কম্পিউটার ভাইরাস কি? কম্পিউটার ভাইরাস প্রতীরোধের উপায়

বন্ধুরা, আমরা সবাই কম্পিউটার সম্পর্কে জানি। কারণ আমাদের জীবনে কম্পিউটারের গুরুত্ব এত বেড়ে গেছে যে আমরা এই যুগকে কম্পিউটার যুগও বলতে পারি। কারণ আজকের যুগে ভালো চাকরির জন্য কম্পিউটারের জ্ঞান থাকা প্রয়োজন। আমরা সবাই জানি কিভাবে কম্পিউটার ব্যবহার করতে হয়, কিন্তু আপনি কি কম্পিউটার virus সম্পর্কে জানেন ? কম্পিউটার ভাইরাস কি এবং এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কি হতে পারে?

কারণ কম্পিউটার, মোবাইল, ইলেকট্রনিক গ্যাজেট সবার জন্যই ভাইরাস খুবই ক্ষতিকর। কারণ একবার ভাইরাস আপনার কম্পিউটারে প্রবেশ করলে, এটি আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে অনেক ক্ষতি করতে পারে। আপনার কম্পিউটারে কম্পিউটার ভাইরাস আসার কারণে আপনার কম্পিউটার সিস্টেম খুব ধীর গতিতে কাজ শুরু করে। এর সাথে, কম্পিউটার ভাইরাস আপনার কম্পিউটার সিস্টেম এবং ডেটা ধ্বংস করে।

আজ আমরা এই নিবন্ধে কম্পিউটার virus সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য বিস্তারিতভাবে আলোচনা করতে যাচ্ছি। যেমন – কম্পিউটার ভাইরাস কি? কম্পিউটার ভাইরাস কি করতে পারে? কম্পিউটার ভাইরাসের ধরন কি কি ? কম্পিউটার সিস্টেমে ভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ, Computer ভাইরাস এড়ানোর ব্যবস্থা কি?

Table of Contents

কম্পিউটার ভাইরাস কি? (Computer Virus Bangla)

বন্ধুরা, কম্পিউটার ভাইরাস এক ধরনের সফটওয়্যার প্রোগ্রাম, যা আপনার কম্পিউটারের কর্মক্ষমতা হ্রাস করার সাথে সাথে আপনার Computer সিস্টেমের সফটওয়্যারকে কাজ থেকে বিরত রাখতে এবং কম্পিউটারের ডেটা নষ্ট বা নষ্ট করার জন্য তৈরি করা হয়েছে।

VIRUS শব্দটির পূর্ণ রুপ হল Vital Information Resources Under Siege. বন্ধুরা, আমরা সবাই জানি যে কম্পিউটারে অনেক সফটওয়্যার প্রোগ্রাম আছে এবং কম্পিউটার আমাদের দেওয়া কাজগুলো সেই সফটওয়্যার প্রোগ্রামের মাধ্যমে পূরণ করে। কোন সফটওয়্যার প্রোগ্রাম ছাড়া কম্পিউটার কিছুই করতে পারে না। এই কম্পিউটার virus আপনার অনুমতি ছাড়া অনেক দিক থেকে আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে প্রবেশ করতে পারে। এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল যে ব্যবহারকারী অনেক সময় এটি সম্পর্কে জানেন না। এই ভাইরাস ধীরে ধীরে আপনার কম্পিউটারে ছড়িয়ে পড়ে। আপনার কম্পিউটার সিস্টেম যদি ভাইরাস দ্বারা বেশি প্রভাবিত হয় তবে তাও হ্যাং হয়ে যায়।

আপনার তথ্যের জন্য, আমি এটাও বলি যে ভাইরাস প্রাকৃতিক নয়। এটি তৈরি করেছে হ্যাকাররা। ভাইরাসগুলোও একইভাবে তৈরি করা হয় যেমন কম্পিউটারের কাজ ভালো করার জন্য একাধিক সফটওয়্যার প্রোগ্রাম তৈরি করা হয়, কিন্তু এর উদ্দেশ্য সাহায্য করা নয় বরং কম্পিউটারের ক্ষতি করা।

কম্পিউটার ভাইরাস কত প্রকার (Type of Computer Virus in Bangla)

বন্ধুরা, আমি আশা করি এখন আপনি বুঝতে পেরেছেন কম্পিউটার ভাইরাস কি? কিন্তু কম্পিউটারের ভালো পারফরমেন্স এবং নিরাপত্তার জন্য আপনাকে জানতে হবে কম্পিউটার ভাইরাসের ধরন কি এবং সেগুলো আপনার কম্পিউটারে কিভাবে প্রবেশ করে? এবং এই ভাইরাসগুলি আপনার কম্পিউটারে কতটা এবং কীভাবে প্রভাব ফেলতে পারে? তাহলে আসুন বিস্তারিতভাবে জানা যাক কত ধরনের Computer ভাইরাস আছে?

কম্পিউটার ভাইরাস অনেক ধরনের আছে, তার মধ্যে কিছু প্রধান ভাইরাসের তালিকা নিচে দেওয়া হল:-
  • বুট সেক্টর ভাইরাস (Boot Sector Virus)
  • ফাইল ইনফেক্টর ভাইরাস (File Infector Virus)
  • মাইক্রো ভাইরাস (Micro Virus)
  • ট্রোজান – Trojans
  • ম্যালাওয়্যার – Malware
  • স্পাইওয়্যার – Spyware
  • ব্রাউজার হাইজ্যাকার ভাইরাস (Browser Hijacker Virus)
  • রেসিডেন্ট বা বাসিন্দা ভাইরাস (Resident Virus)
  • পার্টিশন টেবিল ভাইরাস (Partition Table Virus)
  • সরাসরি অ্যাকশন ভাইরাস (Direct Action Virus)

বুট সেক্টর ভাইরাস (Boot Sector Virus)

বুট সেক্টর ভাইরাস এমন একটি কম্পিউটার ভাইরাস, যা বিশেষ করে ফ্লপি ডিস্কের হার্ড ডিস্ক বা বুট সেক্টরের মাস্টার বুট রেকর্ড (MBR) কে সংক্রমিত করে। সিস্টেমের এই ভাইরাসগুলো মূলত রিমুভেবল মিডিয়ার মাধ্যমে কম্পিউটারে প্রবেশ করে।

আপনার কম্পিউটার এই ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হলে, আপনি আপনার কম্পিউটার চালু করার সময় এই ভাইরাস আপনার অপারেশন সিস্টেম লোড হতে বাধা প্রদান করে। আর অপারেটিং সিস্টেম লোড না হওয়ার কারনে আপনার কম্পিউটার টি ওপেন হয় না । এই ভাইরাসটি কম্পিউটার থেকে অপসারণ করা অত্যন্ত কঠিন। সিস্টেম থেকে এই ভাইরাস রিমুভ করার জন্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সিস্টেমকে ফরম্যাট করতে হয়।

ফাইল ইনফেক্টর ভাইরাস (File Infector Virus)

ফাইল ইনফেক্টর ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত সিস্টেমের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। কারণ ভাইরাসের একটি বড় অংশ এই শ্রেণীর অন্তর্গত। যখন একটি নির্দিষ্ট প্রোগ্রাম লোড হয়, তখন এই ভাইরাস স্বয়ংক্রিয়ভাবে লোড হয়। এই ভাইরাস ব্যবহারকারীর কম্পিউটারে ইমেইলের মাধ্যমেও প্রবেশ করতে পারে। কিছু ফাইল ইনফেক্টর ভাইরাস প্রোগ্রাম ফাইলের সাথে সংযুক্ত থাকে, যেমন- .com, EXE ফাইল।

এই ভাইরাস আপনার কম্পিউটার সিস্টেমের জন্য খুব ক্ষতিকর হতে পারে। কারণ এই ভাইরাস খুব সহজেই আপনার কম্পিউটারে সংরক্ষিত থাকা ফাইল বা ডেটা সংক্রমিত করতে পারে।

এই ভাইরাস আপনার কম্পিউটারে উপস্থিত অ্যাপ্লিকেশন গুলোরও ক্ষতি করতে পারে। এই ভাইরাস এক্সিকিউটেবল ফাইলগুলিকে সংক্রমিত করতে পারে (যেমন- Sys, ovl, prg, এবং mnu ইত্যাদি)।

মাইক্রো ভাইরাস (Micro Virus)

মাইক্রো ভাইরাসগুলি বিশেষভাবে সফ্টওয়্যার এবং অ্যাপ্লিকেশন গুলোকে আক্রমন করে। মাইক্রো ভাইরাস বিশেষ করে মাইক্রো সফট অফিস অর্থাৎ ওয়ার্ড, ডকুমেন্ট, পাওয়ার পয়েন্ট, স্প্রেডশীটের মতো ফাইলগুলিকে ক্ষতি করে। 

যখনই আপনি আপনার সিস্টেমে মাইক্রো ভাইরাস সংক্রমিত সফটওয়্যারটি খুলবেন, তখন এই মাইক্রো ভাইরাস স্বয়ংক্রিয়ভাবে তার কাজ শুরু করে। যার কারণে আপানার কম্পিউটারে উপস্থিত থাকা অন্যান্য সফটওয়্যার বা অ্যাপ্লিকেশনগুলিও প্রভাবিত হয়। এই ভাইরাসটি সফটওয়্যার বা অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে ছড়ায়। অতএব, এই ভাইরাসটি যেকোনো অপারেটিং সিস্টেমকেও সংক্রামিত করতে পারে (উইন্ডোজ, অ্যান্ড্রয়েড, ম্যাকওএস, আইওএস ইত্যাদি)।

ট্রোজান – Trojans

এই ধরণের ভাইরাস বেশিভাগ সময় হ্যা-কার (hacker) রা ছড়ায় এবং ইউজ করে থাকে। এই ট্রোজান ভাইরাস দ্বারা, হ্যাকার রা আপনার কপম্পিউটারে ইন্টারনেটের মাধ্যমে প্রবেশ করে আপনার অজান্তেই আপনার পিসি তে থাকা পার্সোনাল এবং গোপন তথ্য চুরি করে নিতে পারে।

ম্যালাওয়্যার – Malware

এই রকমের সিস্টেম virus তৈরি করা হয় মুলত আপনার কম্পিউটারকে damaged (ক্ষতিগ্রস্থ) করার জন্য । এই ম্যালাওয়্যার বেশিরভাগ সময়, অন্য Computer বা ল্যাপটপ থেকে ফাইল কপি করার সময় অথবা infected usb device ইউজ করার মাধ্যমে আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে ছড়ায়।

স্পাইওয়্যার – Spyware

স্পাইওয়্যার / spyware virus গুলির ব্যবহার করে, আপনার কম্পিউটারের কার্যক্রম এবং ব্রাউজারের ব্যবহারের ওপর নজর রাখা হয়। এগুলি বেশিরভাগ সময় সরাসরি ইন্টারনেট থেকে আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে প্রবেশ করে।

ব্রাউজার হাইজ্যাকার ভাইরাস (Browser Hijacker Virus)

আমরা প্রায় সবাই জানি যে, আজকাল ইন্টারনেট কতটা ব্যবহার হচ্ছে। আজকের যুগে, আমরা অনলাইনে সিনেমা দেখতে পছন্দ করি, অনলাইন গেম খেলতে এবং অনেক ধরনের ওয়েবসাইটে ঘুরাঘুরি করতে পছন্দ করি। যার কারণে আমাদের ডিভাইসে ভাইরাস প্রবেশের ঝুঁকি অনেকগুন বেড়ে যায়।

কিছু মানুষ তাদের আয় বাড়ানোর জন্য ইন্টারনেটে বিজ্ঞাপন দেয়। যখনই আপনি ব্রাউজারের অ্যাড্রেস বারে একটি ইউআরএল প্রবেশ করেন, ব্রাউজার হাইজ্যাকাররা আপনাকে সেই ওয়েবসাইটে নিয়ে না গিয়ে অন্য সংক্রমিত ওয়েবসাইটে নিয়ে যায়। এইভাবে, যখন আপনার ব্রাউজার এই ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হবে, তখন আপনার ব্রাউজারে অনেক ধরনের অবাঞ্ছিত বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হবে।

রেসিডেন্ট বা বাসিন্দা ভাইরাস (Resident Virus)

রেসিডেন্ট বা বাসিন্দা ভাইরাস হলো এমন একটি ভাইরাস যা কম্পিউটারের র RAM মেমোরিতে নিজেকে সংরক্ষিত রেখে সংক্রমণ কাজ পরিচালনা করে । কখনও কখনও এই ভাইরাসগুলি অ্যান্টিভাইরাসের সাথে যুক্ত হয়। বিভিন্ন ধরণের রেসিডেন্ট বা বাসিন্দা ভাইরাস রয়েছে এবং তারা বিভিন্ন উপায়ে কাজ করে থাকে। এর মধ্যে কিছু ভাইরাস খুব দ্রুত কাজ করে এবং কিছু কিছু অনেক ধীরে কাজ করে থাকে।

রেসিডেন্ট ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত কম্পিউটার সিস্টেমেও অনেক ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। উদাহরণস্বরূপ, এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার কারণে আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে কোন ডেটা অপারেট, শাট ডাউন এবং কপি-পেস্টে সমস্যা হয়। এই রেসিডেন্ট ভাইরাস চিনতে পারাটাও একটু কঠিন কাজ।

সরাসরি অ্যাকশন ভাইরাস (Direct Action Virus)

সরাসরি অ্যাকশন ভাইরাসকে অনাবাসিক ভাইরাসও বলা হয়। এই ভাইরাসটি সাধারণত এক্সটেনশান (যেমন- Com, EXE ইত্যাদি) দিয়ে ফাইলগুলিকে বেশি সংক্রমিত করে। একবার এই ভাইরাসটি আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে প্রবেশ করলে, এটি আপনার কম্পিউটারের মেমরিতে বা স্মৃতিতে লুকিয়ে থাকে।

এই ভাইরাসের বিশেষ বিষয় হল এই ভাইরাসগুলো তাদের উপর ক্লিক করে খোলা না পর্যন্ত এরা কার্যকরী হয় না। এই ভাইরাস একটি নির্দিষ্ট ধরনের ফাইলের সাথে সংযুক্ত থাকে। এই ভাইরাস আপনার সিস্টেমের পাশাপাশি আপনার ফাইলেরও ক্ষতি করতে পারে। যাইহোক, এটি স্বস্তির বিষয় যে এই ভাইরাসটি খুব বিপজ্জনক নয়, এটি অ্যান্টিভাইরাস প্রোগ্রামের সাহায্যেও রিমুভ করা যায় এবং এটি ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা এবং সিস্টেম পারফরম্যান্সকে প্রভাবিত করে না।

কয়েকটি কম্পিউটার ভাইরাসের নাম

তো চলুন এখন আমরা আপনাকে কয়েকটি কম্পিউটার ভাইরাসের নাম বলি যা খুবই বিপজ্জনক।

  • এসকিউএল স্ল্যামার – SQL Slammer.
  • নিমডা – Nimda
  • ব্লাস্টার – Blaster
  • কোড রেড – Code Red
  • আই লাভ ইউ – ILOVEYOU
  • দ্যা মরিস ওয়ার্ম – The Morris Worm
  • ক্রিপার – Creeper
  • মরিস ওয়ার্ম – Morris Worm.
  • মাইডুম – Mydoom.
  • স্টাক্সনেট – Stuxnet.
  • ক্রিপ্টলকার – CryptoLocker.
  • স্যাসার অ্যান্ড নেটস্কি – Sasser & Netsky.
  • অ্যানা কুর্নিকোভা – Anna Kournikova.

আমি এখানে যে সকল ভাইরাসের নাম উল্লেখ করেছি সেগুলো সবই উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন ভাইরাস, এগুলো ছাড়াও বর্তমানে অনেক কম্পিউটার ভাইরাস রয়েছে এবং প্রতিদিন নতুন নতুন ভাইরাস আবিস্কার হচ্ছে।

কম্পিউটার ভাইরাস কি করতে পারে?

কম্পিউটার ভাইরাস আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে উপস্থিত ডেটা, ফাইল, ফোল্ডার, ডকুমেন্ট মুছে বা নষ্ট করতে পারে। একটি কম্পিউটার ভাইরাস আপনার কম্পিউটার সিস্টেমের কর্মক্ষমতা নষ্ট করে। ভাইরাস আপনার কম্পিউটারের হার্ডডিস্কে সংরক্ষিত ডেটাও মুছে দিতে পারে। ইমেইলের মাধ্যমে এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারেও প্রভাব ফেলতে পারে।

কম্পিউটার সিস্টেমে ভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ কি

কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের জন্য কম্পিউটারের ভাল কর্মক্ষমতা এবং সুরক্ষার জন্য কম্পিউটার ভাইরাসের লক্ষণ সম্পর্কে জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ সেই লক্ষণ থেকে আপনি তত্ক্ষণাত বুঝতে পারবেন যে আপনার কম্পিউটার ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়েছে।

তাই আসুন আমরা আজকে আপনাকে এমন কিছু লক্ষণ সম্পর্কে জানানোর চেষ্টা করি:-

  • আপনার কম্পিউটার সিস্টেমের কর্মক্ষমতা হঠাত কমে যাওয়া ।
  • যে কোন ফাইল অথবা ফোল্ডার অটোমেটিক মুছে যাওয়া ।
  • ইন্টারনেটের গতি ধীর।
  • আপনার কম্পিউটার সিস্টেমের ডিসপ্লেতে অপ্রত্যাশিত বিজ্ঞাপন দেখানো।
  • নতুন ফোল্ডার বা প্রোগ্রাম স্বয়ংক্রিয়ভাবে কম্পিউটারে ইনস্টল হয়ে যায়।
  • অপ্রয়োজনীয় ইমেইলের আগমন।
  • ব্রাউজার ব্যবহার করার সময় আপনার স্ক্রিনে ত্রুটি বার্তা বা সতর্কতা বার্তা প্রদর্শিত হবে।
  • কিছু ফাইল নিজে থেকে, প্রোগ্রাম স্বয়ংক্রিয়ভাবে চালু হওয়া।
  • যদি আপনার ডিভাইস হ্যাং হয়ে যায়, এর মানে হল যে আপনার কম্পিউটার সিস্টেম ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হয়ে থাকতে পারে।

তাই বন্ধুরা, যদি আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে এরকম কিছু ঘটে থাকে, তাহলে বুঝে নিন আপনার কম্পিউটার সিস্টেম ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারে। এবং এটি থেকে আপনার কম্পিউটার সিস্টেমকে রক্ষা করাও খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এই ভাইরাসগুলি আপনার কম্পিউটার সিস্টেমের ডেটা মুছে বা ধ্বংস করতে পারে।

কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশের কারণ

কম্পিউটারে ভাইরাসের অনেক উৎস আছে, তাই আসুন আজকে আমরা জেনে নেই যে কোন কোন উৎস হতে আমাদের কম্পিউটার বা ল্যাপটপে ভাইরাস আসে।

  • একটি ডিভাইসকে অন্য ডিভাইসের সাথে সংযুক্ত করার মাধ্যমেও ভাইরাস প্রবেশ করে ।
  • আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যারের অনুপস্থিতি।
  • প্রোগ্রাম ডাউনলোড করা: যেসব প্রোগ্রামে ডাউনলোডযোগ্য ফাইল রয়েছে সেগুলি ম্যালওয়্যারের সবচেয়ে কমন উৎস, যেমন ফ্রিওয়্যার এবং অন্যান্য এক্সিকিউটেবল ফাইল।
  • পাইরেটেড বা ক্র্যাক করা সফটওয়্যার ব্যবহার করা।
  • ব্লুটুথ এর মাধ্যমে ফাইল ট্রান্সফার করলে ভাইরাস প্রবেশ করতে পারে
  • ইন্টারনেট
  • ইমেইলে সংযুক্ত থাকা ফাইলের মাধ্যমেও ভাইরাস ছড়াতে পারে
  • নরমাল সাইট থেকে সফটওয়্যার ডাউনলোড করার মাধ্যমেও ভাইরাস প্রবেশ করতে পারে
  • অজানা বা প্রতারণামূলক ইমেইলে সংযুক্ত থাকা লিঙ্ক ওপেন করলে

কম্পিউটার ভাইরাস প্রতীরোধের উপায়

আমাদের কম্পিউটার virus দ্বারা আক্রান্ত হলে কম্পিউটারের কার্যক্ষমতা কমে যাওয়ার পাশাপাশি কম্পিউটার বার বার হ্যাং হওয়ার মত সমস্যা দেখা যায়। যার কারনে আমাদের কাজে ব্যাঘাত ঘটে। আর এই ধরনের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে হলে আমাদের ভাইরাস প্রতিরোধ করার উপায় সম্পর্কে জানতে হবে ।

আরটিকেলের এই অংশে আমরা আপনাকে জানাব ভাইরাস থেকে বাঁচার কিছু উপায় সম্পর্কে। আমাদের বর্ণিত পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনি আপনার কম্পিউটারকে ভাইরাস থেকে অনেকটাই নিরাপদ রাখতে পারবেন বোলে আশা করছি।

  • আপনি আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে একটি খুব ভাল অ্যান্টিভাইরাস ইনস্টল করুন এবং নিয়মিত এটি আপডেট করতে থাকেন। আপনি যদি বেশি ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তাহলে আপনি প্রিমিয়াম অ্যান্টিভাইরাসও ব্যবহার করতে পারেন।
  • অতিরিক্ত ইন্টারনেট ব্যবহারের কারণে ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশী রয়েছে। অতএব, বেশি ইন্টারনেট ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন, বিশেষ করে যেসব ওয়েবসাইট নিরাপদ নয় (http) সেগুলো ব্যবহার থেকে।
  • যে সাইট গুলো জনপ্রিয় এবং নিবন্ধিত নয়, সেই সকল ওয়েবসাইট ভিজিট না করাই সবচেয়ে ভালো হবে।
  • খারাপ ওয়েবসাইট (প-র্ণ) থেকে দূরে থাকুন। আপনি যদি চান যে ভাইরাস আপনার কম্পিউটারে প্রবেশ না করুক, তাহলে আপনার কম্পিউটারে কখনোই প-র্ণ ওয়েবসাইট ওপেন করবেন না। কারণ প-র্ন ওয়েবসাইট গুলোতে প্রচুর পরিমাণে ভাইরাস থাকে।
  • পেনড্রাইভ, ফোন, ডিস্ক বা যে কোন এক্সটারনাল ডিভাইস পিসি তে ব্যবহার করার আগে তা অবশ্যই স্ক্যান করুন
  • আপনার কম্পিউটার সিস্টেমকে নির্দিষ্ট সময় পরে পরে অ্যান্টিভাইরাস দিয়ে স্ক্যান করতে থাকুন।
  • যদি আপনার কোন ইমেইল প্রেরক সম্পর্কে কোন তথ্য না থাকে, তাহলে এই মেইল খুলবেন না। বিশেষ করে মেইলে থাকা কোন লিঙ্কে ক্লিক করবে না ।
  • অননুমোদিত ওয়েবসাইট থেকে কিছু ডাউনলোড করবেন না। যেমন- কোন মুভি, এমপি থ্রি বা সফটওয়্যার বা অ্যাপ্লিকেশন ইত্যাদি।
  • ডাউনলোড করা জিনিসটি সঠিকভাবে স্ক্যান করে নিন। কারণ এগুলোর মধ্যে ভাইরাসের ঝুঁকি অনেক বেশি।

কিভাবে কম্পিউটার ভাইরাস মোকাবেলা করবেন?

উপরের আলোচনার পরে আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে যে, যদি ভাইরাস আমাদের কম্পিউটারে যে কোন ভাবে প্রবেশ করে, তাহলে আমরা কিভাবে এটিকে মোকাবেলা করব, কিভাবে আমরা এটি কম্পিউটার থেকে বের করতে অথবা রিমুভ করতে পারি। তাই আসুন আমরা আপনাকে কিছু উপায় বলি যার মাধ্যমে আপনি আপনার এই প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন।

কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থেকে ভাইরাস (Virus) Delete বা রিমুভ করতে নিচের স্টেপগুলো অনুসরণ করুন –

ধাপ 1: একটি নির্ভরযোগ্য অ্যান্টিভাইরাস প্রোগ্রাম ব্যবহার করুন।

যদি আপনার কম্পিউটারে ইতিমধ্যেই অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার ইন্সটল করা থাকে এবং এটি থাকা অবস্থায় আপনার পিসি ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হয়ে থাকে, তাহলে আপনি যে অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যারটি ব্যবহার করছিলেন তা ভালো অ্যান্টিভাইরাস নয়। আপনাকে একটি ভালো মানের অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করতে হবে।

ধাপ 2: অ্যান্টিভাইরাসের মাধ্যমে ফুল সিস্টেম স্ক্যান করুন

প্রথমে আপনার অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার টি ওপেন করুন এবং স্ক্যান শুরু করতে স্ক্যান বাটনে ক্লিক করুন।

ধাপ 3: ম্যালওয়্যার রিমুভ করুন

স্ক্যান করার পরে, আপনি ফলাফল দেখতে পাবেন যেখানে বলা হয়েছে যে কম্পিউটারে কতগুলি ভাইরাস আছে। যদি আপনার পিসিতে ভাইরাস থাকে, তাহলে তার পরে অপসারণ করার জন্য ডিলিট বা রিমুভ অপশন দেখতে পাবেন। এরপর ডিলিট বা রিমুভ বোতামে ক্লিক করে, আপনি আপনার কম্পিউটার সিস্টেম থেকে অ্যান্টিভাইরাস দ্বারা সনাক্ত করা ভাইরাস গুলোকে সরিয়ে ফেলতে পারবেন।

ধাপ 4: ভবিষ্যতে সংক্রমণ প্রতিরোধ করুন

ভবিষ্যতে কম্পিউটারে যেন ভাইরাস প্রবেশ করতে না পারে সে জন্য, আপনার স্ক্যানটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে নির্ধারন করে রাখা উচিত যাতে আপনার কম্পিউটার সপ্তাহে এক বা দুইবার অটো স্ক্যান হয়, এভাবে আপনি আপনার কম্পিউটারকে ভাইরাস থেকে আরও বেশী সুরক্ষিত রাখতে পারবেন।

 

কম্পিউটার ভাইরাস সম্পর্কে দেওয়া এই তথ্য গুলো যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তাহলে এই আর্টিকেলটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন এবং তাদেরকেও জানতে সাহায্য করুন।

বিডিটেকটিউনার

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

1 thought on “কম্পিউটার ভাইরাস কি? কম্পিউটার ভাইরাস প্রতীরোধের উপায়”

Leave a Comment