ে ব্যবহার করা যেতে পারে

অ্যালোভেরার জুস কীভাবে খাবেন – অ্যালোভেরা খাওয়ার নিয়ম

  • অ্যালোভেরা জেল এবং পানি মিশিয়ে জুস তৈরি করতে পারেন।
  • অ্যালোভেরা এবং মধু ব্যবহার করে রস খাওয়া যেতে পারে।
  • এর রসে লেবু বা আদা মিশিয়ে সেবন করা যায়।
  • অ্যালোভেরা এবং আমলা ব্যবহার করে জুস তৈরি করতে পারেন।

অ্যালোভেরার জুস কখন খাবেন

  • এর রস সকালে খালি পেটে খেতে পারেন।
  • বিকেলেও অ্যালোভেরার জুস পান করা যেতে পারে।

অ্যালোভেরার জুস কতটা খাবেন:

  • একটি গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে, আলসারের সমস্যা নিরাময়ের জন্য 100 মিলি (এক কাপ) অ্যালোভেরার রস দিনে দুবার পান করা যেতে পারে (তথ্যসূত্র) । অ্যালোভেরার রসের পরিমাণ প্রতিটি ব্যক্তির বয়স এবং শারীরিক অবস্থার উপর নির্ভর করে। এ বিষয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিলে ভালো হবে।

অ্যালোভেরার জুস বানানোর নিয়ম – কিভাবে অ্যালোভেরার জুস তৈরি করবেন

অ্যালোভেরার জুস তৈরি করা খুবই সহজ। এটি সহজেই ঘরে তৈরি করা যায়। নিচে জেনে নিন ঘরে বসে অ্যালোভেরার জুস তৈরির সহজ পদ্ধতি সম্পর্কে:

প্রয়োজনীয় উপাদান:

  • অ্যালোভেরার একটি বড় পাতা
  • এক গ্লাস পানি
  • ব্লেন্ডার

জুস তৈরির পদ্ধতিঃ

  • প্রথমে অ্যালোভেরার পাতা ভালো করে ধুয়ে নিন।
  • এবার ছুরির সাহায্যে মাঝখান থেকে কেটে নিন।
  • এটি কাটার পর হলুদ (ক্ষীর) অংশ দেখতে পাবেন, এটি আলাদা করুন।
  • তারপর একটি পাত্রে চামচ দিয়ে অ্যালোভেরা জেল বের করে নিন।
  • এরপর এক গ্লাস পানিতে দুই চামচ জেল দিয়ে পাঁচ মিনিট ব্লেন্ড করুন।
  • এরপর মিশ্রণটি একটি গ্লাসে ঢেলে নিয়ে খেয়ে ফেলুন।
  • স্বাদের জন্য এর সাথে লেবু বা মধু মিশিয়ে নিতে পারেন।

কীভাবে অ্যালোভেরার জুস কিনবেন

নীচে অ্যালোভেরার জুস কেনার সময় যে বিষয়গুলি মাথায় রাখতে হবে এবং এটি সংরক্ষণের সাথে সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ টিপস রয়েছে।

কেনার পদ্ধতি:

  • আপনি যদি বাজার থেকে প্যাকেটজাত জুস কিনতে চান, তাহলে সবার আগে এর উৎপাদন এবং মেয়াদ শেষ হওয়ার তারিখ ঠিকমত দেখে নিন।
  • অ্যালোভেরার জুসের প্যাকে দেওয়া উপাদানগুলির তালিকাটি একবার দেখুন এবং নিশ্চিত করুন যে এতে এমন কিছু নেই, যা থেকে আপনার অ্যালার্জি হতে পারে।
  • আপনি যদি বাড়িতে জুস তৈরির কথা চিন্তা করেন তবে সবসময় অ্যালোভেরার তাজা পাতা বেছে নিন।
  • আপনি যদি জুসের দোকান থেকে এর তাজা জুস পান করতে যান তবে শুধুমাত্র তাজা অ্যালোভেরার জুস পান করুন।

স্টোরেজ পদ্ধতি:

  • এর তৈরি জুস ফ্রিজে এক থেকে দুই দিন রাখতে পারেন।
  • এর তাজা পাতা একটি জিপ পাউচে প্যাক করে ফ্রিজে সংরক্ষণ করা যায়।
  • জুস বানানোর পর যদি অ্যালোভেরা জেল থেকে যায় তাহলে তা একটি এয়ারটাইট পাত্রে রেখে ফ্রিজে রেখে দিন।

অ্যালোভেরার জুসের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া – অ্যালোভেরার ক্ষতিকর দিক

অ্যালোভেরার রসের অনেক উপকারিতা সত্ত্বেও, এটি কিছু লোকের জন্য ক্ষতিকারক প্রমাণিত হতে পারে। অ্যালোভেরার জুস এর ক্ষতিকর দিকগুলো নিচে দেওয়া হল –

  • অ্যালোভেরার রস পান করলে কিছু লোকের পেটে ব্যথা, ডায়রিয়া, লাল প্রস্রাব এবং হেপাটাইটিস হতে পারে।
  • অ্যালোভেরাতে পাওয়া রেচক প্রভাবের কারনে ইলেক্ট্রোলাইট ভারসাম্যহীনতা (পটাসিয়ামের মাত্রা হ্রাস) হতে পারে।
  • এটি ব্যবহারের কারণে অ্যালার্জির সমস্যাও হতে পারে।
  • অ্যালোভেরার রস গর্ভবতী এবং বুকের দুধ খাওয়ানো মহিলাদের জন্য নিরাপদ বলে মনে করা হয় না।
আরও পড়ুনঃ আপেল সিডার ভিনেগার এর উপকারিতা, ব্যবহার এবং অসুবিধা

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

প্রশ্নঃ খালি পেটে অ্যালোভেরার জুস পান করলে কী হয়?

উত্তরঃ খালি পেটে অ্যালোভেরার রস পান করলে কোষ্ঠকাঠিন্য, পেটে ব্যথা, বাতের ব্যথা এবং ডায়াবেটিস এর মতো সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় ।

প্রশ্নঃ প্রতিদিন অ্যালোভেরার জুস পান করা কি ভালো?

উত্তরঃ হ্যাঁ, সঠিক পরামর্শে সীমিত পরিমাণে অ্যালোভেরার জুস খাওয়া ভালো। এটি হজম সংক্রান্ত সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করতে পারে ।

প্রশ্নঃ অ্যালোভেরার রসের pH কত?

উত্তরঃ অ্যালোভেরার রসের pH 3.5 ।

প্রশ্নঃ অ্যালোভেরার জুস কি ক্ষারত্বকে উন্নীত করে?

উত্তরঃ হ্যাঁ, অ্যালোভেরার জুস ক্ষারত্ব বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। এটি একটি গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে এটি শরীরের বর্ধিত অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি পিএইচ স্তর বজায় রাখতে সহায়ক হতে পারে । শরীরে অ্যাসিড এবং ক্ষার উভয়েরই ভারসাম্য থাকা প্রয়োজন। এটি শরীরের pH স্তরকে স্বাভাবিক করতে সাহায্য করতে পারে ।

প্রশ্নঃ অ্যালোভেরার জুসে কি পরিমাণ চিনি থাকে?

উত্তরঃ 100 গ্রাম অ্যালোভেরার রসে 3.75 গ্রাম চিনি রয়েছে ।

প্রশ্নঃ অ্যালোভেরার জুস কি পেটের চর্বি কমাতে পারে?

উত্তরঃ হ্যাঁ, অ্যালোভেরার রস পেটের চর্বি কমাতে সাহায্য করতে পারে। আসলে, এতে স্থূলতা-বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা স্থূলতা কমাতে পারে। এটি পেটের চর্বিও কমাতে পারে ।

প্রশ্নঃ অ্যালোভেরার জুস কি কিডনির জন্য খারাপ?

উত্তরঃ যদি একজন সুস্থ মানুষ অ্যালোভেরার জুস খান, তাহলে কিডনিতে ইতিবাচক ফল দেখা যায়। তবে কিডনি সংক্রান্ত সমস্যা থাকলে এর সেবন ক্ষতিকর হতে পারে । এই ক্ষেত্রে, এটি শুধুমাত্র একজন ডাক্তারের তত্ত্বাবধানে খাওয়া উচিত।

শেষ কথা

এখন নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন যে, অ্যালোভেরার জুস শুধু ত্বক বা চুলের জন্যই নয়, এটি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্যও বেশ কার্যকর। এমন পরিস্থিতিতে অ্যালোভেরার জুস ব্যবহার করা যেতে পারে, তবে এটি অতিরিক্ত পরিমাণে সেবন করবেন না।এছাড়াও, সুস্থ থাকার জন্য অ্যালোভেরার জুসের সাথে ব্যায়াম এবং সুষম খাদ্যকে আপনার জীবনধারার একটি অংশ করুন।আজকের আর্টিকেলে বাড়িতে অ্যালোভেরার রস তৈরি করার একটি সহজ উপায় সম্পর্কেও তথ্য দেওয়া হয়েছে। এর সাহায্যে আপনি বাড়িতে অ্যালোভেরার জুস তৈরি করতে পারেন। আশা করি অ্যালোভেরার জুস নিয়ে আমাদের লেখাটি আপনার ভালো লেগেছে।

আর্টিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরনের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান।

ধন্যবাদ ।

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment