কিভাবে ওয়েবসাইটের Domain Authority বাড়াবেন

আপনি কি আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি (DA) নিয়ে চিন্তিত? আজকের এই আর্টিকেলে, আমরা আপনাদের বলব, কিভাবে অপেক্ষাকৃত দ্রুত সময়ে আপনার ওয়েবসাইটের Domain Authority বাড়াবেন।

যখন কোন আর্টিকেল গুগল সার্চ রেজাল্টের প্রথম দিকে স্থান পায়, তখন এটি শুধুমাত্র কীওয়ার্ড এবং উচ্চমানের ব্যাকলিংকের উপর নির্ভর করে না। এর পেছনে অনেকগুলি কারণ রয়েছে, যা আপনার র‍্যাঙ্কিং কে প্রভাবিত করে। যার মধ্যে একটি হল ডোমেইন অথরিটি।

ডোমেইন অথরিটি হল Moz দ্বারা তৈরি একটি মেট্রিক যা আপনার সাইটের Reputation প্রতিফলিত করে। যেসব সাইটের হাই ডোমেইন অথরিটি আছে তারা SERPs– এ ভালো র‍্যাঙ্ক করে।

যে কোন সাইটের ডোমেইন অথরিটি 1 থেকে 100 এর স্কেলে পরিমাপ করা হয়। যদি আপনার সাইটের ডোমেইন অথরিটি 100 এর কাছাকাছি হয়, তাহলে আপনার সাইটের ট্রাফিক এবং র‍্যাঙ্কিং উভয়ই খুব ভালো হবে। অতএব আপনার সাইটের ভাল ডোমেইন অথোরিটি থাকা খুব গুরুত্বপূর্ণ।

যে কোন ওয়েবসাইট বা ব্লগের ডোমেইন অথরিটি বাড়াতে অনেক সময়ের প্রয়োজন হয়। এটি একটি দীর্ঘ সময়ের প্রক্রিয়া। আপনি যদি মনে করেন যে আপনি আপনার সাইটে কিছু পরিবর্তন করে রাতারাতি ডোমেইন অথরিটি বাড়াবেন, তাহলে আপনি একেবারেই ভুল করছেন।

যাইহোক, কিছু পদক্ষেপ আছে যা আপনি অনুসরণ করে আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি খুব দ্রুত বৃদ্ধি করতে পারবেন।

Domain Authority কি

যদি আমরা একটি শব্দের অর্থ বুঝতে পারি, তাহলে সেই শব্দটিকে সংজ্ঞায়িত করা খুব সহজ হয়ে যায়। ডোমেইন অথরিটির ক্ষেত্রেও আমরা একই কাজ করতে পারি।

ডোমেইন অথোরিটি শব্দটি দুটি শব্দ নিয়ে গঠিত – প্রথম ডোমেইন এবং দ্বিতীয় অথোরিটি। এখানে ডোমেইন মানে আপনার ওয়েবসাইটের নাম (যেমন আমার ওয়েবসাইটের নাম bdtechtuner.com) এবং অথোরিটি মানে – স্ট্যাটাস বা খ্যাতি অর্থাৎ আমরা এটা বলতে পারি যে ডোমেইন অথোরিটি হল একটি SEO Score যা বলে যে, সার্চ ইঞ্জিনের চোখে একটি ওয়েবসাইটের কতটা খ্যাতি রয়েছে।

ডোমেইন অথোরিটি (DA) তৈরি করেছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এবং প্রাচীন সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এসইও) কোম্পানি MOZ। এটি 1 থেকে 100 এর মধ্যে একটি স্কেলে (গুগলে) ওয়েবসাইটের অবস্থা পরিমাপ করে, যার ভিত্তিতে আমরা জানতে পারি যে একটি ওয়েবসাইট গুগলে কতটা উচ্চতর অবস্থানে রয়েছে।

আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথোরিটি যত বেশি হবে, গুগলে ভাল র‍্যাঙ্ক পাওয়ার সম্ভাবনা তত বেশি হবে।

আরও পড়ুনঃ কিভাবে ওয়েবসাইটের Bounce Rate কমাবেন

ওয়েবসাইটের Domain Authority কিভাবে চেক করবেন

অনেক ফ্রি টুল আছে যেগুলোর মাধ্যমে আপনারা আপনাদের ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বিনামূল্যে চেক করতে পারবেন। কিন্তু আমরা আপনাকে মোজ এর Link Explorer টুল ব্যবহার করার সুপারিশ করব। এর মাধ্যমে আপনি আপনার নিজের ওয়েবসাইট এবং আপনার প্রতিযোগীদের সাইটের ডোমেইন অথোরিটি চেক করতে পারবেন।

ওয়েবসাইটের Domain Authority চেক করার জন্য প্রথমে Moz Link Explorer এর ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন। এরপর Enter URL এর ঘরে, আপনি যে সাইটের Domain Authority চেক করতে চান সেই সাইটের URL টি পেস্ট করে Get Free Link Data বাটনে ক্লিক করুন।

এছাড়াও websiteseochecker ওয়েবসাইটের মাধ্যমেও আপনি যে কোন সাইটের ডোমেইন অথোরিটি চেক করতে পারবেন। এই সাইটের মাধ্যমে আপনি একসাথে কয়েকটি সাইটের ডোমেইন অথোরিটি চেক করতে পারবেন।

প্রথমে websiteseochecker ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে Enter URL এর ঘরে, আপনি যে সাইটের Domain Authority চেক করতে চান সেই সাইটের URL টি পেস্ট করুন। এরপর I’m not a robot এর বাম পাশে থাকা চেক বক্সে ক্লিক করে ক্যাপচা পুরন করে Check বাটনে ক্লিক করুন।

ওয়েবসাইটের Domain Authority বাড়ানোর পদ্ধতি

ডোমেইন অথরিটি এমন একটি র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর যা আপনি কিনতে পারবেন না। DA স্কোর বাড়ানোর জন্য অনেকগুলো ফ্যাক্টর ব্যবহার করা হয়। যার মধ্যে কনটেন্ট কোয়ালিটি, ব্যাকলিঙ্ক এবং Patience সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বৃদ্ধি করার কিছু পদ্ধতি সম্পর্কে

High Quality কন্টেন্ট লিখুন

আপনার সাইটে ভাল মানের কন্টেন্ট প্রকাশ করুন। যাতে অন্য ব্লগাররা আপনার আর্টিকেল তাদের সাইটের সাথে লিঙ্ক করে।

যখন একজন ব্লগার আপনার কন্টেন্ট তার সাইটে নো-ফলো ট্যাগ দিয়ে লিঙ্ক করে, তখন আপনি একটি Dofollow ব্যাকলিঙ্ক পাবেন। Dofollow Backlinks সাইট বা ব্লগের ডোমেইন অথরিটি বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

অতএব সবসময় ইউনিক, বিস্তারিত এবং সুচিন্তিত কন্টেন্ট তৈরি করুন, যা ব্যবহারকারীর জন্য উপযোগী। এছাড়াও আর্টিকেলের দৈর্ঘ্যের উপর ফোকাস করুন। আপনার কন্টেন্টের দৈর্ঘ্য কমপক্ষে ৮০০ শব্দের হওয়া উচিত।

On Page SEO তে ফোকাস করুন

অন পেজ এসইও আপনার ডিএ স্কোর বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

কন্টেন্ট লেখার সময় যে অপ্টিমাইজেশন করা হয় তাকে অন-পেজ এসইও বলা হয়। অন-পেজ এসইওতে, আপনাকে নিম্নলিখিত বিষয়গুলির দিকে খেয়াল রাখতে হবে

  • Targeted keyword – আপনার ব্লগ পোস্টের জন্য সঠিক কীওয়ার্ড নির্বাচন করুন। long-tail কীওয়ার্ডগুলিতে আরও বেশী মনোযোগ দিন । পোস্টের প্রথম paragraph এ একবার আপনার ফোকাস কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন।
  • Use keywords in the title – আপনার আর্টিকেলের টাইটেল আকর্ষণীয় লেখার পাশাপাশি এতে ফোকাস কীওয়ার্ডও ব্যবহার করুন। সম্ভব হলে টাইটেলের শুরুতে ফোকাস কীওয়ার্ড দিন।
  • Permalink structure – আপনার কন্টেন্টের জন্য এসইও ফ্রেন্ডলি পারমালিংক (সংক্ষিপ্ত এবং পাঠযোগ্য URL) ব্যবহার করুন এবং যাতে আপনার ফোকাস কীওয়ার্ডও অন্তর্ভুক্ত থাকে।
  • Keyword density – কন্টেন্টে কীওয়ার্ড খুব বেশি ব্যবহার করবেন না। একে কিওয়ার্ড স্টাফিং বলা হয়। কীওয়ার্ড density 0.5 – 1.5% এর মধ্যে রাখুন।
  • Heading tags – আপনি যদি আপনার ব্লগে খুব বড় কন্টেন্ট প্রকাশ করেন, তাহলে আপনার প্রতিটি পয়েন্টের জন্য সঠিক হেডিং ট্যাগ ব্যবহার করুন। এটি আপনার লেখার বিষয়বস্তু পাঠকদের জন্য পাঠযোগ্য করে তোলে।
  • Image optimization – আপনার কন্টেন্টের ছবির জন্য সঠিক নাম এবং ALT ট্যাগ ব্যবহার করুন। এছাড়াও Image Resize এবং Optimization করতে ভুলবেন না।
  • Meta description – এটি আপনার কন্টেন্টের CTR (ক্লিক থ্রু রেট) বৃদ্ধি করে। তাই সবসময় আকর্ষণীয় মেটা ডেসক্রিপশন লেখার চেষ্টা করুন। এতে অবশ্যই আপনার ফোকাস কীওয়ার্ড যুক্ত করবেন।

পোস্টে Internal Linking করুন

Internal Linking আপনার সাইটের ডোমেইন অথরিটি বাড়াতে একটি বড় ভূমিকা পালন করে। এটি আপনার সাইটের বাউন্স রেটও কমায় এবং সার্চ ইঞ্জিন বটগুলিকে আপনার কন্টেন্ট আরও ভালোভাবে ক্রল করতে সাহায্য করে। এটি ছাড়াও, আপনার বিষয়বস্তু ভিজিটরদের জন্য আরও তথ্যপূর্ণ এবং দরকারী হয়ে ওঠে।

কিন্তু একটি বিষয় মনে রাখবেন, ইন্টারনাল লিঙ্কিং dofollow হওয়া উচিত এবং বিষয়বস্তুর সাথে সম্পর্কিত হওয়া উচিত।

সাইটের জন্য High Quality Backlinks তৈরি করুন

High Quality ব্যাকলিঙ্ক তৈরি করা খুব সহজ কাজ নয়। আবার অনেক বেশী কঠিন কিছু নয়। সঠিক কৌশলের সাহায্যে আপনি সহজেই আপনার সাইটের জন্য মানসম্মত ব্যাকলিঙ্ক তৈরি করতে পারবেন।

অনেক ব্লগার আছে যারা তাদের সাইটে ব্যাকলিঙ্ক তৈরির জন্য ভুল পদ্ধতি ব্যবহার করে এবং তারা এমন সাইট থেকে ব্যাকলিঙ্ক তৈরি করে, যা মিনিটে প্রচুর ব্যাকলিঙ্ক তৈরি করে। এই সমস্ত ব্যাকলিংক নিম্নমানের এবং এগুলো আপনার সাইটের র‍্যাঙ্কিং কমিয়ে দেয়।

সব সময় উচ্চমানের এবং reputed সাইট থেকে ব্যাকলিঙ্ক তৈরি করুন। কোয়ালিটি ব্যাকলিংক আপনার সাইটের ডোমেইন অথরিটি খুব দ্রুত বাড়তে সাহায্য করে।

High Quality Backlinks তৈরি করার কিছু টিপস –

  • আপনার ব্লগে ইউনিক কন্টেন্ট প্রকাশ করুন
  • সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে আপনার কন্টেন্ট শেয়ার করুন
  • বিভিন্ন জনপ্রিয় ব্লগে গেস্ট পোস্ট করুন
  • Natural উপায়ে আপনার সাইটের লিঙ্ক তৈরি করুন
  • বিভিন্ন ব্লগে কমেন্ট করুন
  • ফটো শেয়ারিং সাইটে আপনার সাইটের ছবি সাবমিট করুন
  • ডকুমেন্ট শেয়ারিং সাইটে আপনার আর্টিকেল এবং ইবুক জমা দিন

সাইট থেকে Bad Links রিমুভ করুন

সবসময় আপনার সাইটের লিংক প্রোফাইলে চোখ রাখুন। যদি আপনার সাইটে Bad Links এর সংখ্যা খুব বেশি হয়, তাহলে এটি আপনার ডোমেইন অথরিটি কমিয়ে দেবে এবং আপনার ট্রাফিকের উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলবে।

কিন্তু অনেক ব্লগার আছেন যারা এতে মনোযোগ দেন না এবং এর ফলে SERPs এ তাদের অবস্থান দিন দিন কমে যায়। এ ছাড়া তাদের ডিএ তেও খারাপ প্রভাব পড়ে।

আপনি যদি আপনার লিঙ্ক প্রোফাইল ক্লিন রাখতে চান, তাহলে নিয়মিত আপনার সাইটের Bad Link চেক করুন এবং সেগুলোকে আপনার সাইট থেকে রিমুভ করুন।

সাইট Mobile Friendly করুন

বর্তমান সময়ে মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে এবং অর্ধেকের বেশি সার্চ মোবাইল দ্বারা করা হয়ে থাকে। তাই যদি আপনার সাইট মোবাইল ফ্রেন্ডলি না হয়, তাহলে আপনার সাইট SERPs এ ভাল পারফর্ম করতে পারবে না।

এছাড়াও, যদি আপনার সাইটটি ভিজিটরদের মোবাইলে সঠিকভাবে না দেখায়, তাহলে তারা দ্রুত আপনার সাইট থেকে বের হয়ে যাবে।

আপনার সাইট টি মোবাইল ফ্রেন্ডলি কিনা তা পরীক্ষা করতে আপনি Mobile-Friendly Test tool  ব্যবহার করতে পারেন। এটি গুগল দ্বারা তৈরি করা হয়েছে ।

ওয়েবসাইটের Loading Speed ঠিক করুন

যদি আপনার সাইট লোড হতে বেশি সময় নেয়, তাহলে এটি আপনার ওয়েবসাইটের বাউন্স রেটে খারাপ প্রভাব ফেলবে। যে কোন ভিজিটর একটি সাইট খোলার জন্য 2 থেকে 3 সেকেন্ডের জন্য অপেক্ষা করে। যদি সাইটটি 2 থেকে 3 সেকেন্ডে লোড হয়, তাহলে এটি ঠিক আছে অন্যথায় ভিজিটর সাইট থেকে বেরিয়ে যাবে এবং আপনার সার্চ রেজাল্টে খারাপ প্রভাব পরবে।

আপনি আপনার সাইটের লোডিং স্পীড চেক করতে PageSpeed ​​Insights, Pingdom এবং GTmetrix টুল ব্যবহার করতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ কিভাবে গুগল নিউজে ওয়েবসাইট সাবমিট করবেন

আপনার সাইটের Structure পরিষ্কার এবং ইউজার ফ্রেন্ডলি রাখুন

সাইটের Structure পরিষ্কার এবং ইউজার ফ্রেন্ডলি রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ, যাতে দর্শনার্থীরা সহজেই সাইটটি নেভিগেট করতে পারে। অতএব, আপনাকে ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতার প্রতি বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে।

আপনার সাইট বা ব্লগকে বেশী রঙিন করবেন না। এটি পাঠকের মনোযোগ নষ্ট করতে পারে এবং তারা আপনার ব্লগ থেকে বেরিয়ে যেতে পারে।

পেজে লিঙ্কের সংখ্যা সীমিত করুন

আপনি যদি আপনার আর্টিকেলে অনেকগুলি লিঙ্ক ব্যবহার করেন, তাহলে এটি একটি ভাল বিষয় নয়। ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা অনুযায়ী এটি ভালো নয়। এছাড়াও, গুগল একটি পেজে অল্প কিছু সংখ্যক লিঙ্ক যুক্ত করারও সুপারিশ করে।

Social মিডিয়া তে সাইটের লিংক শেয়ার করুন

আপনার বিষয়বস্তু প্রকাশ করার পর, এটি সামাজিক নেটওয়ার্কিং সাইটে শেয়ার করতে ভুলবেন না। এটি সহজেই আপনার ব্লগে প্রচুর ট্রাফিক বাড়াতে সাহায্য করবে।

কিন্তু আপনার কন্টেন্ট এমন হওয়া উচিত যাতে ব্যবহারকারী লাইক শেয়ার এবং মন্তব্য করতে বাধ্য হয়। এটি ছাড়াও, আপনি আপনার সাইটে সামাজিক শেয়ার বোতাম যুক্ত করতে পারেন।

বিভিন্ন ব্লগে Guest Post Submit করুন

Guest Post আপনার সাইটের ট্রাফিক এবং ব্যাকলিংকের সংখ্যা বৃদ্ধি করে। যদি আপনার সাইটে ব্যাকলিংকের সংখ্যা বৃদ্ধি পায় তাহলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার DA বৃদ্ধি পাবে।

তবে একটি বিষয় মনে রাখবেন, যে ব্লগে আপনি Guest Post করবেন তার ব্লগের নিশ যেন আপনার ব্লগের নিশের সাথে সম্পর্কিত হয়।

ডোমেইনের age বাড়ান

ডোমেইনের বয়স আপনার সাইটের র‍্যাঙ্কিং এবং ডিএ স্কোর বাড়াতে অনেক সাহায্য করে। যদি আপনার সাইটের বয়স 3 বা 4 বছর হয় এবং আপনি নিয়মিত এটিতে মানসম্মত কন্টেন্ট প্রকাশ করেন, তাহলে এর ডোমেইন অথোরিটি 30-40 বা তার বেশি হবে।

কিন্তু যদি আপনার সাইটের বয়স 1 বা 2 মাস হয়, তাহলে আপনাকে এখনই ডোমেইন অথরিটি নিয়ে চিন্তা করার দরকার নেই। আপাতত শুধু কন্টেন্ট প্রকাশের দিকে মনোনিবেশ করুন। আপনার ডিএ স্বয়ংক্রিয়ভাবে বৃদ্ধি পাবে।

ব্লগে নিয়মিত আর্টিকেল প্রকাশ করুন

আপনার ব্লগে নিয়মিত কন্টেন্ট আপলোড করুন। এটি আপনার সাইটে ভিজিটর এবং ডোমেন অথোরিটি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

অনেক ব্লগার আছেন যারা নিয়মিত কন্টেন্ট আপলোড করেন না, যার কারণে তাদের DA ওঠানামা করে। আপনি যদি নিয়মিত আপনার ব্লগে কন্টেন্ট প্রকাশ করেন, তাহলে আপনার DA বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু আপনি যদি তা না করেন, তাহলে আপনার সাইটের ডিএ কমে যেতে পারে।

আপনার সাইটটি HTTP থেকে HTTPS এ ট্র্যান্সফার করুন

গুগল র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর হিসেবে HTTPS ব্যবহার করছে। অতএব, যদি আপনি আপনার সাইটটি http থেকে https এ স্থানান্তর করেন, তাহলে আপনার ডোমেইন অথোরিটির অনেক উন্নতি হতে পারে।

কিন্তু একটি বিষয় মনে রাখবেন, যখন আপনি আপনার সাইটকে http থেকে https এ নিয়ে যান এবং সঠিকভাবে redirection সেট করেন না, তখন আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক কমে যেতে পারে।

সাইটের জন্য Sitemap Submit করুন

সাইটম্যাপ সার্চ ইঞ্জিন বটকে আপনার ওয়েবসাইটকে আরও ভালোভাবে ক্রল করতে সাহায্য করে। আপনি যদি আপনার সাইটে Yoast SEO বা Jetpack ব্যবহার করেন, তাহলে আপনি খুব সহজেই আপনার সাইটের জন্য XML সাইটম্যাপ তৈরি করতে পারবেন।

ধৈর্য্য ধরুন

ডোমেইন অথরিটি এমন একটি ফ্যাক্টর যা আপনি রাতারাতি বৃদ্ধি করতে পারবেন না। এর জন্য আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে। শুধু ধৈর্য ধরুন এবং সঠিক নিয়মে নিয়মিত কাজ চালিয়ে যান, আপনার সাইটের র‍্যাঙ্কিং এবং ডোমেইন অথোরিটি উভয়ই বৃদ্ধি পেতে থাকবে।

শেষ কথা

Domain Authority বেশী থাকলে আপনার সাইট গুগল সার্চ রেজাল্টের প্রথম দিকে অবস্থান করবে।

ডোমেইন অথোরিটি বাড়ানো অনেক কঠিন এবং এর জন্য অনেক সময়ের প্রয়োজন হয়। কিন্তু আপনি এই আর্টিকেলটি অনুসরণ করে অপেক্ষাকৃত কম সময়ে আপনার সাইটের ডোমেইন অথোরিটি বাড়াতে পারবেন।

আর্টিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরনের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান। ধন্যবাদ

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment