আলিবাবা থেকে পণ্য কেনার নিয়ম

আলিবাবা ডটকম শব্দটির সাথে আমরা অনেকেই পরিচিত অথবা বলতে পারেন আলিবাবা ডটকম ওয়েবসাইটটি সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানি। আমাদের মধ্যেই অনেকেই আবার এই আলিবাবা থেকে পণ্য কেনার চেষ্টা করেছেন অথবা আলিবাবা থেকে পণ্য কেনার কথা ভাবছেন। আজকের আর্টিকেলটি তাদের কথা মাথায় রেখে তৈরি করা হয়েছে যারা কিনা আলিবাবা ডটকম থেকে পণ্য ক্রয় করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন অথবা যারা আলিবাবা থেকে পণ্য কেনার কথা ভাবছেন। তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক আলিবাবা থেকে পণ্য কেনার নিয়ম সম্পর্কে ।

আলিবাবা ডটকম হল বিশ্বব্যাপী পাইকারি পণ্য ক্রয় বিক্রয়ের জন্য তৈরি করা একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট। ১৯৯৯ সালে জ্যাক মা এবং তার সহযোগীরা মিলে আলিবাবা ডটকম ওয়েবসাইটটি চালু করেন। এই সাইটে পাইকারি পণ্য বিক্রেতারা তাদের বিভিন্ন পণ্যের বিস্তারিত বর্ণনা দিয়ে রাখে এবং ক্রেতারা সেই পণ্যের ছবি এবং বর্ণনা দেখে পণ্য পছন্দ করে বিক্রেতার সাথে যোগাযোগ করে, পণ্য ক্রয় করে।

আলিবাবা ডটকম যদিও একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট তারপরেও এখান থেকে পণ্য ক্রয় করার পদ্ধতি কিছুটা ভিন্ন। কেননা, এই সাইটে পণ্য আমদানি করার মত একটি বিষয় রয়েছে। এজন্যই, আজকে আমরা আলিবাবা থেকে পণ্য কেনার নিয়ম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। আর আপনি যদি খুচরা পণ্য কিনতে চান তাহলে পড়ুন, আলীএক্সপ্রেস থেকে পণ্য কেনার নিয়ম

আলিবাবা থেকে পণ্য কেনার নিয়ম

আলিবাবা থেকে পণ্য কেনার নিয়ম গুলো নিচে ধাপে ধাপে বর্ণনা করা হল –

আলিবাবা ডটকম ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট তৈরি করা

প্রথমে আপনি আলিবাবা ডটকমের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে ঢুকুন এবং স্ক্রিনের ডান পাশে Join Free তে কিল্ক করুন।

আলিবাবা ডটকম অফিশিয়াল ওয়েবসাইট

একটি বিষয় মনে রাখবেন, আলিবাবা সাইটে বায়ার এবং সেলার ২ ধরনের একাউন্ট খুলতে পারবেন। আমরা যেহেতু আজকে আলিবাবা ডটকম থেকে পণ্য কেনার বিষয় নিয়ে আলোচনা করছি সেহেতু আজা আমারা বায়ার একাউন্ট তৈরি করব । অবশ্য আপনি ইচ্ছা করলে একটি একাউন্টের মাধ্যমে বায়ার সেলার হতে পারবেন ।

Join Free তে ক্লিক করার পর আপনার সামনে সাইন আপ পেজ ওপেন হবে । এই পেজে আপনি কান্ট্রি বাংলাদেশ সিলেক্ট করুন, পরের বক্সে Buyer অথবা Both সিলেক্ট করুন এরপর ই-মেইল এড্রেস, পাসওয়ার্ড, ফোন নাম্বার, কোম্পানি নাম টাইপ করুন। এরপর Agree and Register বাটনে ক্লিক করার পর আপনার ইমেইলে একটি ভেরিফিকেশন মেইল যাবে। এরপর আপনি ইমেইল থেকে ভেরিফিকেশন লিঙ্কে ক্লিক করলেই আপনার একাউন্ট তৈরি হয়ে যাবে।

আলিবাবা সাইন আপ পেজ

 

আলিবাবা ডটকমে পণ্য নির্বাচন করা

আলিবাবা ডটকমে পণ্য সিলেক্ট করা একদম সহজ। আলিবাবা ওয়েবসাইটের প্রথম পেজের উপরে সার্চ অপশন দেখতে পাবেন। আপনি এই সার্চ অপশন ব্যবহার করে পণ্য এবং সেলার ২টিই সার্চ করতে পারবেন। সেলার বা বিক্রেতার নাম জানা থাকলে সরাসরি সেলারের নাম লিখে সার্চ করতে পারবেন। আপনি যে পণ্য কিনতে চান সেই পণ্যের নাম লিখে সার্চ করুন।

 

আলিবাবা ডটকমে সেলার নির্বাচন

পণ্য নির্বাচন করার পর এবার সেলার বা বিক্রেতা নির্বাচন করতে হবে। কারণ আলিবাবা ডটকমে একই পণ্যের অনেক গুলো বিক্রেতা থাকে। সেই বিক্রেতাদের মধ্য থেকে আমাদের সঠিক এবং ভাল সেলার নির্বাচন করা অত্যন্ত জরুরি। আলিবাব ওয়েবসাইটে সেলার নির্বাচনের জন্য যে সকল বিষয় মনে রাখতে হবে-

বিশ্বাসযোগ্য সেলার নির্বাচন করা

বিশ্বাসযোগ্য সেলার সিলেক্ট করার জন্য ২টি জিনিসের দিকে আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে-

ভেরিফায়েড সাপ্লায়ার: ভেরিফায়েড সাপ্লায়ারদের আলিবাবা নিজে সরাসরি ভ্যারিফাইড করে। ভেরিফায়েড সাপ্লায়ার হওয়ার জন্য আলিবাবা প্রত্যেক বছর ১২০০ ডলার চার্জ করে। আর আলিবাবা এসব সাপ্লায়ারদের অফিস নিজে গিয়ে ভিজিট করে এবং তথ্য যাচাই করে। তারপর যদি সবকিছু ঠিক থাকে তখন সেই সেলার কে ভেরিফায়েড সাপ্লায়ার হিসাবে মার্ক করে।

ট্রেড অ্যাসিয়্যুরেন্স সেলার: ট্রেড অ্যাসিয়্যুরেন্স সেলারদের থেকে পণ্য কিনলে ঠিক সময়মত পণ্য ডেলিভারি পাওয়ার নিশ্চয়তা পাওয়া যায়। আর যদি আপনি কোন কারনে পণ্য না পান তাহলে আপনি টাকা ফেরত পাবেন।

বিশ্বাসযোগ্য সেলার নির্বাচন করা

পণ্যের রিভিউ এবং রেটিং দেখা

পণ্যের রিভিউ এবং সেলার রেটিং এই দুইটা জিনিস যেকোনো ই-কমার্স ওয়েবসাইট থেকে পণ্য কেনার সময় দেখা অত্যন্ত জরুরি। আলিবাবার ডটকমের ক্ষেত্রেও এটি প্রযোজ্য। প্রথমে দেখুন তাদের পণ্য সম্পর্কে আগের ক্রেতারা কি মন্তব্য করেছে। পণ্যের দাম, গুনগত মান, শিপমেন্ট সিস্টেম সহ অন্যান্য বিষয় গুলো সম্পর্কে পূর্বের বায়ারদের রেটিং ও মন্তব্য দেখুন।

সেলার কি নিজেই পণ্য তৈরি করে

এরপর যে বিষয় টি দেখবেন সেটা হল বিক্রেতা কি নিজেই পণ্য তৈরি করে, নাকি অন্যের তৈরি করা পণ্য নিজে শুধু বিক্রি করে। কারণ নিজে পণ্য তৈরি করে বিক্রি করা সেলারের কাছে দাম কিছুটা কম পাওয়া যাবে।

অরিজিন দেখুন

অরিজিন দেখুন কথাটির অর্থ হল আপনি যে পণ্য কি ক্রয় করতে চাচ্ছেন সেটি কোথায় তৈরি হয় সেটা দেখুন। যেমন ধরুন থাইল্যান্ডের পণ্য থাইল্যান্ডেই তৈরি হয়েছে কিনা সেটা ভাল করে লক্ষ্য করুন।

দামের শর্ত গুলো দেখুন

দামের শর্ত হচ্ছে মূলত আপনার দেওয়া দাম অনুসারে সেলার আপনাকে আর কি কি সুবিধা প্রদান করবে। যেমন, পণ্যটি তারা কতদূর পর্যন্ত পৌঁছে দিবে, ট্রান্সপোর্ট ফি তারা দিবে নাকি আমাদের দিতে হবে ইত্যাদি। এটা বোঝার জন্য কত গুলো ছোট টার্ম দেখতে পাবেন FOB, CFR, EXW, MOQ। এইগুলোর অর্থ –

  • FOB – FOB এর সম্পূর্ণ রূপ হল Free On Board। অর্থাৎ, বিক্রেতা তার দেশের পোর্ট পর্যন্ত পণ্য পৌঁছে দিবে। বাকী সকল ধরনের ট্রান্সপোর্ট খরচ আপনাকে বহন করতে হবে।
  • CFR – CFR এর সম্পূর্ণ রূপ হল Cost and Freigh। অর্থাৎ, বিক্রেতা আপনার দেশের পোর্ট পর্যন্ত পণ্য পৌঁছে দেয়ার সকল ধরনের খরচ বহন করবে।
  • EXW – EXW এর সম্পূর্ণ রূপ হল Ex Works। এই লিখাটি দেখলে বুঝে নেবেন যে পণ্যের ট্রান্সপোর্টের সকল ধরনের খরচ আপনাকে দিতে হবে।
  • MOQ – MOQ এর পূর্ণরূপ হল Minimum Order Quantity। এটার অর্থ হল আপনাকে কমপক্ষে ৫০০ / ১০০ পণ্য অর্ডার করতে হবে। ক্ষেত্র বিশেষে পণ্যের পরিমাণ কমবেশি হয়। তবে, MOQ থাকলে অবশ্যই দেখে নিবেন তাদের মিনিমাম পণ্য অর্ডারের পরিমাণ।

আলিবাবা ডটকমে পেমেন্ট পদ্ধতি

আলিবাবা ডটকম ওয়েবসাইটে অনেক প্রকার মাধ্যমে ডলার পেমেন্ট করা যায়। যথা:

  • ব্যাংক ট্রান্সফার
  • Escrow
  • Alibaba Payment Links
  • Pay Later
  • পেপাল
  • ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন
  • Alibaba Online Transfer

আলিবাবাতে বিক্রেতার সাথে যোগাযোগ

পণ্য এবং সেলার নির্বাচন করার পরের ধাপ হল, বিক্রেতার সাথে যোগাযোগ করা। পণ্যের সাথেই দেখবেন Contact Seller বা Get latest price নামে বাটন রয়েছে। এখানে ক্লিক করে বিক্রেতাকে মেসেজ করে আপনি বিক্রেতার সাথে পণ্য, পণ্যের পরিমাণ এবং অন্যান্য বিষয় নিয়ে বিস্তারিত কথা বলুন। দাম নিয়ে আপনি বিক্রেতার সাথে দরকষাকষিও করতে পারবেন।

প্রথম স্যাম্পল আমদানি

প্রথমে আপনাকে পণ্যের একটি স্যাম্পল নিয়ে আসতে হবে। পণ্যের দাম যদি কম হয় সেক্ষেত্রে স্যাম্পল ফ্রিতে নিতে আসতে পারবেন। তবে, দাম যদি বেশি হয় সেক্ষেত্রে টাকা লাগবে। আপনাকে ডুয়েল কারেন্সির মাস্টার-কার্ড ব্যবহার করে অথবা অন্য বাকী উপায়ে পণ্যের দাম এবং ট্রান্সপোর্ট চার্জ পরিশোধ করতে হবে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে DHL বা অন্য কুরিয়ারের মাধ্যমে আপনার স্যাম্পল আপনি হাতে পেয়ে যাবেন।

পণ্য নিয়ে আসার শেষ ধাপ

স্যাম্পল যদি পছন্দ হয়ে যায় সেক্ষেত্রে পণ্য নিয়ে আসার ব্যবস্থা করতে হবে। এবার ব্যাংকে গিয়ে এলসি ওপেন করে পণ্য নিয়ে আসার ব্যবস্থা করুন।

শেষ কথা

এই ছিল আজকে আলিবাবা থেকে পণ্য কেনার নিয়ম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা। একটি বিষয় অবশ্যই মনে রাখবেন দেশের বাহিরে থেকে যে কোন পণ্য আমদানি করার জন্য অবশ্যই আপনার পন্য আমদানি করার লাইসেন্স থাকতে হবে ।

বিডিটেকটিউনার

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment