টিকটকের বিকল্প হিসেবে এলো ‘ইউটিউব শর্টস’

স্বল্পদৈর্ঘ্য ভিডিও তৈরি করার নতুন ফিচার ‘ইউটিউব শর্টস’ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে উন্মুক্ত করা হয়েছে। মূলত টিকটক-কে টেক্কা দিতেই ইউটিউব তাদের এই নতুন প্ল্যাটফরমটি চালু করেছে। এই নতুন ফিচারটি নিয়ে অনেকের ধারণা নেই। আজকের আর্টিকেলে ইউটিউবের এই নতুর প্ল্যাটফরমটি নিয়ে আপনাদের ধারণা দেয়ার চেষ্টা করবো।

ইউটিউব শর্টস কি?

সহজভাবে বললে, ইউটিউব শর্টস হলো ইউটিউবের নতুন একটি ফিচার। এতে টিকটক এর মতোই শর্ট ভিডিও তৈরি ও শেয়ার করা যায়। ইউটিউব শর্টস- এ আপনি সর্বাধিক ৬০ সেকেন্ডের ভিডিও বানাতে পারবেন। বিভিন্ন ধরনের চমকপ্রদ ইফেক্ট ব্যবহার করে সহজেই ভিডিওতে প্রফেশনাল লুক যোগ করতে পারবেন। বিভিন্ন দেশে টিকটক নিষিদ্ধ হওয়ার পর বিভিন্ন কোম্পানি শর্ট ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ তৈরি করেছে। এ সুযোগটি গুগল কিংবা গুগলের মালিকানাধীন ইউটিউব হাতছাড়া করে নি।

ইউটিউব শর্টসের ইতিহাস

২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে প্রথম বারের মতো ইন্ডিয়াতে ইউটিউব শর্টস লঞ্চ করে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ। তারপর ২০২১ সালের মার্চ মাসে যুক্তরাষ্ট্রে লঞ্চ করা হয় এই প্ল্যাটফরমটি। যুক্তরাজ্যে লঞ্চ করা হয় ২০২১ সালের জুনে। কিন্তু, বর্তমানে ইউটিউব এই নতুন প্ল্যাটফরমটিকে আরও বেশি সংখ্যক দেশে ছড়িয়ে দিতে চায়। আর তাই সম্প্রতি বিশ্বের ১০০ টিরও বেশি দেশে উন্মুক্ত করা হয় এই ফিচারটি।

ইউটিউব শর্টস এর কিছু বৈশিষ্ট্য

  • এই প্ল্যাটফরমে সর্বোচ্চ ৬০ সেকেন্ডের শর্ট ভিডিও বানাতে পারবেন।
  • মাল্টি সেগমেন্ট ক্যামেরা ফিচার রয়েছে এই প্ল্যাটফরমে। তাই আপনি একাধিক ভিডিওকে জোড়া লাগিয়ে একটি ভিডিওতে রূপান্তর করতে পারবেন।
  • ভিডিওর মধ্যে মিউজিক ব্যবহার করতে চাইলে ইউটিউবের মিউজিক লাইব্রেরি থেকে ইচ্ছেমতো মিউজিক যোগ করতে পারবেন। আলাদা করে মিউজিক খোঁজার প্রয়োজন হবে না। যদিও মিউজিক যোগ করাকে বর্তমানে নিরুৎসাহিত করেন অনেক অভিজ্ঞ মার্কেটার।
  • স্পিড কন্ট্রোলের জন্য রয়েছে দারুণ ব্যবস্থা।
  • আপনার যদি আগে থেকেই ইউটিউব চ্যানেল থাকে, তবে ইউটিউব শর্টস হতে পারে আপনার রিচ পাওয়ার একটা বড় হাতিয়ার। এই নতুন প্ল্যাটফরমের মাধ্যমে আপনি খুব সহজে আপনার ইউটিউব কমিউনিটি বা চ্যানেলকে অনেক বেশি পরিমাণে গ্রো করাতে পারবেন।
  • ভিডিও রেকর্ড এর সময় কাউন্ট ডাউন ও টাইমার সুবিধা রয়েছে।
  • ভিডিও রেকর্ডের পর স্লো মোশন ইফেক্ট ব্যবহার করতে পারবেন।
  • আকর্ষণীয় ভিডিওর জন্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন ফিল্টার ও ইফেক্ট ব্যবহার করতে পারবেন।

ইউটিউব শর্টস- এ মানিটাইজেশন হবে কি?

এখন পর্যন্ত এই প্ল্যাটফরমে গুগল কোনো বিজ্ঞাপন দেখায় না। ফলে ইউটিউব শর্টস ভিডিও থেকে রেভেনিউ আয় হবে না। YouTube’s Partner Programm Eligibility পেতেও ইউটিউব শর্টস আপনাকে সহযোগিতা করবে না। কিন্তু, Youtube শর্টস video হতে আপনি যে সাবস্ক্রাইবার গুলো পাবেন, সেগুলো আপনার মূল ইউটিউব চ্যনেলের Subscriber হিসেবে গণ্য করা হবে।

সরাসরি রেভিনিউ আয়ের সুযোগ না থাকলেও, গুগল সম্প্রতি ইউটিউব শর্টস এর জন্য ১০০ মিলিয়ন ডলারের ফান্ড ঘোষণা করেছে। ভিডিওর মান, জনপ্রিয়তা, ইউনিক ভিউ ইত্যাদি নানা মেট্রিক্স বিবেচনায় কনটেন্ট নির্মাতারা এই ফান্ড পাবেন।

এ প্ল্যাটফরমটি বর্তমানে অনেকটা পরীক্ষামূলক পর্যায়ে আছে। গুগল ও ইউটিউব কিছুদিন পরপর তাদের নিয়ম পরিবর্তন করে। তাই অদূর ভবিষ্যতে ইউটিউব শর্টস ভিডিও থেকে আয়ের ব্যাপারটি পুরোপুরি উড়িয়ে দেয়া ঠিক হবে না।

YouTube short ভিডিও কিভাবে বানাবেন ?

ইউটিউবের শর্টস ফীচার টি ব্যবহার করতে হলে সবার প্রথমে আপনার মোবাইলে থাকা YouTube app টিকে আপডেট করতে হবে। অ্যাপটি আপডেট করার সাথে সাথে আপনার YouTube app এর মধ্যে YouTube shorts এর ফিচারটি স্বয়ংক্রিয় ভাবে যুক্ত হয়ে যাবে এবং আপনি সেটি ইউজ করতে পারবেন।

ইউটিউব শর্টসের মাধ্যমে ভিডিও বানানোর প্রক্রিয়া একদম সহজ । তবে এখনও অনেকে এটির মাধ্যমে ভিডিও তৈরি করা এবং এডিট করার প্রক্রিয়া টি জানে না । চলুন জেনে নেই Youtube Shorts দিয়ে শর্ট ভিডিও কিভাবে বানাবেন

  • সবার প্রথমে আপনার মোবাইলে থাকা অফিশিয়াল YouTube app টি open করতে হবে।
  • app টি open করার পরে স্ক্রিনের নিচের দিকে মাঝখানে একটি প্লাস (+) চিহ্ন দেখতে পাবেন, এরপর সেই প্লাস আইকনে ক্লিক করুন।
YouTube short
  • এখন, আপনি তিনটি আলাদা অপশন দেখতে পাবেন । এই অপশন গুলো থেকে “create a short video” অপশন টি নির্বাচন করুন ।
create a short video
  • এবার, ভিডিও রেকর্ড করার জন্য আপনার মোবাইলের ক্যামেরাটি ওপেন হয়ে যাবে। এরপর আপনি আপনার ইচ্ছা মত ভিডিও রেকর্ড করুন।
  • ভিডিও রেকর্ডিং শেষ করার পরে আপনি ভিডিওতে বিভিন্ন রকম মিউজিক যোগ করতে পারবেন। অনেক ধরনের effects এবং filters ব্যবহার করে ভিডিওটি এডিটও করতে পারবেন।
  • Video সঠিক ভাবে ক্রিয়েট করে এডিটিং সম্পন্ন হওয়ার পর এবার আপনাকে ভিডিওটির title বা শিরোনাম এবং description ঠিকঠাক মত দিয়ে দিতে হবে।
  • সবশেষে, তৈরি করা ভিডিওটি আপনার ইউটিউব চ্যানেলে পাবলিশ করে দিতে হবে।

শেষ কথা

ইউটিউব শর্টস দিন দিন জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। আপনিও আপনার চ্যানেল বা কমিউনিটি গ্রো করার কাজে এটি ব্যবহার করতে পারেন। তবে সবসময় চেষ্টা করবেন শিক্ষামূলক ও সুস্থ বিনোদনের কাজে এই প্ল্যাটফরমটি ব্যবহার করার। সস্তা জনপ্রিয়তা কিংবা অশ্লীল কাজের মাধ্যমে গ্রো করতে চাইলে সেটি আপনার নৈতিকতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। পক্ষান্তরে সেটা দেশ ও জাতির ক্ষতি সাধন করে। তাই ইউটিউব শর্টস কে শিক্ষামূলক কাজে ব্যবহার করুন। আপনার ভিডিও দেখার পর দর্শক যেন একটা শিক্ষামূলক বার্তা পায়, সেটি খেয়াল রাখবেন।

ইউটিউব শর্টস নিয়ে আমাদের আলোচনা আজ এ পর্যন্তই। লেখাটি ভালো লাগলে শেয়ার করবেন। কমেন্ট সেকশনে আপনার মতামত জানাতে ভুলবেন না।

বিডিটেকটিউনার

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment