কিভাবে দ্রুত গুগল অ্যাডসেন্স এপ্রুভ পাবেন?

আপনি যদি ব্লগিং এর সাথে যুক্ত হন তাহলে আপনি নিশ্চয়ই Google AdSense এর কথা শুনে থাকবেন । গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে মানুষ অনলাইনে আয় করে। আপনি যদি আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে অর্থ উপার্জন করতে চান তবে গুগল অ্যাডসেন্স তার জন্য সবচেয়ে বিশ্বস্ত নেটওয়ার্ক। কারণ এটি গুগলের একটি পণ্য, তাই এটি সবচেয়ে বিশ্বস্ত।যদিও সবাই তাদের ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে অর্থ উপার্জন করতে চায় , কিন্তু যখন Google AdSense অনুমোদনের কথা আসে তখন এখানে অনেক ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় , বিশেষ করে নতুনদের জন্য। তাই আজকের আর্টিকেলে আমরা আপনাদের সাথে কিভাবে দ্রুত গুগল অ্যাডসেন্স এপ্রুভ পাবেন সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব।

গুগল অ্যাডসেন্স এপ্রুভ না হওয়ার কারণে, অনেকে তাদের ব্লগ বন্ধ করে দেয় বা এটিতে কাজ করা বন্ধ করে দেয়। আজ আমরা আপনাকে বলব কিভাবে খুব দ্রুত 100% সফলতার সাথে Google AdSense অ্যাকাউন্ট অনুমোদন করা যায়।

অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভাল পাওয়ার কিছু নিয়ম ও পদ্ধতি আছে, যেগুলো সঠিকভাবে অনুসরন করলে খুব সহজেই আপনারা আপনাদের সাইটের জন্য গুগল অ্যাডসেন্স এপ্রুভাল পেয়ে যাবেন।

আপনি যদি নিচের তথ্যগুলো খুব মনোযোগ সহকারে বুঝতে পারেন, তাহলে এই কাজটি আপনার জন্যও খুব সহজ হয়ে যাবে এবং আপনি আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের জন্য Google AdSense অনুমোদন পেয়ে যাবেন।

আপনি যদি একটি নতুন ব্লগ শুরু করেন অথবা আপনার একটি পুরানো ব্লগ থাকে, কিন্তু আপনি সেই ব্লগ থেকে কোন আয় করতে সক্ষম না হন। কিভাবে আয় করতে হয় তা না জানেন, তারপরেও এই নিবন্ধটি আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

গুগল অ্যাডসেন্স কি?

আপনার যদি একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট থাকে, তাহলে আপনি সেই ওয়েবসাইট বা ব্লগ থেকে অনলাইনে আয় করতে পারেন।অনলাইন আয়ের জন্য সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত নেটওয়ার্ক হল গুগল অ্যাডসেন্স। মূলত গুগল অ্যাডসেন্স একটি বিজ্ঞাপনের মাধ্যম যা আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগে বিজ্ঞাপন প্রকাশ করে এবং সেই বিজ্ঞাপন থেকে প্রাপ্ত অর্থের একটি অংশ আপনাকে দেয়।

গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্টের জন্য আপনাকে কোনো ধরনের টাকা দিতে হবে না। এটা সম্পূর্ণ বিনামূল্যে, কিন্তু গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট তৈরি করার অনেক নিয়ম আছে, যেগুলো সঠিকভাবে মেনে চলা খুবই জরুরি। আবার আপনি যদি গুগল অ্যাডসেন্স এপ্রুভ পেয়ে থাকেন তবুও আপনাকে তার নিয়মগুলি খুব সাবধানে অনুসরণ করতে হবে, আপনি যদি তাদের নিয়মের বিরুদ্ধে কোনও কাজ করেন তবে এই অ্যাকাউন্টটি যে কোনও সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

মনে রাখবেন, গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার পরে, আপনি সেই গুগল অ্যাকাউন্ট থেকে কোনও অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন না।

AdSense এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা খুবই সহজ, এটি সেটআপ করাও খুব সহজ। এই কারণে, প্রতিটি ব্লগার একটি AdSense অ্যাকাউন্ট তৈরি করে ।

এর পরে, আমরা Google AdSense অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করব এবং এর শর্তাবলী এবং নীতি সম্পর্কে বলব।

আরও পড়ুনঃ ২৫০+ হাই DA প্রোফাইল ব্যাকলিংক সাইটের তালিকা

গুগল অ্যাডসেন্স এপ্রুভ পাওয়ার টিপস

আসুন এখন দেখি কোন উপায়ে আমরা আমাদের নতুন Google AdSense অ্যাকাউন্ট অনুমোদন পেতে পারি।

প্রিমিয়াম ডোমেইন ব্যবহার করুন

আপনি যদি Blogger- এ আপনার ব্লগ তৈরি করে থাকেন, তাহলে আপনি অবশ্যই .blogspot.com-এর সাব-ডোমেইন পেয়েছেন, আপনি এতেও Google AdSense-এর জন্য আবেদন করতে পারেন। তবে আমরা আপনাদের সাজেস্ট করব আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের জন্য ফ্রি ডোমেইন নাম ব্যবহার না করে, দ্রুত অ্যাডসেন্স অনুমোদন পাওয়ার জন্য একটি প্রিমিয়াম ডোমেইন (যেমন- .com, .info, .net, .org) নেম ব্যাবহার করুন।

যেকোন ব্লগের জন্য একটি ডোমেইন তার পরিচয় হয়ে ওঠে । ব্লগিং এ ডোমেইনের গুরুত্ব অনেক বেশি, সেটা অ্যাডসেন্সের জন্যই হোক, এসইওর জন্যই হোক।  উভয় ক্ষেত্রেই এটি কাজ করে।

আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেসে কাজ করেন, তাহলে তার জন্যও আপনার হোস্টিং লাগবে। ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে শুরু করা ব্লগের জন্য সবসময় ভালো হোস্টিং প্রয়োজন । তাই আপনি যখনই হোস্টিং নেবেন , ভালো কোনো কোম্পানি থেকে নিন যাতে আপনার কোনো সমস্যা না হয়।

তো বন্ধুরা, আপনি যদি Simple Blogger এ কাজ করে থাকেন, তাহলে আপনি সাব ডোমেইন থেকেই কাজটি সম্পন্ন করতে পারেন। কিন্তু প্রোফেশনাল ব্লগিং শুরু করার জন্য আপনাকে অবশ্যই একটি প্রিমিয়াম বা টপ লেভেল ডোমেইন কিনে নিতে হবে। এটি ভবিষ্যতে আপনার অনেক উপকারে আসবে।

ব্লগ তৈরি করার সাথে সাথে অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করবেন না

একটি ব্লগ তৈরি করার সাথে সাথে অথবা ব্লগ তৈরির এক বা দুই দিনের মধ্যে গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করবেন না। আপনারা সবাই জানেন যে ব্লগিং এর কাজ একটি ধৈর্যশীল কাজ, তাই এর জন্যও আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে।

যাইহোক, আপনি অনেক ওয়েবসাইট বা ইউটিউবে দেখতে পাবেন যেগুলি ব্লগ তৈরির সাথে সাথে আবেদন করে এবং অ্যাডসেন্স অনুমোদন পায়। কিন্তু এই পদ্ধতিগুলির মধ্যে অনেকগুলি ভুল, কিছু সঠিকও, এখন এটি তাদের পদ্ধতির উপর নির্ভর করে।

কিন্তু এখানে আমরা আপনাকে সেই পদ্ধতিগুলি সম্পর্কে বলছি যা আমরা আপনাকে আমাদের অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, যা আপনাকে একবারে একটি সম্পূর্ণ অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে এবং দ্রুত এপ্রুভ পেতে সাহায্য করবে।

তাই আমরা আপনাদের সাজেস্ট করব অ্যাডসেন্স আবেদন করার আগে একটু ধৈর্য ধরুন এবং আমাদের মতে, কমপক্ষে ৩০ দিন পরে আবেদন করুন। আপনি যদি নিম্নলিখিত উপায়ে এই ৩০ দিনের মধ্যে আপনার ব্লগে কাজ করেন, তাহলে আপনার AdSense অ্যাকাউন্ট খুব দ্রুত এপ্রুভ হয়ে যাবে।

ব্লগে কন্টেন্ট লিখুন

আপনি যদি সঠিক উপায়ে গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্টের জন্য আবেদন করতে চান, তবে আপনাকে কিছু জিনিস সাবধানে এবং ধৈর্য সহকারে করতে হবে। তার মধ্যে একটি হল ব্লগে কন্টেন্ট রাখা, অর্থাৎ পোস্ট লেখা।

অনেক সময় আমরা একেবারে নতুন ব্লগ তৈরি করি এবং সাথে সাথে গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করি যা একেবারেই ভুল, এইভাবে আপনার অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট কখনই এপ্রুভ হবে না।

আপনাকে আপনার ব্লগে গড়ে ৮০০ – ১০০০ শব্দের কমপক্ষে ১৫-২০ টি আর্টিকেল লিখতে হবে। যদিও অনেকে ৫০০-৭০০ শব্দের আর্টিকেল লিখেও গুগল অ্যাডসেন্স পায় । তবে সেগুলো বেশীরভাগ সময়েই রিজেক্ট হয়ে যায়।

আপনি যদি বড় আরটিকেল লেখেন, তাহলে আপনি এতে ৮-১০ টি আর্টিকেল থেকেও আবেদন করতে পারবেন। এটা আগে থেকে দেওয়া বা নির্দিষ্ট কোন নিয়ম নয়, এখানে আমরা আমাদের অভিজ্ঞতা থেকে এটা বলছি।

অনেক সময় এর চেয়ে কম আর্টিকেলেও আবেদন করা হয়, কিন্তু আর্টিকেল বেশী লিখলে তাতে লাভবান আপনিই হবেন, এতে খারাপ কিছু নেই।

ব্লগে, প্রথমের দিকে শুধুমাত্র আপনার ব্লগের বিষয়ের উপরে মানানসই আর্টিকেল লেখার চেষ্টা করুন। এটি Google কে বুঝতে দেয় যে আপনার ব্লগ কিসের উপর ভিত্তি করে এবং আপনার ব্লগে কি ধরনের বিজ্ঞাপন দেখানো উচিত।

তাই প্রথমে আপনার সাইটে কিছু কন্টেন্ট আপলোড করুন এবং তারপর গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করুন।

অন্যের কন্টেন্ট কপি করবেন না

কখনোই অন্যের কন্টেন্ট কপি করে আপনার ব্লগে পাবলিশ করবেন না।

এটি গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট অনুমোদনে একটি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। আপনার নিজের দ্বারা যতটা সম্ভব ঠিক ততটাই লিখুন, এমনকি আপনার যদি একটি আর্টিকেল লিখতে ১৫ দিন সময় লাগে, তারপরেও এটি ঠিক আছে।

আপনি যদি অন্য কোথাও থেকে কন্টেন্ট কপি করে আপনার ব্লগে পাবলিশ করেন, তাহলে আপনার Google AdSense অ্যাকাউন্ট অনুমোদন পেতে সমস্যা হবে। তাই সব সময় নিজে চিন্তা ভাবনা করে ইউনিক কন্টেন্ট লিখুন। কমপক্ষে ১০-১২ টি ইউনিক কন্টেন্ট লিখে তারপর অ্যাডসেন্সের জন্য অ্যাপ্লাই করুন।

প্রয়োজনীয় পেজ তৈরি করুন

অ্যাডসেন্স আবেদন করার আগে আপনার ব্লগের জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ পেজ তৈরি করা উচিত, এটি আপনাকে ব্লগ অনুমোদন পেতে সাহায্য করবে।

গোপনীয়তা নীতি, আমাদের সম্পর্কে, যোগাযোগ এই কয়েকটি মৌলিক পেজ যা আপনার অ্যাডসেন্স আবেদন করার আগে আপনার ব্লগে যুক্ত করতে হবে।

এই পেজগুলিকে ফাঁকা রাখবেন না, প্রয়োজন অনুসারে এই পেজগুলিতে তথ্য যুক্ত করুন।

Google সার্চ কনসোলে ব্লগ যুক্ত করুন

Google সার্চ ইঞ্জিনে আপনার ব্লগকে সহজে দেখানোর জন্য Google Search Console ব্যবহার করা হয় । আমাদের পরামর্শ হল AdSense আবেদন করার আগে আপনার ব্লগকে Google সার্চ কনসোলে এড করুন। এটির মাধ্যমে, আপনি আপনার ব্লগে অর্গানিক ট্রাফিক পাবেন যা গুগলের অ্যাডসেন্স অনুমোদনের জন্য সহজ হবে।

গুগল সার্চ কনসোলের পাশাপাশি, আপনার ব্লগে গুগল অ্যানালিটিক্স যোগ করে, আপনি অর্গানিক ট্রাফিক পাচ্ছেন কি না তা চেক করুন। অল্প কিছু হলেও অরগ্যানিক ট্র্যাফিক (সরাসরি গুগল সার্চের মাধ্যমে আসা ট্রাফিক) পাওয়ার পরেই আপনার অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করা উচিত।

আরও পড়ুনঃ কিভাবে ওয়েবসাইটের Domain Authority বাড়াবেন

কপিরাইট ছবি ব্যবহার করবেন না

একজন শিক্ষানবিস হিসাবে, আপনার নিজের ব্লগে ব্যবহৃত ফটোগুলি নিজের তৈরি করা উচিত। অর্থাৎ অ্যাডসেন্স এপ্লাই করার আগে বাইরের কোনো ওয়েবসাইট বা গুগল থেকে ছবি না নিয়ে ফটোশপ বা যেকোনো ইমেজ এডিটিং সফটওয়্যারের সাহায্য নিন এবং নিজে ছবি তুলুন। এটি আপনার AdSense অ্যাকাউন্ট এপ্রুভাল পেতে অনেক সাহায্য করবে। তবে Pixabey এবং Pexels থেকে আপনি আপনার ব্লগের জন্য অনেক ভালো কপিরাইট মুক্ত ছবি পাবেন।

 এছাড়াও ছবিতে Alt টেক্সট দিতে ভুলবেন না। সম্ভব হলে শিরোনামও দেওয়া যেতে পারে।

ভাষা চেক করুন

আপনার ব্লগ তৈরি করার সময়, সবসময় মনে রাখবেন যে আপনি যে ভাষায় ব্লগ তৈরি করছেন, সেই ভাষাটি Google AdSense সমর্থন করে কি না। আপনি যদি ব্লগ তৈরি করার আগে এই জিনিসটি দেখেন তবে পরবর্তীতে অ্যাডসেন্স এপ্লাই করতে আপনার কোন সমস্যা হবে না।

যদিও এই মুহূর্তে, গুগল বেশীরভাগ ভাষায় সমর্থন দিয়ে থাকে, কিন্তু তারপরও একবার পরীক্ষা করে দেখুন আপনার ভাষা Google AdSense সমর্থন করে কি না, তারপর সেই ভাষায় আপনার ব্লগ তৈরি করুন।

আপনি যদি বাংলায় একটি ব্লগ তৈরি করেন, তাহলে আমরা বলব বাংলা ভাষাতে কোন সমস্যা নেই ।

এখান থেকে আপনি দেখতে পারবেন গুগল অ্যাডসেন্স কোন কোন ভাষা সমর্থন করে গুগল অ্যাডসেন্স সমর্থিত ভাষা

ব্লগ ডিজাইন

এটি একটি নতুন ব্লগের জন্য প্রয়োজনীয়, কারণ নতুন ব্লগাররা তাদের ব্লগকে সুন্দরভাবে সাজাতে চান যাতে সেই ব্লগটি খুব সুন্দর দেখায়। কিন্তু আমরা আপনাদের সাজেস্ট করব, অ্যাডসেন্স আবেদন করার আগে, এটির ডিজাইনের দিকে খুব বেশি মনোযোগ না দিয়ে আপনার ব্লগের জন্য একটি খুব সাধারণ ডিজাইন রাখুন।

আপনি যদি গুগল ব্লগারে একটি ব্লগ তৈরি করে থাকেন , তাহলে ব্লগারে বিদ্যমান থিমটি ব্যবহার করুন। অ্যাডসেন্স অনুমোদন পাওয়ার পরে আপনার পছন্দ মত থিম বা ডিজাইন পরিবর্তন করে নিন। অ্যাডসেন্স অনুমোদনের আগে কাস্টম থিম ব্যবহার না করলে ভালো হয়।

অন্য কোন এড নেটওয়ার্ক ব্যবহার করবেন না

গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করার আগে নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনার ব্লগে অন্য কোন এড নেটওয়ার্ক এড করা নেই। যদি এড করা থেকেও থাকে তাহলে তা রিমুভ করে তারপর অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করুন। যদি অন্য এড যুক্ত থাকা অবস্থায় অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করেন তাহলে গুগল অ্যাডসেন্স এপ্রুভাল পাবেন না।

ইউনিক ভিজিটর

যদি আপনার সাইটে নিয়মিত অরগ্যানিক এবং ইউনিক ভিজিটর আসে তাহলে আপনার অ্যাডসেন্স পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক গুণ বেড়ে যাবে। তাই আপনার সাইটে অল্প পরিমাণে হলেও ইউনিক ভিজিটর আনার চেষ্টা করুন। সাইটটিকে ভালোভাবে এসইও করে ভিজিটর সংখ্যা বাড়ান, যদি আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগ ব্যবসা সম্পর্কিত হয়, তাহলে ভিজিটর পাওয়া অনেক বেশী সহজ। একটি ইউজার ফ্রেন্ডলি এবং সাধারণ ওয়েবসাইট তৈরি করুন। সাইটে পেইড ট্রাফিক নেওয়া থেকে সম্পূর্ণ রূপে বিরত থাকুন

নোটঃ গুগল অ্যাডসেন্স আবেদন করার পর এপ্রুভ ইমেইল না আসা পর্যন্ত আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটে কন্টেন্ট পাবলিশ করা ছাড়া অন্য কোন ধরনের কাস্টমাইজেশন করবেন না।

গুরুত্বপূর্ণ বিষয়:

গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে কিছু জিনিস জানা আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

  • আপনি যদি এর আগে Google AdSense অ্যাকাউন্টের জন্য আবেদন করে থাকেন, তাহলে সেই Gmail অ্যাকাউন্টটি আর ব্যবহার করবেন না।
  • আপনি যদি একটি নতুন ইমেল অ্যাকাউন্ট তৈরি করেন, তাহলে মনে রাখবেন যে কেউ যদি ইমেলের মাধ্যমে Google AdSense-এর জন্য আবেদন করে থাকে, তাহলে সেই ইমেলের সাথে কোনোভাবেই সংযোগ করবেন না।
  • আপনার যদি ইতিমধ্যে একটি Google AdSense অ্যাকাউন্ট থাকে বা বন্ধ হয়ে থাকে, তাহলে নতুন অ্যাকাউন্টের জন্য আপনি যে ইমেল, ফোন নম্বর, ঠিকানা ইত্যাদি ব্যবহার করছেন তা অবশ্যই একেবারে নতুন হতে হবে। (যাদের ইতিমধ্যে একটি অ্যাকাউন্ট আছে তাদের জন্য আমাদের পরামর্শ হল যে তারা দ্বিতীয় অ্যাকাউন্টের জন্য আবেদন করবেন না, এমন পরিস্থিতিতে, আপনার প্রথম অ্যাকাউন্টে বা উভয় অ্যাকাউন্টই বন্ধ হয়ে যেতে পারে)
  • আবেদন করার সময় সঠিক ঠিকানা দিতে হবে, যে পোস্টে কোড আছে সেই ঠিকানায় Google AdSense থেকে একটি চিঠি আসে। এই কোডটি যাচাই করার পরেই আপনার অ্যাকাউন্টটি সত্যিকারের সক্রিয় হয়ে যাবে।
  • কিছু লোক অনলাইনে AdSense অ্যাকাউন্ট বিক্রি করে। এই AdSense অ্যাকাউন্টগুলি কখনই কিনবেন না। এটি কয়েক দিনের জন্য চলবে, তারপরে এটি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ হবে এবং আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগকে কালো তালিকাভুক্ত করা হবে।
  • সর্বদা Google AdSense এর নীতি অনুযায়ী কাজ করুন, অন্যথায় আপনার অ্যাকাউন্ট চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে।
  • আপনার ব্লগে প্রদর্শিত বিজ্ঞাপনগুলিতে কখনই নিজে নিজে ক্লিক করবেন না বা অন্য কাউকে এটিতে ক্লিক করতে দেবেন না, এটিও গুগলের নীতির বিরুদ্ধে। যার কারণে আপনার অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

গুগল অ্যাডসেন্স সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন ও উত্তর

প্রশ্নঃ ব্লগ শুরু করার সাথে সাথেই কি অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করতে হবে?

উত্তরঃ না, মোটেও না, আপনি যদি সঠিক উপায়ে একটি অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট চান, তাহলে অন্তত 30 দিন পর আবেদন করতে হবে।

প্রশ্নঃ অ্যাডসেন্স প্রয়োগ করার জন্য ব্লগে কয়টি পোস্ট থাকতে হবে?

উত্তরঃ যদিও এর জন্য কোন নির্দিষ্ট সংখ্যা নেই, তবে আপনি যদি ৮০০-১০০০ শব্দের পোস্ট লেখেন তবে কমপক্ষে 15টি পোস্ট লিখে তারপর আবেদন করুন। বেশি শব্দের পোস্ট লিখলে কম পোস্টেও এই কাজ করা যায়।

প্রশ্নঃ আমি কি একাধিক অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারি?

উত্তরঃ একেবারেই না, Google AdSense নীতি অনুযায়ী, আপনি একাধিক Google AdSense অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে পারবেন না। যাইহোক, অনেকে অন্য উপায়ে দুই তিনটি অ্যাকাউন্ট মেইনটেইন করেন, যদি সেগুলি সঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয় তবে এটি একটি ভাল কথা, অন্যথায় এই অ্যাকাউন্টটি যে কোনও সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

প্রশ্নঃ আমি কি ভিপিএন ব্যবহার করে একটি বিজ্ঞাপনে ক্লিক করতে পারি?

উত্তরঃ না, গুগলকে কখনই বোকা মনে করবেন না। গুগল আপনাকে ভালোভাবে জানার জন্য যথেষ্ট স্মার্ট। ভিপিএন ব্যবহার করে কখনোই নিজের সাইটের এড এ ক্লিক করবেন না।

শেষ কথা

গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে কারণ ধৈর্য ছাড়া আপনি ব্লগিংয়ের কাজ করতে পারবেন না। অনেকেই ব্লগিংকে দ্রুত অর্থ উপার্জনের উপায় বলে মনে করে, যা মোটেও ঠিক নয়। আপনাকে নিয়মিত কাজ করতে হবে, আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে, তবেই আপনি সফলতা পেতে পারেন।

শুধু একটি Google AdSense অ্যাকাউন্ট পেলে কিছুই হয় না, আপনাকে কাজ করতে হবে। আপনি যদি ইতিমধ্যে কাজটি করে থাকেন তবে আপনি যেকোন সময় গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারেন।

তাই ধৈর্য ধরুন এবং উপরে উল্লিখিত পদ্ধতিগুলি সঠিকভাবে অনুসরণ করুন এবং আপনার Google AdSense অ্যাকাউন্টের জন্য আবেদন করুন।

আমরা আশা করছি উপরের বলা ধাপগুলো সঠিকভাবে অনুসরন করলে আপনারা খুব দ্রুত এডসেন্স এপ্রুভাল পেয়ে যাবেন।

আর্টিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরনের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান।

ধন্যবাদ ।

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment