অতিরিক্ত ওজন কমানোর ঘরোয়া উপায়

অস্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রার কারণে বর্তমানের সবচেয়ে বড় রোগ হল মেদবৃদ্ধি বা মোটা হয়ে যাওয়া। এই রোগ সারা বিশ্বে মহামারী আকার ধারণ করেছে। মেদ বৃদ্ধির কারনে শরীরে নানা প্রকার সমস্যার সৃষ্টি হয়। যেমন- হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ, ক্যান্সার, কোলেস্টেরল বৃদ্ধি, লিভারের চারপাশে চর্বি জমে (ফ্যাটি লিভার), পাচনতন্ত্র সম্পর্কিত রোগ, যৌন সংক্রান্ত রোগের সাথে , সমাজে বিষণ্নতা এবং একাকীত্ব। যখন সমস্যা বাড়তে শুরু করে, তখন মানুষ ওজন কমানোর উপায় খুঁজতে শুরু করে । অনেক সময় সঠিক তথ্যের অভাবে মানুষ তাদের ওজন কমাতে পারে না। তাই আজকের আর্টিকেলে আমরা শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমানোর উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব ।

Table of Contents

মেদ বৃদ্ধি বা ওজন বাড়ার কারণ

আপনি খাদ্য আকারে দৈনিক যে ক্যালরি গ্রহণ করেন, যখন আপনার শরীর ততটা ক্যলরি দৈনিক ব্যয় করতে পারে না, তখন অতিরিক্ত ক্যালোরি শরীরে চর্বি আকারে জমা হতে শুরু করে, যার কারনে ওজন বৃদ্ধি পায়। অতিরিক্ত ওজনের মানুষের শরীরে অতিরিক্ত চর্বি জমা থাকে। ভুল রুটিন, দূষণ এবং বদহজমের কারণে এটি ধীরে ধীরে শরীরে ঘটে। অনেক কারণে আমাদের শরীরের ওজন বৃদ্ধি পায়, সেগুলো হলো-

  • অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস
  • শারীরিক গতিশীলতা হ্রাস
  • অতিরিক্ত পরিমাণে চর্বি জাতীয় খাবার গ্রহন করা
  • অতিরিক্ত পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট যুক্ত খাবার খাওয়া
  • বংশগত বা জেনেটিক্যাল কারনে
  • বিভিন্ন ধরণের ঔষধ গ্রহনের কারনে
  • বিভিন্ন ধরনের রোগের কারনে

মেদ বৃদ্ধি বা স্থূলতার লক্ষন

একজন ব্যক্তির সঠিক ওজন কত হওয়া উচিত, এটি BMI (Body Mass Index) এর উপর নির্ভর করে. বিএমআই দুটি বিষয়ের উপর নির্ভর করে:-

  • উচ্চতা
  • ওজন

আপনি BMI দ্বারা আপনার ওজন পরীক্ষা করতে পারেন। বিএমআই এর একটি সূত্র আছে – ওজন (কেজিতে) / উচ্চতা (মিটারে)2।

BMI নির্ণয় করার জন্য প্রথমেই আপনার ওজন এবং উচ্চতা কত তা জানতে হবে। এরপর আপনার উচ্চতা কে মিটারে রুপান্তর করে নিতে হবে।

উদাহরণস্বরূপ- ধরুন আপনার ওজন ৭০ kg এবং আপনার উচ্চতা ৫ feet ৩ ইঞ্চি। এখন আপনার উচ্চতা ৫ feet ৩ ইঞ্চিকে মিটারে রুপান্তর করলে হয় ১.৬ মিটার। এখন ১.৬ এর বর্গ করলে উচ্চতা দাঁড়ায় (১.৬×১.৬)=২.৫৬ মিটার।

এখন বিএমআই এর সুত্র অনুযায়ী আপনার মোট ওজনকে ২.৫৬ দিয়ে ভাগ দিতে হবে অর্থাৎ, (৭০÷২.৫৬)=২৭.৩৪।

  • যদি আপনার BMI 18.5 এর কম হয়, তাহলে আপনাকে কম ওজনের হিসাবে বিবেচনা করা হবে।
  • যদি আপনার BMI 18.5 থেকে 24.9 এর মধ্যে থাকে তাহলে আপনার ওজন স্বাভাবিক বলে বিবেচিত হয়।
  • একইভাবে, 25 থেকে 29.9 পর্যন্ত বিএমআই কে অতিরিক্ত ওজন বিবেচনা করা হয়।
  • BMI 30 এর বেশি একে বলা হয় স্থূলতা বা স্থূলতা।
  • গর্ভাবস্থায় BMI সীমা প্রযোজ্য নয়।
  • বিএমআই বয়স এবং লিঙ্গের উপর নির্ভর করে না।

আরও পড়ুনঃ কিটো ডায়েট চার্ট জাহাঙ্গীর কবির ২০২১

ঘরোয়া পদ্ধতিতে ওজন কমানোর উপায়

ঘরোয়া পদ্ধতিতে ওজন কমানোর উপায় গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত নিচে আলোচনা করা হল-

ওজন কমাতে দারুচিনি

প্রায় 3-6 গ্রাম দারুচিনি গুঁড়ো, 200 মিলি পানিতে মিশিয়ে 15 মিনিটের মত সিদ্ধ করুন। এরপর মিশ্রণটিকে হালকা ঠান্ডা করে ফিল্টার করুন এবং এতে এক চামচ মধু যোগ করুন। সকালে খালি পেটে এবং রাতে ঘুমানোর আগে পান করুন। দারুচিনি একটি শক্তিশালী অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল, যা ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া থেকে মুক্তি পেতেও সাহায্য করে।

ওজন কমাতে আদা ও মধু ব্যবহার

প্রায় 30 মিলি আদার রস দুই চামচ মধুর সাথে মিশিয়ে গ্রহন করুন। আদা এবং মধু শরীরের মেটাবলিক ফাংশন বাড়িয়ে অতিরিক্ত চর্বি পোড়াতে কাজ করে। আদা অতিরিক্ত ক্ষুধার সমস্যা দূর করে, এবং হজমে উন্নতি করে। এই মিশ্রণটি সকালে খালি পেটে এবং রাতে ঘুমানোর আগে গ্রহন করা উচিত।

ওজন কমানোর জন্য লেবু এবং মধুর ব্যবহার

এক গ্লাস পানিতে অর্ধেক লেবু, এক চামচ মধু এবং এক চিমটি কালো মরিচ নিন। কালো মরিচে রয়েছে পাইপারিন নামক উপাদান। এই পাইপারিন শরীরে নতুন চর্বি জমা হতে দেয় না। লেবুতে উপস্থিত অ্যাসকরবিক অ্যাসিড শরীরে উপস্থিত বিষাক্ত পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে।

আপেল সীডার ভিনেগার

এক গ্লাস পানিতে এক চা চামচ আপেল সিডার ভিনেগার এবং এক চা চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন। এগুলোর মধ্যে থাকা পেকটিন ফাইবার অনেকক্ষণ পেট ভরা অনুভব করায়। এটি লিভারে জমা চর্বি কমাতে সাহায্য করে।

ওজন কমাতে বাঁধাকপি

প্রতিদিনের খাবারে বেশি বেশি বাঁধাকপি ব্যবহার করুন। বাঁধাকপি সেদ্ধ বা সালাদ হিসেবে ব্যবহার করা যায়। এতে উপস্থিত টারটারিক এসিড, শরীরে উপস্থিত কার্বোহাইড্রেটকে চর্বিতে রূপান্তরিত হতে দেয় না। তাই এটি ওজন কমাতে সাহায্য করে।

চর্বি কমাতে অশ্বগন্ধার ব্যবহার

অশ্বগন্ধার দুটি পাতা নিয়ে ভালো করে বেটে পেস্ট তৈরি করুন। সকালে খালি পেটে গরম পানি দিয়ে এটি গ্রহন করুন। অশ্বগন্ধা মানসিক চাপ কমিয়ে মেদ কমাতে সাহায্য করে। চরম চাপের সময়ে, কর্টিসল নামক একটি হরমোন অতিরিক্ত উৎপাদিত হয়। আর এই কর্টিসল হরমোন বেড়ে যাওয়ার কারণে ক্ষুধা বেশি লাগে। গবেষণা অনুযায়ী, অশ্বগন্ধা শরীরে কর্টিসলের মাত্রা কমায়।

ওজন কমানোর উপায় হিসেবে এলাচ এর ব্যবহার

ঘুমানোর সময় দুটি এলাচ খাওয়ার পর গরম পানি পান করলে শরীরের ওজন কমে। এলাচ, পেটে জমে থাকা চর্বি কমায় এবং কর্টিসলের মাত্রাও নিয়ন্ত্রণ করে। এতে থাকা পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন বি 1, বি 6 এবং এতে উপস্থিত ভিটামিন সি ওজন কমানোর পাশাপাশি শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এলাচ শরীর থেকে প্রস্রাবের আকারে শরীরে জমা হওয়া অতিরিক্ত পানি দূর করে।

মেদ কমাতে মৌরির ব্যবহার

৬-৮ টা মৌরি বীজ এক কাপ পানিতে পাঁচ মিনিট ভালোভাবে ফুটিয়ে নিন। এরপর মিশ্রণটি ছেঁকে নিন এবং সকালে খালি পেটে হালকা গরম করে পান করুন। এটি অতিরিক্ত ক্ষুধার সমস্যা থেকে মুক্তি দেবে এবং খাওয়ার ইচ্ছা কমাবে।

ওজন কমানোর উপায় হিসেবে ত্রিফলা চূর্ণ ব্যবহার

রাতে এক চামচ ত্রিফলা গুঁড়া, 200 মিলি পানির মধ্যে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে ত্রিফলা মিশ্রিত পানি ফুটিয়ে নিন, যতক্ষণ না মিশ্রণটি অর্ধেক হয়ে যায়। এরপর হালকা ঠাণ্ডা করে দুই চামচ মধু যোগ করে পান করুন। এই মিশ্রণটি নিয়মিত কিছুদিন পান করলে আপনার ওজন অনেকটাই কমে যাবে। ত্রিফলা শরীরে উপস্থিত ক্ষতিকর টক্সিন বের করে দিতে সাহায্য করে।

মেদ কমাতে পুদিনা পাতা

পুদিনা পাতার রস কয়েক ফোঁটা হালকা গরম পানিতে মিশিয়ে নিন। খাওয়ার আধা ঘণ্টা পর এটি পান করুন। এটি হজমে সহায়তা করে এবং বিপাক বৃদ্ধি করে ওজন কমাতে সাহায্য করে।

স্থূলতা থেকে মুক্তি পেতে চিত্রক, ত্রিকাতু এবং কুটকি

সমপরিমাণ চিত্রক, ত্রিকাতু, কুটকি একসঙ্গে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। যদি একজন ব্যক্তির ওজন তার গড় ওজনের চেয়ে 10 কেজির চেয়েও বেশি হয় তাহলে এই আয়ুর্বেদিক মিশ্রণটি দিনে দুবার, খাবারের 1 ঘন্টা আগে হালকা গরম পানির সাথে মিশিয়ে খেয়ে নিন। যদি আপনার ওজন গড় ওজনের ২ – ১০ কেজি বেশি হয় তাহলে দিনে একবার এই মিশ্রণটি সেবন করুন।

ওজন কমাতে হলুদের ব্যবহার

হলুদে ভিটামিন বি, সি, পটাশিয়াম, আয়রন, ওমেগা-3 ফ্যাটি এসিড, আলফা-লিনোলিক এসিড এবং ফাইবার প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং অতিরিক্ত মেদ কমাতে সাহায্য করে।

মোটা হওয়া থেকে মুক্তি পেতে জিরা, ধনিয়া ব্যবহার

জিরা, ধনিয়া এবং মৌরি এর মিশ্রণের চা বানিয়ে পান করুন। আপনি এটি খাবারের পরে পানিতে ফুটিয়ে এবং চুমুক দিয়েও পান করতে পারেন। দুধ ছাড়া তুলসী, লেবু, আদা দিয়ে তৈরি কালো চা পান করুন।

ওজন কমানোর জন্য আমলা ব্যবহার

আমলা ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ, যা একটি চমৎকার অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। এটি শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদান বের করে দিতে সাহায্য করে। এটি বিপাক ক্রিয়া বাড়াতে এবং ক্যালোরি পোড়াতে সাহায্য করে। সেই সাথে আমলা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

ওজন কমাতে হালকা গরম পানির ব্যবহার

হালকা গরম পানি দিনে এক থেকে দুই লিটার পান করা উচিত। এর কারণে আমাদের হজমশক্তি বৃদ্ধি পায় এবং পেট ভরা থাকার কারণে ক্ষুধাও কমে যায়।

আরও পড়ুনঃ সঠিক নিয়মে পানি পান করছেন তো?

ওজন কমানোর ডায়েট

ওজন কমানোর জন্য আপনার নিচের ডায়েট ফলো করা উচিত –

  • আদা, পেঁপে, করলা, জিরা, সরিষা, মৌরি, ক্যারাম বীজ, কালো মরিচ, শুকনো আদা, পিপালি, ঝোল, পালং শাক, আমড়া, ইত্যাদি শাকসবজি করলা, লুফা, পারওয়াল, মটরশুটি, লেটুস বাঁধাকপি, শসা, গাজর, বিট, আপেল ইত্যাদি খেতে হবে। জয়, বার্লি, বাজরা, রাগি, মুগ ডাল, মসুর ডাল, আমলা, লেবু, মধু, হলুদ, অ্যালোভেরার রস, আমলার রস, সবুজ চা, বাষ্পযুক্ত স্প্রাউট ইত্যাদি খাওয়া উচিত।
  • স্থান ও মৌসুমে জন্মানো ফল ও শাকসবজি তাদের প্রকৃতি অনুযায়ী খাওয়া উচিত।
  • সকালের খাবার ভারী হওয়া উচিত, দুপুরের খাবার সকালের চেয়ে হালকা হওয়া উচিত এবং রাতের খাবার একদম হালকা হওয়া উচিত অর্থাৎ রাতের খাবার হিসেবে হালকা এবং সহজে হজমযোগ্য খাবার গ্রহণ করা উচিত।
  • রাতে ঘুমানোর কমপক্ষে ২ ঘন্টা আগে খাবার গ্রহণ করা উচিত। দিনের বেলা কারো ঘুমানো উচিত নয়। এগুলি স্থূলতা দূর করার কার্যকর উপায় ।
  • নিয়মিত সময়মতো খাবার গ্রহণ করা উচিত এবং ক্ষুধা লাগার তুলনায় কম খাবার গ্রহন করা উচিত। খাবার ভালোভাবে চিবিয়ে খাওয়া ওজন কমানোর একটি খুব ভালো উপায়।

ওজন কমাতে জীবন ধারায় পরিবর্তন

ওজন কমাতে আপনার দৈনন্দিন জীবন ধারায় অল্প কিছু পরিবর্তন আনতে হবে –

  • সকালে ঘুম থেকে উঠুন, হাঁটুন এবং ব্যায়াম করুন।
  • ঘুমানোর দুই ঘন্টা আগে খাবার খাওয়া উচিত।
  • ডিনার বা রাতের খাবার হালকা এবং সহজে হজম যোগ্য খাবার খাওয়া উচিত।
  • সুষম এবং কম চর্বিযুক্ত খাবার গ্রহন করতে হবে
  • ওজন কমানোর জন্য খাদ্যতালিকায় পুষ্টি যুক্ত খাবার অন্তর্ভুক্ত করুন।
  • একবারে বেশি খাওয়ার বদলে অল্প সময়ে হজমযোগ্য এবং হালকা কিছু খাওয়া উচিত।
  • আপনার ডায়েটে সবুজ শাকসবজি, ফল, দই, বাটার মিল্ক, খোসা ছাড়ানো ডাল এবং বাদাম থাকা উচিত।
  • সপ্তাহে কমপক্ষে একবার ফলের রস এবং হালকা গরম জল খেয়ে রোজা রাখতে হবে।
  • ওজন কমাতে কখনই খাবার এড়িয়ে যাবেন না। পরিবর্তে, একটি সুষম খাদ্য খান এবং ব্যায়াম করুন। সুষম খাদ্য গ্রহণ করলে ওজন বৃদ্ধি হয় না বরং একজন ব্যক্তি সুস্থ থাকে।
  • কোন বেলাতেই খাবার বন্ধ করবেন না। দিনে তিনবেলা খাওয়া নিশ্চিত করুন। আপনি যদি তিনটি খাবারের মধ্যে যে কোন একটি এড়িয়ে যান, তাহলে ফলাফল হবে যে আপনি পরবর্তী খাবারে বেশি খাবার গ্রহন করবেন এবং এই কারণে ওজন বৃদ্ধি পাবে।
  • সকালের নাস্তা নিশ্চিত করুন। সারা দিন শারীরিক ক্রিয়াকলাপ করার জন্য শরীরের শক্তির প্রয়োজন, যা সকালের নাস্তা ছাড়া সম্ভব নয়।
  • প্রতিদিন সকালে 4-5 কিলোমিটার হাঁটুন, তার 10 মিনিট পর চেয়ারে বসে হালকা গরম পানি পান করুন। ওজন কমানোর ঘরোয়া চিকিৎসায় এই পদ্ধতিটি সবচেয়ে কার্যকর ।

আরও পড়ুনঃ সেরা নিউরো মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ঢাকা

ওজন কমাতে এগুলো এড়িয়ে চলুন

কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ খাবার যেমন ভাত, আলু, মিষ্টি আলু ইত্যাদি, মিষ্টি, মিষ্টি পানীয়, ঠান্ডা পানীয়, ভাজা খাবার, ফাস্ট ফুড, জাঙ্ক ফুড, প্রক্রিয়াজাত খাবার, চকোলেট, পনির, মাখন, পনির, মাছ, ডিম, মাংস ইত্যাদি সোডা , এই সকল যতটুকু সম্ভব এড়িয়ে চলুন।

গমের আটা থেকে তৈরি খাবার যেমন রুটি ইত্যাদি বেশি খাওয়া উচিত এবং চাল ও চাল থেকে তৈরি খাবার কম খাওয়া উচিত।

শেষ কথা

মেদ বৃদ্ধি বা অতিরিক্ত ওজন, এটা যেমন একটি বড় ধরনের সমস্যা ঠিক তেমনি ওজন কমানোর উপায় এবং সমাধানও আমাদের আশে পাশেই রয়েছে। আপনি ইচ্ছা করলে খুব সহজেই এই পদ্ধতি গুলো ফলো করে আপনার শরীরের মেদ বা অতিরিক্ত ওজন কমিয়ে ফেলতে পারেন। শুধু দরকার আপনার ইচ্ছাশক্তি, ধৈর্য্য ও সুশৃঙ্খল জীবনধারা।

মেদ বা ওজন কমানোর জন্য বর্তমানে আমাদের চারপাশে (টিভি, সোশ্যালমিডিয়া) অনেক চটকদার বিজ্ঞাপন দেখতে পাবেন। কিন্তু সেগুলো দেখে অতি উৎসাহী হয়ে উঠবেন না। কারণ এসব পদ্ধতিতে আপনার ওজন তো কমবেই না বরং আপনার অনেক ধরনের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। এসব ঔষধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার কারনে আপনি অনেক ধরনের রোগে আক্রান্ত হতে পারেন। তাই ওজন কমানোর উপায় হিসেবে যে কোন ঔষধ সেবন করা থেকে সম্পূর্ণ রূপে বিরত থাকুন।

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment