মাথাব্যথা কমানোর প্রাকৃতিক উপায়

রোগ হিসেবে মাথাব্যথাকে আমরা খুব একটা পাত্তা না দিলেও, এটি কিন্তু আমাদের দৈনন্দিন জীবনে বেশ বিরক্তিকর একটি বিষয়। ছোট থেকে বড় প্রায় সব বয়সের মানুষই বিভিন্ন কারণে অনেক সময় মাথাব্যথায় আক্রান্ত হয়ে পড়ে। অনেকেই তো আবার মাইগ্রেনের সমস্যায় ভুগে থাকেন । সাধারণত পর্যাপ্ত ঘুমের অভাব, ক্লান্তি, দুশ্চিন্তা, মাইগ্রেন ইত্যাদি বিভিন্ন কারণে হয়ে থাকে মাথাব্যথা। এ ধরনের মাথা ব্যথা হঠাৎ করেই শুরু হয়ে যায় এবং ৩-৪ দিন পর্যন্ত টানা এই ব্যথা থাকতে পারে। মাথাব্যথা কমানোর জন্য অনেকেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে থাকেন, অনেকে আবার বিভিন্ন প্রকার ব্যথানাশক ওষুধ গ্রহন করে থাকেন। কিন্তু আপনি কি জানেন ? খুব সহজে কিছু প্রাকৃতিক উপায় অবলম্বন করে এই মাথাব্যথার সমস্যা থেকে অনেকাংশে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। চলুন জেনে নেয়া যাক মাথাব্যথা কমানোর প্রাকৃতিক উপায় গুলি সম্পর্কে ।

আদা ও আদা চা

মাথাব্যথা উপশমে বা কমাতে আদার কোন জুড়ি নেই। কারণ আদায় রয়েছে ‘Prostaglandin সিনথেসিস’ যা এক প্রকার অ্যাসপিরিন । যা ব্যথানাশক ওষুধ তৈরিতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তাই মাথাব্যথা আরম্ভ হলে সামান্য আদা ছিলে মুখে নিয়ে চিবানো শুরু করুন। এতে করে আপনার মাথাব্যথা খুব দ্রুত কমে যাবে। এর সঙ্গে এক কাপ পানি ভালোভাবে ফুটিয়ে নিয়ে তাতে সামান্য আদা ছেঁচে নিয়ে ফুটিয়ে নিন। এই মিশ্রনের সাথে সামান্য মধু দিয়ে পান করতে পারেন আদা চা। এতেও মাথাব্যথা দ্রুত কমে যাবে।

পানি পান করুন

অনেক সময় একচুমুক পানিও আপনার মাথা ব্যথাকে কিছু সময়ের মধ্যে সারাতে সাহায্য করে। যখন আমাদের শরীর ধীরে ধীরে আর্দ্র হতে থাকে তখন ব্যথা ধীরে ধীরে কমে যেতে থাকে।

লেবু

ঝটপট মাথাব্যথা ভালো করে তুলতে লেবুর কোন তুলনা হয় না। ব্যথা শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আপনি যদি গরম পানির সাথে সামান্য পরিমাণ লেবু মিশিয়ে খান তাহলে মাথাব্যথা দ্রুত সেরে যাবে। আবার আপনি যদি লেবুর পেস্ট তৈরি করে নিয়ে কপালে লাগান তাহলেও মাথা ব্যথা অনেকখানি কমে যাবে আর সেই সাথে এক কাপ লেবু চা পান করে নিতে পারেন ।

লবঙ্গ

কিছু লবঙ্গ তাওয়ার উপর ভালোভাবে গরম করে নিন। গরম লবঙ্গ একটি রুমালের মধ্যে নিয়ে এক মিনিট ধরে ঘ্রাণ নিন এবং দেখুন কিছুক্ষনের মধ্যেই মাথা ব্যথা অনেকটা কমে গেছে। 

মিষ্টিকুমড়ার বিচি খান

মাথাব্যথার সমস্যা থেকে খুব দ্রুত মুক্তি পাওয়ার আরও একটি প্রাকৃতিক উপদান হল মিষ্টি কুমড়ার বিচি। কারণ মিষ্টি কুমড়ার বীজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম সালফেট, যা আমাদের মাথাব্যথা উপশমে অনেক বেশী কার্যকরী।

কাঠবাদাম খাওয়ার অভ্যাস রাখুন

অনেক সময় আবহাওয়া পরিবর্তন অথবা ধুলোবালির কারণে মাথাব্যথা আরম্ভ হয়, আবার অনেক সময় প্রচণ্ড মানসিক চাপের কারণেও মাথা ব্যথা শুরু হয়ে থাকে। এই ধরনের ব্যথা দূর করার জন্য একমুঠো কাঠবাদাম ভালভাবে চিবিয়ে খেয়ে নিন। কাঠবাদামে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ‘স্যালিসিন’ যা ম্যথাব্যথা নিরসনে খুব কার্যকারী এবং দ্রুত মাথাব্যথা নিরাময় করে।

পান পাতা

পান পাতার মধ্যে রয়েছে প্রাকৃতিকভাবে মাথা ঠান্ডাকারী উপাদান, যা মুহূর্তেই মাথা ব্যথা কমাতে কার্যকারী ভুমিকা পালন করে। মাথাব্যথা দূর করতে ঘরোয়া চিকিৎসা হিসেবে, তাজা দেখে কয়েকটি পান পাতা নিয়ে মসৃণ করে ছেঁচে কপালে লাগিয়ে দিন। পরবর্তী আধা ঘণ্টার মধ্যে এটি আপনার মাথা ব্যথাকে অনেকটাই কমিয়ে দেবে।

আইসব্যাগ

বাজারে নানা প্রকারের অনেক আইসব্যাগ কিনতে পাওয়া যায়। একটি আইসব্যাগে বরফ ভরে নিয়ে তা মাথার উপরিভাগে অর্থাৎ ঠিক মাথার তালুতে কিছুক্ষণ ধরে রাখুন। দেখবেন খুব দ্রুত মাথাব্যথা উপশম হচ্ছে। তবে যাদের যখন তখন ঠাণ্ডা লাগার সমস্যা আছে, দয়ে করে তারা এ পদ্ধতি অনুসরন করবেন না।

লবণযুক্ত আপেল

ব্যথা যদি অতিরিক্ত বেশি হয় সেক্ষেত্রে এই ঘরোয়া পদ্ধতিটি ট্রাই করে দেখতে পারেন। এক টুকরো আপেলের সাথে একটু লবণ ছিটিয়ে চাবাতে পারেন। এটি আপনার মাথাকে দ্রুত ব্যথা মুক্ত করতে সহযোগিতা করবে। 

পেপারমিন্ট 

মাথাব্যথা কে ভালো করার আরোও একটি কার্যকরী উপায় হলো কপালে ভালোভাবে পেপারমিন্ট মালিশ করা, সেই সাথে ঘাড়েও সামান্য পেপারমিণ্ট ভালো করে মালিশ করা। এরকমটা করেই দেখুন, মাথাব্যথা অনেকটা কমে যাবে।

পর্যাপ্ত ঘুম

একজন প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের প্রতিদিন গড়ে ছয় থেকে আট ঘণ্টা ঘুমের প্রয়োজন। যদি কোন কারনে ঘুমের সমস্যা হয় অথবা পর্যাপ্ত ঘুম না হয় তখন মাথা ব্যথা শুরু হতে পারে । তাই প্রতিদিন নিয়ম করে কমপক্ষে ৬-৮ ঘন্টা ঘুমানোর চেষ্টা করুন এতে করে আপনার মাথা ব্যথা নিয়ন্ত্রনে থাকবে ।

পছন্দের গান শুনুন ও বিশ্রাম নিন

হালকা সাউন্ডের গান মস্তিষ্ককে শান্ত করে মানসিক চাপ কমাতে সহযোগিতা করে। তাছাড়াও চোখ বন্ধ করে ভালো কোনো পুড়নো স্মৃতি মনে করলেও বিসন্নতা দূর হয় যা ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।

মনোযোগ দিয়ে গান শুনুন

মনকে ভালো করার সাথে সাথে মাথাব্যথা নিরাময়ে সব চেয়ে ভালো কাজ করে গান শোনা। ‘জার্নাল অফ পেইন’ এর এক গবেষণাপত্রে প্রকাশ হয় যে গান শোনা, প্রায় ১৭% মাথাব্যথা কমিয়ে দিতে সক্ষম। কারণ গান মনোযোগ দিয়ে শ্রবন করার সময় আমাদের মনোযোগ মাথাব্যথা থেকে সরে যায়, যার ফলে আমারা অনেক সময় মাথা ব্যথার কথা ভুলে যাই। এতে করেই ভালো হয়ে যায় মাথাব্যথা।

উপরের পদ্ধতি গুলো অনুসরন করে কোন রকম মেডিসিন ছাড়া, আপনিও মাথা ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। কিন্তু আপনার মাথা ব্যথার সমস্যা যদি দীর্ঘমেয়াদী হয় তাহলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিন ।

বিডিটেকটিউনার

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment