কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক পার্টিশন কিভাবে করবেন

উইন্ডোজ কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক পার্টিশন কিভাবে করবেন? আজকের এই পোস্টে আমরা সেই বিষয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছি। যদি আপনি একটি ল্যাপটপ কম্পিউটার ব্যবহার করেন এবং এতে উইন্ডোজ ব্যবহার করেন যেমন উইন্ডোজ 10, উইন্ডোজ 7, ​​তাহলে আপনার জন্য পিসি হার্ডডিস্ক ড্রাইভ কিভাবে পার্টিশন করতে হয় তা জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক যে কোন সময় পার্টিশন করার প্রয়োজন হতে পারে।

ধরুন আপনার কম্পিউটারের হার্ডডিস্কের সাইজ 500 গিগাবাইট, এখন আপনি এটিকে আলাদা করে ৩ ভাগে ভাগ করতে চান, যেমন প্রথমটি হবে সি ড্রাইভ যেখানে উইন্ডোজ ইনস্টল করা হবে এবং বাকি ২ টা পার্টিশনে থাকবে আপনার বিভিন্ন ফাইল, সিনেমা, ভিডিও ইত্যাদি। তাই যদি আপনি আপনার হার্ডডিস্ককে পার্টিশন করে আলাদা আলাদা ড্রাইভ তৈরি করতে চান, তাহলে নিচে উল্লেখিত ধাপ গুলো অনুসরণ করুন।

হার্ডডিস্ক কি?

হার্ডডিস্ক কম্পিউটারের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ, যা কম্পিউটারে ডেটা সঞ্চয় করতে ব্যবহৃত হয়। এর মাধ্যমে আপনি সহজেই আপনার ডেটা কম্পিউটার বা ল্যাপটপে সংরক্ষণ করতে পারেন এবং প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবহার করতে পারেন।

হার্ডডিস্ক পার্টিশন কি?

আসুন আর্টিকেলের এই পর্যায়ে আমরা জেনে নেই হার্ডডিস্ক পার্টিশন কি? পার্টিশন মানে হল ভাগ করা, অর্থাৎ কোন জিনিসকে বিভিন্ন অংশে ভাগ করা। আর সেই হিসেবে কম্পিউটার হার্ডডিস্ক পার্টিশন মানে হল, কম্পিউটারের হার্ডডিস্ককে বিভিন্ন অংশে ভাগ করা। হার্ডডিস্ককে পার্টিশন করার কারণে আপনি আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন ফাইল হার্ডডিস্কের বিভিন্ন অংশে রাখতে পারবেন। তাহলে চলুন জেনে নেই, কিভাবে আপনি খুব সহজেই কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক পার্টিশন করতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ কিভাবে উইন্ডোজ 11 থেকে উইন্ডোজ 10 এ ডাউনগ্রেড করবেন

কম্পিউটারে হার্ডডিস্ক পার্টিশন করার পদ্ধতি

হার্ডডিস্ক পার্টিশন করার এই পদ্ধতিতে আপনাদের কোন ধরনের সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে না, ডিফল্ট উইন্ডোজ সিস্টেম থেকেই কাজটি করতে পারবেন, তাই চলুন প্রক্রিয়াটি শুরু করি।

  • প্রথমে, আপনার কম্পিউটারের “My Computer” বা “This PC” তে মাউসের ডান বাটন ক্লিক করুন। এরপরে Manage অপশনে ক্লিক করুন।
  • এখন একটি নতুন উইন্ডো ওপেন হবে, সেই উইন্ডো থেকে “Disk Management” এ ক্লিক করুন। তারপর আপনি যে ড্রাইভটি পার্টিশন করতে চান তার উপর মাউসের ডান বাটন ক্লিক করুন এবং “Shrink Volume” এ ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনার সামনে একটি নতুন উইন্ডো ওপেন হবে, এতে আপনাকে ড্রাইভের সাইজ সিলেক্ট করতে হবে। তার মানে আপনি যে ড্রাইভ পার্টিশন করবেন সেটির সাইজ কত জিবি হবে তা সিলেক্ট করতে হবে। আপনাকে আরও একটি বিষয় মনে রাখতে হবে যে, আপনি যদি 10 বা 20 জিবি ড্রাইভ তৈরি করতে চান, তাহলে আপনাকে সেই বক্সে 10000 বা 20000 টাইপ করতে হবে। অর্থাৎ এটি MB, 1 GB = 1000 MB অনুযায়ী লিখতে হবে। এরপর ড্রাইভের সাইজ টাইপ করুন এবং “Shrink” বাটনে ক্লিক করুন।
  • ড্রাইভের সাইজ সঠিকভাবে টাইপ করে Shrink বাটনে ক্লিক করার পর, একটি ড্রাইভ তৈরি হবে। যার নাম ডিফল্ট ভাবে লিখা থাকবে “Unallocated”। ড্রাইভটি Public করার জন্য, আপনি Unallocated লেখা ড্রাইভের উপর মাউসের ডান বাটনে ক্লিক করুন এবং তারপর New Shrink Volume অপশনে ক্লিক করুন।
  • এখন আপনার সামনে একটি নতুন উইন্ডো ওপেন হবে, এতে আপনাকে শুধু NEXT বাটনে ক্লিক করতে হবে।
  • এরপর New Simple volume Wizard নামে একটি নতুন উইন্ডো ওপেন হবে। এখান থেকে Next বাটনে ক্লিক করুন।
  • Next বাটনে ক্লিক করার পর নতুন একটি উইন্ডো ওপেন হবে। সেখান থেকে Assign the Drive Letter লেখার ডান পাশে ড্রাইভ লেটার সিলেক্ট করতে হবে। যদি আপনি এটি করতে না চান, তাহলেও কোন সমস্যা নেই। এখন শুধু Next বাটনে ক্লিক করুন।
  • এখন আরেকটি নতুন উইন্ডো ওপেন হবে, এখান থেকে আপনি Volume Lable সেকশনে, ড্রাইভের নাম টাইপ করুন। যদি আপনি এটি এখন করতে না চান তাহলেও কোন সমস্যা নেই, আপনি পরে এই নাম চেঞ্জ করতে পারবেন। এরপর Next বাটনে এ ক্লিক করুন।
  • পরের নতুন উইন্ডোতে জাস্ট Finish বাটনে ক্লিক করুন।
  • এখন আপনি আপনার This PC বা My Computer এ প্রবেশ করুন এবং চেক করুন। এখানে আপনি আপনার নতুন পার্টিশন করা ড্রাইভটি দেখতে পাবেন।

আরও পড়ুনঃ কিভাবে পেনড্রাইভ থেকে শর্টকাট ভাইরাস রিমুভ করবেন?

শেষ কথা

সুতরাং উপরের দেখানো পদ্ধতি সঠিকভাবে অনুসরন করে আপনি আপনার কম্পিউটারে হার্ডডিস্ক পার্টিশন করতে পারবেন। যদি হার্ডডিস্ক পার্টিশন করতে আপনার কোন সমস্যা হয়, তাহলে আপনি আমাদের কমেন্ট সেকশনে জানাতে পারেন অথবা আপনি যদি আমাদের কিছু জিজ্ঞাসা করতে চান, তাহলে আপনি কমেন্ট সেকশনে জানান। ধন্যবাদ

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment