প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হলে কী খাবেন

প্রস্রাব করার সময় জ্বালাপোড়া খুবই সাধারণ ব্যাপার। যাইহোক, কখনও কখনও এটি UTI ( মূত্রনালীর সংক্রমণ ) এর কারণে হতে পারে । এমন পরিস্থিতিতে সঠিক চিকিৎসার পাশাপাশি খাদ্যাভ্যাসেরও বিশেষ যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। এমতাবস্থায় আজকের এই আর্টিকেলে আমরা প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হলে কী খাবেন সেই সম্পর্কিত তথ্য আপনাদের সাথে শেয়ার করার চেস্টা করব। এছাড়া প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া কমাতে খাবারে কী কী খাওয়া উচিত নয় সে সম্পর্কেও তথ্য পাবেন। তাই প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হলে কী খাবেন এবং কী খাবেন না তা জানতে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন।

প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হলে কী খাবেন – মূত্রনালীর সংক্রমণের জন্য খাবার

UTI-এর চিকিৎসার পাশাপাশি দ্রুত সুস্থতার জন্য খাদ্যাভ্যাসের যত্ন নেওয়াও প্রয়োজন। এমন পরিস্থিতিতে প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হলে কী খাবেন সে সম্পর্কে আমরা এখানে তথ্য দিচ্ছি। প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া রোধ করার জন্য কিছু খাবার নিম্নরূপ:

ক্র্যানবেরি

মূত্রনালীর ইনফেকশন, প্রস্রাবে জ্বালাপোড়ার অন্যতম কারণ ( তথ্যসুত্র )। এমন পরিস্থিতিতে মূত্রনালীর সংক্রমণ রোধ করতে বা এর উপসর্গ কমাতে ক্র্যানবেরি অর্থাৎ গুজবেরি উপকারী হতে পারে। NCBI (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত গবেষণা নিশ্চিত করে যে, ক্র্যানবেরি বা ক্র্যানবেরি জুস খাওয়া মূত্রনালীর সংক্রমণ থেকে রক্ষা করার পাশা পাশি, এর লক্ষণগুলি কমাতেও সাহায্য করতে পারে ( তথ্যসুত্র )।

এছাড়াও অন্য একটি গবেষণার মাধ্যমে জানা যায় যে, ক্র্যানবেরি জুসে উপস্থিত প্রোঅ্যান্ট্রোসায়ানিডিন যৌগটি, মূত্রনালীর সংক্রমণ ঘটায় এমন ব্যাকটেরিয়াগুলি ধবংস করতে কার্যকর ভুমিকা পালন করে । সেক্ষেত্রে প্রস্রাবের জ্বালাপোড়ার সমস্যা বা মূত্রনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধে ক্র্যানবেরি বা ক্র্যানবেরি জুস খাওয়া উপকারী। যাইহোক, এই বিষয়ে একবারে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা ভাল, কারণ ক্র্যানবেরি কিছু ওষুধের সাথেও প্রতিক্রিয়া করতে পারে।

আরও পড়ুনঃ অ্যান্টিবায়োটিক কি? অ্যান্টিবায়োটিকের আদ্যোপান্ত

প্রোবায়োটিক সমৃদ্ধ খাবার

প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া অনুভূত হলে দই খেলে উপকার পাওয়া যায় । একটি গবেষণা অনুসারে, দই প্রোবায়োটিক খাবারের শ্রেণীভুক্ত, যা মূত্রনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধে সহায়ক হতে পারে ( তথ্যসুত্র )। এই ক্ষেত্রে, প্রোবায়োটিক খাবারগুলি মূত্রনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধে কার্যকর হতে পারে। 

প্রচুর পানি পান করুন

পানি খাওয়া প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া থেকে মুক্তি দিতে ভাল কাজ করে। NCBI-এর একটি গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে UTI-এর সমস্যায় বেশি বেশি পানি পান করা উচিত ( তথ্যসুত্র )। এমতাবস্থায় বলা যায় যে প্রস্রাবে জ্বালাপোড়ার ক্ষেত্রে প্রচুর পরিমাণ পানি পান করা উচিত।

ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার

ভিটামিন সি যুক্ত খাবার প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া সমস্যা সমাধানে কার্যকরী ভুমিকা পালন করে। প্রকৃতপক্ষে, জৈবিক এজেন্টগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করে সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভিটামিন সি ভাল কাজ করে। এ সংক্রান্ত তথ্যে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে যে প্রতি ঘণ্টায় দুই গ্রাম ভিটামিন সি খেলে প্রস্রাবে জ্বালাপোড়ার সমস্যায় উপকার পাওয়া যায় ( তথ্যসুত্র )।

ভিটামিন সি যুক্ত ব্লুবেরির জুস খেলে শরীর থেকে ব্যাকটেরিয়া দূর করা যায়। এর সাথে, এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে পারে এবং ইউটিআই সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা করতে পারে। এই ভিত্তিতে, এটা বিশ্বাস করা যেতে পারে যে ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ খাবার যেমন লেবু, কমলা, কিউই, ব্রোকলি খাওয়া মূত্রনালীর সংক্রমণ বা প্রস্রাবে জ্বালাপোড়ার মতো উপসর্গের ক্ষেত্রে উপকারী হতে পারে।

রসুন

প্রস্রাবে জ্বালাপোড়ার সমস্যায় রসুনকে খুবই উপকারী বলে মনে করা যেতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, রসুনে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্যের পাশাপাশি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যও পাওয়া যায়। শুধু তাই নয়, এতে সালফার যৌগ রয়েছে, যা শরীরকে ডিটক্সিফাই করতে সহায়ক হতে পারে। এই বৈশিষ্ট্যগুলি প্রস্রাব সংক্রমণের লক্ষণগুলি যেমন ঘন ঘন প্রস্রাব, ব্যথা বা জ্বালাপোড়া থেকে মুক্তি দিতে পারে ( তথ্যসুত্র )।

টাটকা ফল এবং সবজি

তাজা ফল ও শাকসবজি খেলে প্রস্রাবে জ্বালাপোড়ার সমস্যা কমে যায়। একটি গবেষণায়, এটি স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে যে যারা সবুজ শাক সবজি এবং তাজা ফল খান তাদের প্রস্রাব সংক্রমণের লক্ষণগুলি কম দেখা যায়। এমন পরিস্থিতিতে, এটা বলা যেতে পারে যে তাজা ফল এবং শাকসবজি খাওয়া মূত্রনালীর সমস্যা বা মূত্রনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধে কার্যকর হতে পারে ( তথ্যসুত্র )।

প্রবন্ধে প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া কমাতে কী খাওয়া উচিত তা জানার পর এখন আমরা জেনে নিই প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হলে কী খাওয়া উচিত নয়।

আরও পড়ুনঃ জন্ডিস কী? জন্ডিসের কারণ, লক্ষণ এবং ঘরোয়া প্রতিকার

প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হলে কী খাওয়া উচিত নয়

প্রস্রাবে জ্বালাপোড়ার সমস্যায় নিচে উল্লেখিত জিনিসগুলো এড়িয়ে চলতে হবে। এর মধ্যে কয়েকটি নিম্নরূপ :

  • ক্যাফিনযুক্ত পানীয়
  • কার্বনেটেড পানীয়
  • মিষ্টি পানীয়
  • মসলাযুক্ত খাবার খাবেন না।
  • আমিষ জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলুন।

শেষ কথা

এই প্রবন্ধের মাধ্যমে আমরা প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হলে কী খাবেন সে সম্পর্কে তথ্য জানানোর চেষ্টা করেছি। এখানে উল্লেখিত খাবার খাওয়ার আগে একবার চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া ভালো। এর পাশাপাশি, আপনি প্রস্রাবে জ্বালাপোড়ার জন্য ডায়েট সম্পর্কিত ডায়েট চার্ট সম্পর্কেও ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন। এছাড়াও, ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো ওষুধ ব্যবহার করবেন না। সেই সঙ্গে প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া এড়াতে বিশেষ করে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার দিকে খেয়াল রাখুন। মনে রাখবেন, সতর্কতাই এই সমস্যা এড়াতে সবচেয়ে সহজ এবং ভালো উপায়।

আর্টিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরনের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান।

ধন্যবাদ

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment