RAM কি? কিভাবে কম্পিউটারের র‍্যামের গতি চেক করবেন

আমরা যখনই একটি নতুন ফোন বা ল্যাপটপ কিনতে যাই, তখন সবার প্রথমে মাথায় আসে র‍্যামের কথা। যেকোন ব্যবহারকারীই হোক না কেন, প্রত্যেকেরই বেশি RAM প্রয়োজন। কিন্তু আপনি কি RAM সম্পর্কে বিস্তারিত জানেন? মোবাইল, ল্যাপটপ বা ডেস্কটপে RAM এর কাজ কী? RAM এবং ROM এর মধ্যে কোন পার্থক্য আছে কি? উভয়ই কি একে অপরের থেকে আলাদা? কিভাবে কম্পিউটারের র‍্যামের গতি চেক করতে হয়? প্রতিটি কম্পিউটার এবং স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর জন্য এই বিষয় গুলো সম্পর্কে ভাল জ্ঞান থাকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

RAM কি?

RAM হল এক ধরনের মেমরি যা কম্পিউটারে চলমান প্রোগ্রাম বা সফটওয়্যার সাময়িকভাবে সংরক্ষণ করে রাখে। অর্থাৎ যতক্ষণ কম্পিউটার চলছে বা যতক্ষণ পর্যন্ত সফ্টওয়্যার রানিং থাকে, ততক্ষন পর্যন্ত RAM এটিকে সংরক্ষণ করে রাখে। এবং একবার কম্পিউটারটি বন্ধ হয়ে গেলে, এতে সংরক্ষিত সমস্ত ডেটা অটোমেটিক মুছে যায়।

RAM ডেটা পড়তে বা লিখতে ব্যবহৃত হয়। এটি একটি উচ্চ গতির সেমিকন্ডাক্টর মেমরি যা মাইক্রোচিপের সাথে সংযুক্ত থাকে।

RAM হল প্রাথমিক মেমরির একটি অংশ যা সরাসরি CPU থেকে অ্যাক্সেস করা হয়, তাই এটিকে ডাইরেক্ট অ্যাক্সেস মেমরিও বলা হয়।

RAM হল এক ধরনের অস্থায়ী মেমরি অর্থাৎ উদ্বায়ী মেমরি। যার অর্থ, একবার কম্পিউটারের পাওয়ার সাপ্লাই বন্ধ হয়ে গেলে, র‍্যামে সংরক্ষিত সমস্ত ডেটা মুছে যায়।

র‍্যামের স্টোরেজ ক্ষমতা সেকেন্ডারি মেমরির চেয়ে কম, তবে এর গতি অনেক বেশি। কম্পিউটারে চলমান সমস্ত প্রোগ্রাম এবং তাদের ডেটা শুধুমাত্র র‍্যামে চলে এবং সংরক্ষণ করা হয়।

উদাহরণস্বরূপ, ধরুন আপনি কম্পিউটারে এমএস পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে কোন প্রেজেন্টেশন ফাইল তৈরি করছেন। এবং আপনি 10টি স্লাইড প্রস্তুত করেছেন, কিন্তু আপনি এখনও এই প্রেজেন্টেশন ফাইলটি আপনার হার্ড ডিস্কে সেভ বা সংরক্ষণ করেননি।

তাহলে এখন বলুন, আপনার কম্পিউটারে এই ফাইলগুলো কোথায় সংরক্ষিত আছে? মূলত এই অবস্থায় ফাইলটি র‍্যামে সংরক্ষিত থাকে। এবং যতক্ষণ পর্যন্ত পাওয়ারপয়েন্ট খোলা থাকবে, বা যতক্ষণ আপনার কম্পিউটার চালু থাকবে ততক্ষণ পর্যন্ত এটি র‍্যামে সংরক্ষণ করা থাকবে।

আপনি কাজ করার সময় হঠাৎ বিদ্যুৎ চলে গেলে, যদি আপনার কম্পিউটারটি বন্ধ হয়ে যায় তবে আপনার সমস্ত ডেটা মুছে যাবে। এবং আপনার সমস্ত পরিশ্রমও বৃথা হয়ে যাবে।

অতএব, ডেস্কটপ কম্পিউটার সিস্টেম ব্যবহার করার সময় সর্বদা UPS (নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ) ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয় । আর কিছু সময় পর পর হার্ডডিস্কে আপনার কাজ সেভ করতে থাকুন।

RAM এর পূর্ণরূপ কি

RAM এর পূর্ণরূপ হল “Random Access Memory”। কম্পিউটার এবং স্মার্টফোনে RAM অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। RAM ছাড়া আমরা  কম্পিউটার এবং স্মার্টফোনে কোনো কাজ করতে পারব না।

কারণ আমরা যে অ্যাপ বা সফ্টওয়্যারে কাজ করি, তা অস্থায়ী মেমরিতে অর্থাৎ র‍্যামে সংরক্ষিত থাকে। একই সাথে বেশি প্রোগ্রাম বা সফটওয়্যার চালানোর ফলে মোবাইল বা কম্পিউটার ধীরগতিতে কাজ করতে শুরু করে, এর কারণ হল র‍্যামের কম স্টোরেজ।

আরও পড়ুনঃ ব্লকচেইন কি ? ব্লকচেইন প্রযুক্তি কি? ব্লকচেইনের কার্যপ্রণালী

RAM এর ইতিহাস

1940-এর দশকে কম্পিউটারে RAM প্রথম ব্যবহার করা হয়। চৌম্বক-কোর মেমরি, চৌম্বকীয় রিংগুলির একটি অ্যারের উপর নির্ভরশীল ছিল। প্রতিটি রিং চুম্বক করে ডেটা সংরক্ষণ করা হয়েছিল। প্রতিটি রিংয়ে একক বিট ডেটা স্টোর থাকে এবং চুম্বককরণের দিকটি শূন্য বা এক নির্দেশ করে।

প্রযুক্তিগত অগ্রগতির ফলে ডিভাইস গুলো ছোট হওয়ার সাথে সাথে আরও বেশী তথ্য সঞ্চয় করতে পারে, কিন্তু এগুলো এখনও একই নীতির উপর নির্ভর করে কাজ করে।

1970-এর দশকে ইন্টিগ্রেটেড সার্কিটে সলিড-স্টেট মেমরির উদ্ভাবনের মাধ্যমে কম্পিউটার মেমরির জন্য আসল সাফল্য আসে। এটিতে খুব ছোট ট্রানজিস্টর ব্যবহার করা হয়েছিল, যা খুব ছোট এলাকায় প্রচুর তথ্য সংরক্ষণ করা সম্ভব করেছিল। 

1990 এর দশকের গোড়ার দিকে, ক্লক স্পীড র‍্যান্ডম অ্যাক্সেস মেমরির সাথে সিঙ্ক্রোনাইজ করা হয়েছিল।

SDRAM দ্রুত তার সীমাতে পৌঁছেছে, কারণ এটি একটি একক ডেটা হারে স্থানান্তর করে।

2000 সালের দিকে, ডাবল ডেটা রেট র‍্যান্ডম অ্যাক্সেস মেমরি (DDR RAM) তৈরি করা হয়েছিল। এটি এক ক্লক সাইকেলে দ্বিগুণ ডেটা স্থানান্তর করতে পারে। ডিডিআর র‍্যামের প্রবর্তন SDRAM-এর সংজ্ঞাকেও পরিবর্তন করেছে, কারণ অনেক উতস এখন এটিকে একক ডেটা রেট RAM হিসাবে সংজ্ঞায়িত করে।

DDR RAM তিনবার বিবর্তিত হয়েছে, DDR2, DDR3 এবং DDR4 এর মাধ্যমে। প্রতিটি পুনরাবৃত্তির সাথে ডেটা গতি এবং কম শক্তি ব্যবহার হয়েছে। যাইহোক, প্রতিটি সংস্করণ আগেরটির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।

RAM টাইপ উদ্ভাবনের বছর
FPM- (ফাস্ট পেজ মোড RAM) 1990
EDO RAM (বর্ধিত ডেটা অপারেশন রিড-ওনলি মেমরি) 1994
SDRAM (একক ডায়নামিক RAM) 1996
RDRAM (Rambus RAM) 1998
DDR (ডাবল ডেটা রেট) 2000
DDR2 2003
DDR3 2007
DDR4 2012

RAM এর বৈশিষ্ট্য

চলুন এবার জেনে নেই RAM এর কিছু বৈশিষ্ট্য। 

  • RAM হল কম্পিউটারের প্রাথমিক মেমরি অর্থাৎ প্রধান মেমরি।
  • RAM কে উদ্বায়ী মেমরিও বলা হয়।
  • RAM হল সরাসরি অ্যাক্সেস মেমরি। 
  • সেকেন্ডারি মেমরির তুলনায় এর স্টোরেজ ক্ষমতা কম। 
  • বিদ্যুৎ চলে গেলে এই মেমোরি শূন্য হয়ে যায় অর্থাৎ মেমোরিতে থাকা সমস্ত ডাটা মুছে যায়।
  • র‍্যামের গতি সেকেন্ডারি মেমরির চেয়ে বেশি। 
  • সমস্ত প্রোগ্রাম, অ্যাপস, সফ্টওয়্যার ইত্যাদি শুধুমাত্র র‍্যামে চলে। 
  • একে কম্পিউটারের ওয়ার্কিং মেমরিও বলা হয়। 
  • অন্যান্য মেমরির তুলনায় এই মেমরির দাম কিছুটা বেশি। 

RAM কত প্রকার

RAM প্রধানত দুই প্রকার। কম্পিউটার এবং ল্যাপটপের বিভিন্ন আকার অনুযায়ী RAM ডিজাইন করা হয়। আর মোবাইলে এর সাইজ খুবই ছোট।

RAM এর গতি MHz এবং GHz এ পরিমাপ করা হয় এবং এর স্টোরেজ ক্ষমতা MB এবং GB তে পরিমাপ করা হয়।

ডেস্কটপ, ল্যাপটপ, স্মার্টফোন, ট্যাবলেট ইত্যাদি সবকটিতেই র‍্যাম আছে, কিন্তু প্রতিটি ডিভাইসে ভিন্ন ধরনের র‍্যাম ব্যবহার করা হয়। তাই আমরা ল্যাপটপের র‍্যাম ডেস্কটপে বা মোবাইলের র‍্যাম ল্যাপটপে ব্যবহার করতে পারি না।

কারণ RAM কে আকার, গতি ও ক্ষমতা অনুযায়ী বিভিন্ন প্রকারে ভাগ করা হয়। RAM প্রধানত দুই প্রকার

  • স্ট্যাটিক RAM বা SRAM
  • ডাইনামিক RAM বা DRAM

স্ট্যাটিক RAM বা SRAM

SRAM এর পুরো নাম হল Static Random Access Memory । স্ট্যাটিক মানে হল “ধ্রুবক”, অর্থাৎ যতক্ষণ কম্পিউটারে বিদ্যুত প্রবাহিত হবে ততক্ষণ এতে ডেটা জমা থাকবে। একবার কম্পিউটারের পাওয়ার চলে গেলে, এতে সংরক্ষিত সমস্ত ডেটা মুছে যায় এবং RAM সম্পূর্ণরূপে খালি হয়ে যায়।

এতে বারবার কম্পিউটার রিফ্রেশ করার প্রয়োজন নেই। কারণ এতে ডেটা স্থির থাকে। স্ট্যাটিক RAM কে SRAMও বলা হয়।

স্ট্যাটিক র‍্যাম কম শক্তি খরচ করে এবং গতিশীল র‍্যামের তুলনায় অনেক দ্রুত কাজ করে। এটির কম স্টোরেজ ক্ষমতা এবং এর উৎপাদন খরচ বেশী।

  • পাওয়ার সাপ্লাই চালু থাকা পর্যন্ত র‍্যামে ডাটা সংরক্ষিত থাকে।
  • এটি একটি উদ্বায়ী মেমরি, বিদ্যুৎ চলে গেলে এর ডেটা হারিয়ে যায়।
  • SRAM একটি 6-চিপ-ট্রানজিস্টর ম্যাট্রিক্স ব্যবহার করে
  • এতে কোনো ক্যাপাসিটর ব্যবহার করা হয় না।
  • এতে DRAM এর চেয়ে বেশি চিপ ব্যবহার করা হয়।
  • এটা বানাতে বেশি খরচ হয়
  • এটি ক্যাশ মেমরি হিসাবে ব্যবহৃত হয়।
  • এটি DRAM এর চেয়ে দ্রুত গতিতে কাজ করে।
  • এতে বেশি বিদ্যুৎ খরচ হয়।

ডাইনামিক RAM বা DRAM

DRAM এর পূর্ণরূপ হল Dinamic Random Access Memory । ডাইনামিক RAM হল স্ট্যাটিক RAM এর ঠিক বিপরীত। এগুলি স্থির নয়, এতে ক্রমাগত পরিবর্তন হয়, তাই এর নামকরণ করা হয়েছে গতিশীল।

ডাইনামিক র‍্যামও অস্থায়ী মেমরি, এতেও পাওয়ার চলে গেলে সমস্ত ডেটা মুছে যায়। এটি DRAM নামেও পরিচিত।

ডেটা নিরাপদ রাখতে অর্থাৎ DRAM-এ সংরক্ষণ করতে, এটিকে বারবার রিফ্রেশ করতে হবে। এর ক্যাপাসিটারগুলি, যা ডেটা সঞ্চয় করে, ধীরে ধীরে শক্তি হ্রাস করে।

এর পরে যদি পাওয়ার ডিসচার্জ করা হয়, তবে এতে সংরক্ষিত সমস্ত ডেটা মুছে যায়। এর মেমরি ক্ষমতা বেশি কিন্তু গতি কম।

  • ডেটা ধরে রাখতে এটি ঘন ঘন রিফ্রেশ করা হয়।
  • এটি SRAM থেকে সস্তা।
  • এটি সাধারণত সিস্টেম মেমরি হিসাবে ব্যবহৃত হয়।
  • এটি সেই সমস্ত মেমরি কোষ থেকে তৈরি করা হয় যার একটি ট্রানজিস্টর এবং একটি ক্যাপাসিটর রয়েছে।
  • এর আয়ুষ্কাল SRAM এর থেকে কম।
  • এটি SRAM এর চেয়ে কম গতিতে কাজ করে।
  • এটি RAM হিসাবে ব্যবহৃত হয়।
  • এতে বিদ্যুৎ খরচও কম।

DRAM বা Dynamic RAM আবার তিন ধরনের হয়ে থাকে:

  • SDRAM
  • RDRAM
  • DDR SDRAM

DDR SDRAM আবার অনেক ধরনের হয়ে থাকে

  • DDR1
  • DDR2
  • DDR3
  • DD4
  • DDR5
আরও পড়ুনঃ CDN কি? CDN কিভাবে কাজ করে?

RAM এবং ROM এর মধ্যে পার্থক্য

র‍্যাম রম
RAM এর পূর্ণরূপ হল Random Access Memory. ROM এর পূর্ণরূপ হল Read Only Memory.
RAM হল উদ্বায়ী মেমরি। রম হল নন-ভোলাটাইল মেমরি।
RAM অস্থায়ী হিসাবে ডেটা সঞ্চয় করে। রম স্থায়ীভাবে ডেটা সংরক্ষণ করে।
র‍্যামের ডেটা অ্যাক্সেস করার গতি দ্রুত। রমের ডেটা অ্যাক্সেস করার গতি ধীর।
RAM হলো প্রাইমারী স্টোরেজ ROM হলো সেকেন্ডারি স্টোরেজ
তুলনামূলকভাবে দাম কম। তুলনামূলকভাবে দাম বেশি।
RAM এর কাজ হলো কম্পিউটার বা মোবাইলে উপস্থিত প্রোগ্রামগুলো চালানো। রমের কাজ হল ডিভাইসে উপস্থিত ডেটা স্থায়ীভাবে সংরক্ষণ করা।
RAM এ সংরক্ষণকৃত ডাটা Read এবং Write দুই করা যায় ROM এ সংরক্ষণকৃত ডাটা শুধুমাত্র Read করা যায়
স্ট্যাটিক র‍্যাম, ডাইনামিক র‍্যাম ইত্যাদি র‍্যামের প্রকারভেদ। PROM, EPROM, EEPROM ইত্যাদি হল রমের শ্রেণীবিভাগ

কিভাবে RAM কাজ করে

র‍্যান্ডম অ্যাক্সেস মেমরি কম্পিউটার মেমরির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটিকে র‍্যান্ডম অ্যাক্সেস মেমরি বলার কারণ হল যে, আপনি যদি সেলের সারি এবং কলামের ছেদ বিন্দু জানেন তবে আপনি সহজেই এর যে কোনও মেমরি সেল অ্যাক্সেস করতে পারবেন।

অনেকগুলো ট্রানজিস্টার ও ক্যাপাসিটরের সমন্বয়ে র‍্যামের মেমোরি সেল তৈরী করা হয়। মেমোরি সেলগুলো ডাটাকে 0 এবং 1 এই দুইটি বাইনারি ডিজিট দ্বারা সংরক্ষণ করে রাখে। যখন ডাটা রিচার্জ হয় তখন 1 আর যখন ডিসচার্জ হয় তখন 0। এই কাজটি মেমোরি কন্ট্রোলারের মাধ্যমে সম্পন্ন হয় । র‍্যামের কাজ হচ্ছে আপনি যে Software ব্যবহার করতে চান তা হার্ডডিস্ক থেকে এনে নির্দেশ অনুযায়ী আপনার কম্পিউটারে চালানো। তবে আমরা সরাসরি র‍্যামকে কোন নিদের্শ দিতে পারি না, CPU র‍্যামকে নিদের্শ প্রদান করে থাকে। ধরুন, আপনি কম্পিউটারের মোজিলা ফায়ারফক্স ব্রাউজার ওপেন করার জন্য ক্লিক করেছেন। এখন প্রথমে প্রসেসর র‍্যামকে নিদের্শ দিবে এটি ওপেন করার জন্য, এরপর সেই নির্দেশের উপর ভিত্তি করে র‍্যাম হার্ডডিস্ক থেকে মোজিলা ফায়ারফক্সের ডাটা তার নিজের মধ্যে লোড করে ব্রাউজারটি চালু করবে।

যখন মোবাইল ফোন বা কম্পিউটার বন্ধ থাকে, সেই সময়ে র‍্যাম একেবারেই কাজ করে না। সে সময় আমাদের কাছে যে অ্যাপস ও সফটওয়্যারগুলো থাকে সেগুলো ফোনের মেমরি বা হার্ডডিস্ক বা মেমোরি কার্ডে জমা থাকে।

কিন্তু যখনই আমরা কম্পিউটার চালু করি, তখন অপারেটিং সিস্টেমটি প্রথমে লোড হয়। এর পরই আমরা অন্যান্য সফটওয়্যার বা অ্যাপ ওপেন করতে পারব।

RAM এর গতি ও ফ্রিকোয়েন্সি কত

RAM, প্রোগ্রাম ডেটা এবং নির্দেশাবলী সঞ্চয় করার জন্য একটি অস্থায়ী স্টোরেজ হিসাবে সিস্টেম দ্বারা ব্যবহৃত হয়। সিপিইউ প্রায়ই প্রোগ্রামটি কার্যকর করার সময় র‍্যামে মেমরি রিড এবং রাইট উভয় অপারেশন করে।

এবং তাই, সর্বচ্চো সিপিইউ পারফরম্যান্সের জন্য প্রয়োজনীয় ডেটা এবং প্রোগ্রাম নির্দেশাবলী সরবরাহ করার ক্ষমতার ক্ষেত্রে RAM এর গতি গুরুত্বপূর্ণ।

RAM FSB (ফ্রন্ট সাইড বাস) গতি মেগাহার্টজ (MHz) এ পরিমাপ করা হয়। এই তথ্য সাধারণত RAM মডিউলে লাগানো লেবেলে উল্লেখ করা হয়।

এই লেবেলে মেমরির ধরন (DDR, DDR2, DDR3, DDR4) এবং MHz বা এর PC কোডের ফ্রিকোয়েন্সিও উল্লেখ করা থাকে।

যেকোনো কম্পিউটারের জন্য RAM মডিউল নির্বাচন করার সময় মাদারবোর্ড চিপসেটের FSB গতির সাথে RAM-এর সামঞ্জস্য নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ।

RAM স্ট্যান্ডার্ড RAM FSB গতি RAM কোড
ডিডিআর 100 MHz পিসি – 1600
ডিডিআর 266 মেগাহার্টজ পিসি – 2100
ডিডিআর 333 মেগাহার্টজ পিসি – 2700
ডিডিআর 400 MHz পিসি – 3200
DDR2 400 MHz PC2 – 3200
DDR2 533 মেগাহার্টজ PC2 – 4200
DDR2 667 MHz PC2 – 5300
DDR2 800 MHz PC2 – 6400
DDR2 1066 MHz PC2 – 8500
DDR3 800 MHz PC3 – 6400
DDR3 1066 MHz PC3 – 8500
DDR3 1333 মেগাহার্টজ PC3 – 10600
DDR3 1600 MHz PC3 – 12800
DDR3 1867 মেগাহার্টজ PC3 – 14900
DDR4 1867 মেগাহার্টজ PC4 – 14900
DDR4 2133 মেগাহার্টজ PC4 – 17000
DDR4 2400 MHz PC4 – 19200
DDR4 2666 মেগাহার্টজ PC4 – 21300
DDR4 4000 MHz PC4 – 32000

মেমরি ক্লক স্পিড কি

RAM এর গতি সাধারণত মেগাহার্টজে পরিমাপ করা হয়, সংক্ষেপে “Mhz” বলা হয় । এটি ক্লক স্পীডের একটি পরিমাপ (র্যাম প্রতি সেকেন্ডে কতবার তার মেমরি অ্যাক্সেস করতে পারে) এবং একইভাবে CPU গতি পরিমাপ করা হয়।

RAM এর গতি কি

আপনার সিস্টেমে RAM কত দ্রুত কাজ করবে তা আসলে বেশ কয়েকটি বিষয়ের উপর নির্ভর করে। যার মধ্যে রয়েছে ফ্রিকোয়েন্সি, ব্যান্ডউইথ, চ্যানেলের মোট সংখ্যা, পরিমাণ, ডুয়াল ডেটা রেট (DDR), লেটেন্সি এবং এমনকি আপনার প্রসেসরের গতি এবং জেনারেশন। RAM এর গতি নিয়ে আলোচনা করার সময় বেশিরভাগ ব্যবহারকারীরা আসলে RAM-এর ফ্রিকোয়েন্সির কথা উল্লেখ করছেন অর্থাৎ প্রতি সেকেন্ডে এটি কতগুলি কমান্ড প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারে। তাই এই আলোচনার জন্য, আমরাও একই কাজ করব। RAM ফ্রিকোয়েন্সি MHz-এ পরিমাপ করা হয় । উদাহরণস্বরূপ, 8GB DDR4-2400 RAM 2400MHz ফ্রিকোয়েন্সিতে চলছে। RAM এর ফ্রিকোয়েন্সি সাধারণত পুরানো DDR2 মডিউলে 800MHz থেকে DDR4-এ 4200MHz পর্যন্ত হয়ে থাকে। বর্তমান gen DDR4 মডিউল 2133MHz থেকে শুরু হয়।

কীভাবে কম্পিউটারের র‍্যামের গতি চেক করবেন

RAM এর গতির উপর নির্ভর করে যে, আমাদের কম্পিউটার কত দ্রুত চলবে। যাইহোক, অনেকেই জানেন না কিভাবে RAM এর স্পীড চেক করতে হয়। আপনি কি জানেন কিভাবে RAM এর স্পীড টেস্ট করতে হয়? আর্টিকেলের এই পর্যায়ে আমরা আপনাদের দেখাব কিভাবে কম্পিউটারে RAM এর গতি পরীক্ষা করতে হয়ে।

আমরা কয়েকটি পদ্ধতিতে কম্পিউটারে RAM এর গতি চেক করতে পারি। নিচে পদ্ধতি গুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হল-

কমান্ড প্রম্পটের মাধ্যমে RAM এর গতি পরীক্ষা করুন

কমান্ড প্রম্পট, CMD নামেও পরিচিত। কমান্ড প্রম্পট হল উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমে উপলব্ধ একটি কমান্ড-লাইন ইন্টারফেস। এটি ব্যবহারকারীদের কমান্ডের মাধ্যমে বিভিন্ন উইন্ডোজ সমস্যা সমাধান করতে সাহায্য করে থাকে। এবং অনেক ব্যবহারকারী জানেন না যে তারা কমান্ড প্রম্পটের মাধ্যমে RAM এর গতি পরীক্ষা করা যায়।

কমান্ড প্রম্পটের মাধ্যমে RAM এর স্পীড পরীক্ষা করার জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরন করুন-

  • প্রথমে আপনার কম্পিউটারে Command Prompt ওপেন করুন। Command Prompt ওপেন করার জন্য Win + R কি চেপে cmd টাইপ করে Enter কি প্রেস করুন অথবা Start মেনুতে ক্লিক করে cmd টাইপ করে Enter কি প্রেস করুন।
  • এরপর Command Prompt উইন্ডোতে শুধুমাত্র নিচের দেওয়া কোডটি টাইপ করে অথবা কপি করে পেস্ট করে এন্টার কি প্রেস করুন।
wmic memorychip get speed
  • এরপর আপনি উপরের ছবির মত Speed লেখার নিচে আপনার র‍্যামের গতি কত তা দেখতে পাবেন।

টাস্ক ম্যানেজারের মাধ্যমে RAM এর গতি পরীক্ষা করুন

আপনি Task Manager এর মাধ্যমেও RAM এর গতি পরীক্ষা করতে পারবেন। টাস্ক ম্যানেজার আপনাকে CPU, RAM এবং ডিস্ক ব্যবহার সম্পর্কে অনেক দরকারী তথ্য দেখাবে। আপনি যদি টাস্ক ম্যানেজারের মাধ্যমে RAM এর গতি পরীক্ষা করতে চান তাহলে নিচের ধাপ গুলো অনুসরন করুন-

  • প্রথমে আপনার কম্পিউটারে Task Manager উইন্ডো ওপেন করুন। Task Manager উইন্ডো ওপেন করার জন্য আপনার কম্পিউটারের টাস্কবারে মাউসের ডান বাটন ক্লিক করে Task Manager এ ক্লিক করুন অথবা Start মেনুতে ক্লিক করে Task Manager টাইপ করে Enter কি প্রেস করুন।
  • Task Manager উইন্ডো থেকে Performance ট্যাবে ক্লিক করুন। এরপর বাম পাশের প্যানেল থেকে Memory তে ক্লিক করুন। Memory তে ক্লিক করার পর উইন্ডো এর ডান পাশে আপনি আপনার কম্পিউটারের র‍্যামের গতি দেখতে পাবেন। (নিচের ছবিতে দেখুন)।

নোটঃ Windows 7 এ টাস্ক ম্যানেজারের মাধ্যমে আপনি র‍্যামের গতি চেক করতে পারবেন না। Windows 7 এ র‍্যামের গতি চেক করার জন্য নিচের পদ্ধতি টি অনুসরন করুন।

CPU-Z সফটওয়্যার এর মাধ্যমে RAM এর গতি পরীক্ষা করুন

CPU-Z সফটওয়্যার এর মাধ্যমে RAM এর গতি পরীক্ষা করার জন্য নিচের ধাপ গুলো অনুসরন করুন-

  • প্রথমে এই লিংকে ক্লিক করে CPU-Z সফটওয়্যার টি ডাউনলোড করে ইন্সটল করুন।
  • CPU-Z সফটওয়্যারটি ইন্সটল করার পর সফটওয়্যার টি ওপেন করুন।
  • এরপর Memory ট্যাবে ক্লিক করলে DRAM Frequency সেকশনে আপনার কম্পিউটারের র‍্যামের স্পীড দেখতে পাবেন।

শেষ কথা

আমারা আশা করছি উপরের আলোচনা থেকে আপনারা, র‍্যাম কি এবং র‍্যাম সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পেরেছেন। এছাড়াও আমরা আপনাদের দেখানোর চেষ্টা করেছি কিভাবে আপনার কম্পিউটারের র‍্যামের গতি চেক করবেন। আশা করি উপরের পদ্ধতি গুলো অনুসরন করে আপনারা র‍্যামের গতি চেক করতে পারবেন।

আর্টিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরনের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান

ধন্যবাদ

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment