সাইনোসাইটিস কি? সাইনোসাইটিসের কারণ, লক্ষণ, ঘরোয়া প্রতিকার

আবহাওয়ার পরিবর্তন এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হওয়ার কারণে অনেক মানুষ মাঝে মাঝেই ঠাণ্ডা এবং ঠান্ডার মতো সমস্যায় ভোগেন।। এই সমস্যাটিকে সাধারণ বলে মনে করা হয়, যা কিছুদিনের মধ্যে ঠিক হয়ে যায়, তবে সর্দি-কাশির মত সাধারণ রোগ কখনও কখনও সাইনাস বা সাইনোসাইটিসে রূপ নেয়। আজকের আর্টিকেলে আমরা আপনাদের সাথে সাইনোসাইটিস কি এবং সাইনোসাইটিসের কারণ, লক্ষণ, ঘরোয়া প্রতিকার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করব।

সাইনোসাইটিস কি – সাইনাস কি

সাইনাস হল আমাদের শরীরে বিদ্যমান একটি ছোট গহ্বর। আরও সহজ ভাবে বলতে গেলে সাইনাস হল আমাদের নাকের দুপাশে হাড়ের ভিতরের একটি খালি জায়গা। এটি চোখের মাঝে, কপালে, গালে এবং নাকের মধ্যে পাওয়া যায়।

  • চোখের মাঝখানে থাকে ইথময়েড সাইনাস । 
  • স্ফেনয়েড সাইনাস মস্তিষ্কের পিছনে থাকে। এটি মস্তিষ্কের কেন্দ্রে অবস্থিত এবং উভয় পক্ষের সংলগ্ন।
  • মুখের হাড়ের মধ্যে যে সাইনাস থাকে তাকে ম্যাক্সিলারি সাইনাস বলে।
  • কপালে থাকে সামনের সাইনাস। 

আমাদের শরীরে থাকা সাইনাসে ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাল বা ছত্রাকের সংক্রমণ হলে সেগুলি ফুলে যায়, আর তখন একে বলে সাইনোসাইটিস। সাইনোসাইটিসের কারণে মাথা ব্যথা, কপালে ব্যথা, মুখে ব্যথা, নাক দিয়ে পানি পড়া, নাক বন্ধ হওয়ার মতো অনেক ধরনের সমস্যা দেখা যায়। ব্যথার ধরন এবং অবস্থানের উপর ভিত্তি করে সাইনোসাইটিসের ধরণ নির্ধারণ করা হয়। অনেক সময় সাইনোসাইটিস বিশাল আকার ধারণ করে, তখন যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের কাছ থেকে চিকিৎসা নিতে হয়।

সাইনাস বা সাইনোসাইটিস এমন এক ধরনের সমস্যা যার কারণে মানুষের শ্বাসকষ্ট এবং সর্দি ইত্যাদি হতে পারে। নাক আমাদের শরীরের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ এবং শ্বাস-প্রশ্বাসের প্রক্রিয়া বজায় রাখার জন্য নাককে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়। নাকের ভিতরে যে বায়ু থলি ঘিরে থাকে তাকে সাইনাস বলে। এই থলির মধ্য দিয়ে শ্বাসের আকারে বাতাস আপনার ফুসফুসে প্রবেশ করে। সাইনাসের কাজ হল শরীরে দূষিত বাতাসের প্রবেশ রোধ করা এবং শ্লেষ্মা অপসারণ করা। যখন এই থলিতে কোনো বাধা, সমস্যা বা সংক্রমণ দেখা দেয়, তখন এই অবস্থাকে সাইনাস বা সাইনোসাইটিস বলে।

সাইনোসাইটিস কত প্রকার – সাইনাস কত প্রকার

সাইনোসাইটিস প্রধানত চার প্রকার-

অ্যাকিউট সাইনাস

সাইনোসাইটিসের সমস্যা যখন তিন সপ্তাহের বেশি দিন পর্যন্ত স্থায়ী হয় তখন একে অ্যাকিউট সাইনোসাইটিস বলে। যদি অ্যাকিউট সাইনোসাইটিস ৮ সপ্তাহ বা তার বেশি সময় হয়ে যায়, তাহলে একে ক্রনিক সাইনোসাইটিস বলে। সাধারণভাবে, অ্যাকিউট সাইনোসাইটিসের সংক্রমণ ৩০ দিনের মধ্যে সেরে যায়।

সাব-একিউট সাইনাস

এই ধরনের সাইনাসের প্রভাব সাধারণত এক মাসের বেশি সময় ধরে থাকে। সাব অ্যাকিউট সাইনোসাইটিস সংক্রমণ এক মাস থেকে তিন মাস পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। এই ধরনের সাইনাসের ক্ষেত্রে সংক্রমণ তিন মাসের বেশি স্থায়ী হয় না। যদি সংক্রমণ তিন মাসের বেশি স্থায়ী হয় তবে এটি একটি ক্রনিক সাইনাস হিসাবে বিবেচিত হয়।

Chronic সাইনাস

দীর্ঘস্থায়ী বা ক্রনিক সাইনাস সংক্রমণ দীর্ঘ সময় ধরে হয়ে থাকে। এর সময়কাল সাধারনত তিন মাসের বেশি হয়ে থাকে। ক্রনিক সাইনোসাইটিস ২ ভাগে বিভক্ত-

  • অ্যালার্জি ছত্রাকজনিত সাইনাস সংক্রমণ
  • নাকের ছোট পলিপ সহ সাইনোসাইটিস। 

Recurrent সাইনোসাইটিস

যখন কোন ব্যক্তির ঘন ঘন সাইনাস সংক্রমণ হয়, তখন তাকে Recurrent সাইনোসাইটিস বলে। এই ধরনের সংক্রমণ বছরে কয়েকবার হতে পারে। একটি অ্যাকিউট সাইনাস সংক্রমণ উপেক্ষা করলে তা সাব-একিউট সাইনাস সংক্রমণের দিকে পরিচালিত হতে পারে। তবে চিকিৎসা করতে দেরি করলে তা হয়ে যায় ক্রনিক সাইনোসাইটিস। 

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, ভাইরাসের কারণে সাইনাসের সংক্রমণ ঘটে থাকে। ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাকের সংক্রমণও সাইনোসাইটিস সৃষ্টি করে থাকে, তবে ভাইরাল সংক্রমণের তুলনায় তা অনেক কম দেখা যায়।

আরও পড়ুনঃ টাইফয়েড কী? টাইফয়েড জ্বর হলে করণীয় কি?

সাইনোসাইটিসের লক্ষণ – সাইনাসের লক্ষণ

অনেকের মধ্যেই একটি প্রশ্ন থাকে সাইনোসাইটিস এর লক্ষণ কি? সাইনাসের সংক্রমণে নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি দেখা যায়-

  • নাক বন্ধ হয়ে যায়। কখনো কখনো নাক থেকে গলায় শ্লেষ্মা পড়ে। 
  • নাক আটকে যায়, এটি শ্বাস-প্রশ্বাসের প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করে। এ সময় আমরা মুখ দিয়ে শ্বাস নিতে বাধ্য হই।
  • গন্ধ পাওয়ার ক্ষমতা কমে যায়। 
  • চোখে ও ঘাড়ে ব্যথা। 
  • গাল, চোখ এবং কপাল ফুলে যেতে পারে
  • মাথায় ভারি ভাব অনুভূত হয়
  • ক্ষুধা কমে যায় বা খেতে ভালো লাগে না

সাইনোসাইটিসের আরও কিছু লক্ষণ

  • রাতে ঘুমানোর পর বা সন্ধ্যার পর কাশি বাড়তে থাকে
  • বমি বমি ভাব, বমিও হতে পারে। 
  • ক্লান্তি, শরীরের ওজন বৃদ্ধি, উত্তেজনা এবং বিরক্তি
  • দাঁত বা চোয়ালের ব্যথা
  • গলা ব্যথা
  • নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ
  • কানে তীব্র ব্যথা
  • শ্বাসকষ্ট অনুভব করা

সাইনোসাইটিসের কারণ

সাইনাস বা ঠান্ডার কারণে সাইনোসাইটিস শুরু হয়। এতে নাকের মধ্যে উপস্থিত তরল সংক্রমিত হয়। সাইনোসাইটিসের কারণগুলি হতে পারে:

ভাইরাল কারনঃ সাইনোসাইটিসের সমস্যা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট হয়। বয়স্কদের মধ্যে ভাইরাল সাইনোসাইটিস হওয়ার সম্ভাবনা বেশি দেখা যায়।

ছত্রাকঃ বাতাসে থাকা ছত্রাক সাইনাসের সংস্পর্শে এলে অ্যালার্জির সমস্যা তৈরি হয়। সাইনাসে ছত্রাকের সংক্রমণ থেকেও সাইনোসাইটিস হতে পারে।  

দূষণঃ বায়ু দুষণের কারণে সাইনাস হয়ে থাকে। দূষণে উপস্থিত বিপজ্জনক রাসায়নিক আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে ক্ষতিগ্রস্ত করে।  এর ফলে শ্লেষ্মা বাড়ে এবং সেই সাথে সাইনোসাইটিসের ঝুঁকিও বেড়ে যায়। 

ব্যাকটেরিয়াঃ ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের কারণেও সাইনোসাইটিস হতে পারে।

সিস্টিক ফাইব্রোসিসঃ সিস্টিক ফাইব্রোসিস কোষগুলিকে প্রভাবিত করে, যা শ্লেষ্মা, পাচক এনজাইম এবং ঘাম তৈরি করে। এতে সাইনোসাইটিস হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

অ্যাসিড রিফ্লাক্স ডিজিজঃ এটি হজম সংক্রান্ত একটি সমস্যা যাতে ‘পিত্ত বা পাকস্থলীর অ্যাসিড’ পেটে জ্বালা করে। পেটে প্রবল জ্বালাপোড়া হয় এবং অ্যাসিডিটি হতে পারে। একে জিইআরডি (গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্স ডিজিজ ) ও বলা হয়। অ্যাসিডের প্রভাব পেট পর্যন্ত যায় যার ফলে বুকের নিচের অংশেও জ্বালাপোড়া হয়। অ্যাসিডিটি ফ্লাক্স ডিজিজ সাইনাস সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ায়।

 আরও কিছু কারণে সাইনোসাইটিসের সমস্যা তৈরি হতে পারে –

  • আমরা যে টিউব দিয়ে শ্বাস নিই তা সংক্রমিত হলে সাইনোসাইটিসের সমস্যা হতে পারে।
  • নাকে জীবাণু তৈরি হলে বা নাক ফুলে গেলে সাইনোসাইটিস হতে পারে।
  • হাঁপানি রোগীদের ক্রনিক সাইনাস সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি থাকে।
  • আপনার যদি ধুলো, ধোঁয়া, পশুর লোম ইত্যাদি থেকে অ্যালার্জি হয় তবে সেগুলো থেকে দূরত্ব বজায় রাখুন। অ্যালার্জি থাকা সত্ত্বেও যদি আপনি এই জিনিসগুলির সংস্পর্শে যান, তবে এগুলো থেকে সাইনাস সংক্রমণ হতে পারে।
  • সেপ্টাম আঁকাবাঁকা বা ক্ষতিগ্রস্থ হলে সাইনোসাইটিসের ঝুঁকি বেড়ে যায়। সেপ্টাম হল একটি হাড় যা নাককে দুই ভাগে বিভক্ত করে। এটা খুবই সংবেদনশীল। যদি কোনো কারণে হাড় ডানে বা বামে বেঁকে যায়, তাহলে সাইনাস সংক্রমণের আশঙ্কা থাকে।
  • দাঁতে কৃমি থাকলে বা দাঁতে ইনফেকশন হলে সাইনাস ইনফেকশন হতে পারে।
  • ধূমপানের ফলেও সাইনোসাইটিস হতে পারে। আপনার অ্যালার্জি থাকলে ধূমপান থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করুন।
  • বেশিক্ষণ পানিতে ভেজা থাকলে সর্দি ও ফ্লু হতে পারে। সাইনাসের সংক্রমণ সর্দি থেকেও হতে পারে । 

কীভাবে সাইনোসাইটিস পরীক্ষা করা হয়

সাইনাসের সংক্রমণ পরীক্ষা করার বিভিন্ন উপায় রয়েছে। চিকিৎসকরা উপসর্গের ভিত্তিতে বা মেশিনের মাধ্যমে শরীর পরীক্ষা করে সাইনাসের সংক্রমণ নির্ণয় করে থাকেন। 

সাইনাসের সংক্রমণ পরীক্ষা করার জন্য অনেক সময় ডাঃ এক্স-রে করার পরামর্শ দেন। কিন্তু অনেক সময় শুধু এক্স-রে করেই রোগের সঠিক নির্ণয় করা যায় না। অনেক সময় এমআরআই বা সিটি স্ক্যান করার প্রয়োজন হতে পারে।

এ ধরনের পরীক্ষা করার পর সাইনাস সংক্রমণের সম্পূর্ণ পরিস্থিতি জানা যায়। কিন্তু এই পরীক্ষাগুলি খুব ব্যয়বহুল এবং এগুলি ছোট শহরে করাও যায় না। এমন পরিস্থিতিতে প্রাথমিক ফলাফল দেখেই চিকিৎসকরা সাইনোসাইটিসের চিকিৎসা করে থাকেন।এর রোগ নির্ণয় পদ্ধতি নিম্নরূপ

  • যখন নাকে শ্লেষ্মা থাকে এবং নাকে ফুলে যায়। অনেক সময় নাক লাল হয়ে যায়।
  • নাক দিয়ে পুঁজ বের হওয়ার অবস্থা দেখে। যদি নাক দিয়ে পুঁজ বের হয়, তাহলে সাইনাস শনাক্ত করার জন্য এটাই সবচেয়ে ভালো উপসর্গ। 
  • চোখ ও গালে ফোলাভাব।
  • কপাল ও নাকে স্পর্শ করলে ব্যথা হয়।
  • খাওয়ার সময় চোয়ালে ব্যথা।

কি ধরনের সাইনোসাইটিস ঘটেছে, সেটি সনাক্ত করার জন্য, শ্লেষ্মা পরীক্ষা করা হয়ে থাকে। প্রথমিক চিকিৎসার পরও রোগ বাড়লে সিটি স্ক্যান ও এমআরআই করতে হতে পারে।

গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে সাইনাস পরীক্ষাঃ গর্ভবতী মহিলাদের যদি সাইনাস সংক্রমণ হয়, তবে তাদের চিকিৎসা শুরু করতে দেরি করা একদম উচিত নয়। গর্ভবতী মহিলাদের ক্ষেত্রে সাইনাস, আল্ট্রাসাউন্ড দ্বারা পরীক্ষা করা হয়। আল্ট্রাসাউন্ড পরীক্ষা সিটি স্ক্যান, এন্ডোস্কোপি এবং রাইনোস্কোপি পরীক্ষার মতো সঠিক ফলাফল দেখায় না। তবে এটি সাইনোসাইটিস নির্ণয় করতে পারে। 

বায়োপসিঃ বায়োপসিতে, আপনার শরীর থেকে টিস্যুর একটি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তারপর এই নমুনা পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়। নমুনায় ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি পর্যালোচনা করে সাইনাস সংক্রমণের বিষয় নিশ্চিত করা হয়। বায়োপসি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ছত্রাক সংক্রমণের ক্ষেত্রে করা হয়।

আরও পড়ুনঃ জন্ডিস কী? জন্ডিসের কারণ, লক্ষণ এবং ঘরোয়া প্রতিকার

সাইনোসাইটিস এর ঘরোয়া চিকিৎসা

কখনও কখনও সাইনোসাইটিস শুধুমাত্র ঘরোয়া প্রতিকার দিয়ে চিকিৎসা করা যেতে পারে। সাইনোসাইটিসের ঘরোয়া প্রতিকার নিচে দেওয়া হল –

আপেল ভিনেগার

আপেল ভিনেগার সাইনাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়ক। এক গ্লাস গরম পানিতে দুই চা চামচ আপেল সাইডার ভিনেগার মিশিয়ে পান করুন। এই প্রতিকারটি গলা এবং নাকের সাথে সম্পর্কিত লক্ষণগুলি থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করবে।

তিলের তেল

তিলের তেল হালকা গরম করে ২ থেকে ৩ ফোঁটা নাকের ছিদ্রে দিন। এতে নাকের ইনফেকশন দূর হবে এবং নাক বন্ধ হওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

টমেটো

সাইনাসের সংক্রমণ হলে ফোলা ও জ্বালাপোড়া হতে পারে। এক কাপ টমেটোর রসে তিন চা চামচ লেবুর রস ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এরপর মিশ্রণটি ভালো করে সিদ্ধ করে ঠান্ডা হলে পান করুন। এতে উপস্থিত ভিটামিন এ প্রদাহ দূর করবে। এটি শ্লেষ্মাজনিত কারণে নাক বন্ধ হওয়ার সমস্যা দূর করে। 

হলুদ

ফোলা ও ব্যথা কমাতে হলুদ ব্যবহার করতে পারেন। সাইনোসাইটিসের কারণ ব্যাকটেরিয়া হলে হলুদ খুব কার্যকরী ভুমিকা পালন করে। হলুদে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল গুণাবলী রয়েছে। তাই খাবারে হলুদ ব্যবহার করুন। এছাড়া চা ফুটানোর সময় এতে অল্প পরিমাণে হলুদ মেশান। এটি সাইনোসাইটিস দূর করতে সাহায্য করবে।

আদা

প্রদাহ এবং সংক্রমণ দূর করতে আদা ব্যবহার করুন। এক গ্লাস পানিতে আদা দিয়ে ভালো করে কিছুক্ষন ফুটিয়ে নিন। ঠান্ডা হলে দুই চা চামচ মধু মিশিয়ে পান করুন। সাইনাসের সংক্রমণ থেকে মুক্তি পেতে এই প্রতিকারটি এক সপ্তাহ নিয়মিত করুন।

রসুন

রসুন সহজেই সংক্রমণকারী জীবাণু মেরে ফেলতে পারে । এতে রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান যা ব্যথা কমাতেও সহায়ক। রাতে ঘুমানোর আগে দুই কোয়া রসুন হালকা ভেজে খেয়ে নিন। 

তুলসী পাতা

তুলসি উভয় ধরনের (ব্যাকটেরিয়াল এবং ছত্রাকের) সংক্রমণে উপকারী। এক গ্লাস পানিতে দশটি তুলসী পাতা ভালমত ফুটিয়ে নিন। মিশ্রণটি ঠাণ্ডা হওয়ার পর পান করুন। দুধের সাথে তুলসীর আয়ুর্বেদিক ক্যাপসুলও খেতে পারেন। প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে গরম দুধের সাথে একটি তুলসী ক্যাপসুল খান।

পেঁয়াজ

নাকে শ্লেষ্মা থাকলে পেঁয়াজ ব্যবহার করুন। পেঁয়াজ সাইনাসের সংক্রমণের জীবাণু ধ্বংস করতে সাহায্য করে। পেঁয়াজ ছোট ছোট করে কেটে পানিতে ফুটিয়ে নিন। পেঁয়াজের অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল গুণাবলী পানিতে দ্রবীভূত হয়। পানি ভালোভাবে ফুটে উঠার পর স্টিম করুন। বাষ্প নেওয়ার সময় তোয়ালে দিয়ে মাথা ঢেকে রাখুন।

মেথি

এক গ্লাস পানিতে দুই চামচ মেথি নিয়ে কিছুক্ষন ফুটিয়ে নিন। ফুটানোর পর নামিয়ে ঠাণ্ডা করে ফিল্টার করুন। সাইনাসের সংক্রমণ থেকে মুক্তি পেতে এই মিশ্রণটি খুব ভালো কাজ করে। যদি আপনি তেতো হওয়ার কারণে মিশ্রণটি পান করতে না পারেন, তবে এতে অল্প পরিমাণে মধু যোগ করে তারপর পান করুন ।

সাইনোসাইটিস চিকিৎসা

চিকিৎসকের পরামর্শ মত ওষুধ এবং ঘরোয়া প্রতিকার দিয়ে সাইনোসাইটিস নিরাময় করা যেতে পারে। প্রথমত, এগুলোর উপসর্গের চিকিৎসা করা হয় যা নিম্নরূপ-

  • গাল বা চোয়ালের ব্যথার চিকিৎসা
  • প্রদাহের চিকিৎসা
  • নাক বন্ধের সমস্যা থাকলে তার চিকিৎসা
  • নাকে ব্যথা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যথানাশক ওষুধ খান।

দীর্ঘস্থায়ী সাইনাস সংক্রমণ বা তীব্র সাইনাস সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহণ করা উচিত। আপনারা চাইলে সাইনোসাইটিসের জন্য ঘরোয়া প্রতিকারও চেষ্টা করতে পারেন। কিন্তু, যদি উপসর্গ না কমে এবং সমস্যা বাড়তেই থাকে, তাহলে একদম দেরী না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

সাইনোসাইটিস এর ঔষধ

তীব্র সাইনোসাইটিসের সমস্যা সর্বোচ্চ তিন বা চার সপ্তাহ পর্যন্ত স্থায়ী হয়। সাইনোসাইটিসের বেশিরভাগ রোগীই তাদের অভ্যাসের কিছু করে নিজেকে সুস্থ্য করতে পারেন। তবে অনেক সময় ঔষধের প্রয়োজন পরে।

সাইনোসাইটিসের কারণ যদি ভাইরাস হয় তাহলে অ্যান্টিবায়োটিক কোন কাজ করবে না। ভাইরাল ইনফেকশন হলে অ্যান্টিবায়োটিক তেমন কোন প্রভাব দেখায় না। এমতাবস্থায় ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ঔষধ গ্রহন করা উচিত।

তীব্র সাইনোসাইটিসের আরেকটি প্রধান কারণ ব্যাকটেরিয়া হতে পারে। ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহণ করতে পারেন। অ্যান্টিবায়োটিক ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ খুব দ্রুত নিরাময় করে। আপনি কত দ্রুত সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠবেন তা নির্ভর করবে আপনার সংক্রমণের তীব্রতা এবং ওষুধের ডোজ এর উপর। অ্যান্টিবায়োটিকগুলি সম্পূর্ণ প্রভাব দেখায় যখন তাদের কোর্স কমপ্লিট করা হয়। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী অ্যান্টিবায়োটিকের কোর্স কমপ্লিট করুন।

অনেক সময় কয়েকবার ঔষধ খাবার পর সংক্রমণের লক্ষণ বন্ধ হয়ে যায়। এইরকম হলে আমরা অনেকেই ঔষধ গ্রহন করা বন্ধ করে দেই। ঔষধের ডোজ কমপ্লিট না করলে আবার সাইনোসাইটিসের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

ক্রনিক সাইনোসাইটিসের চিকিৎসা

ক্রনিক সাইনাসের সংক্রমণ তিন মাসেরও বেশি সময় ধরে থাকে। দীর্ঘস্থায়ী সাইনাস সংক্রমণের চিকিৎসা করা সহজ নয়। এই ধরনের সাইনাসের সংক্রমণে অ্যান্টিবায়োটিকও খুব একটা কার্যকর নয়। 

এই সংক্রমণের চিকিৎসা দীর্ঘ সময় ধরে চলে। এতে অ্যান্টিবায়োটিক থেরাপি ব্যবহার করা হয়। এর চিকিৎসা এতটাই কঠিন যে অনেক ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক একসঙ্গে খেতে হয়। যদি চিকিৎসার সময় প্রদাহ দেখা দেয়, তাহলে কর্টিকোস্টেরয়েড অনুনাসিক স্প্রে ব্যবহার করা হয়। এই স্প্রেটির সাহায্যে শ্বাসনালীর ফোলাভাব কমে যায়।

দীর্ঘস্থায়ী সাইনোসাইটিসের আরেকটি কারণ হল ছত্রাক বা ভাইরাল সংক্রমণ। আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সঠিকভাবে কাজ করতে না পারলে একসঙ্গে অনেক ধরনের সংক্রমণ ঘটতে পারে। এ ধরনের সংক্রমণ হলে অ্যান্টিবায়োটিকও অকার্যকর হয়ে পড়ে।

ছত্রাকজনিত ক্রনিক সাইনোসাইটিস ছত্রাক-বিরোধী ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা করা হয়। এ ছাড়া কর্টিকোস্টেরয়েড ওষুধও দেওয়া যেতে পারে। যদি রোগ নিরাময়ের পরিবর্তে আরও খারাপ হয়, তবে অস্ত্রোপচার করার প্রয়োজন হতে পারে।

যদি ওষুধের ডোজ শেষ হয়ে যায় এবং লক্ষণগুলি ক্রমাগত বারতে থাকে, তবে ডাক্তার অস্ত্রোপচারের পরামর্শ দিতে পারে।

সাইনাসের জন্য সার্জারি – সাইনোসাইটিস এর অপারেশন

ওষুধে যখন কাজ হয় না, তখন অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হয়। সাইনাস সংক্রমণের জন্য আগে অস্ত্রোপচার বেদনাদায়ক ছিল। তবে এখন সামনের হাড় ও টিস্যু অপসারণ করা হলেও এখন নাকের ছিদ্র দিয়ে অস্ত্রোপচার করা হয়। অস্ত্রোপচারের পর আর কোনো দাগ থাকে না। অস্ত্রোপচারের কয়েক দিনের মধ্যে রোগী সম্পূর্ণরূপে সুস্থ হয়ে ওঠে। অস্ত্রোপচারের একদিন পর রোগীকে হাসপাতাল থেকে রিলিজ করে দেওয়া হয়। রোগী ৩ থেকে ৪ দিনের মধ্যে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে যায়।

সাইনাস সংক্রমণ প্রতিরোধ

বাড়ির কেউ যদি সাইনাসের সংক্রমণে ভুগে থাকেন তাহলে নিজেকে রক্ষা করা খুবই জরুরি হয়ে পড়ে। আপনি নিম্নলিখিত উপায়ে সাইনাস সংক্রমণ এড়াতে পারেন-

  • খাবার খাওয়ার আগে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিন। মলত্যাগের পর ভালোভাবে হাত ধুয়ে নিন। 
  • দূষণের মাত্রা বেশি এমন জায়গায় যাবেন না। এ ছাড়া ধুলাবালি ও ধোঁয়া থেকে দূরত্ব বজায় রাখুন।
  • আপনার যদি কোনো বস্তুর প্রতি অ্যালার্জি থাকে তবে এর সংস্পর্শে আসবেন না।
  • আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি বা কাশির সময় তার কাছে যাবেন না। এমনকি কথা বলার সময় তার মুখ থেকে বেরিয়ে আসা বাতাসের সংস্পর্শে আসবেন না।
  • একদম ধূমপান করবেন না। ধোঁয়ার সংস্পর্শে আসবেন না। এটি ফুসফুসের জন্য খুবই বিপজ্জনক এবং এর কারণে নাক ও গলা ফুলে যেতে পারে।

শেষ কথা

আজকের আর্টিকেলে আমরা আপনাদের সাথে সাইনাস বা সাইনোসাইটিস সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করেছি। এবং সেই সাথে সাইনাস থেকে কিছুটা আরাম পেতে ঘরোয়া কিছু প্রতিকার সম্পর্কে বলেছি। তবে সমস্যা বেশী হলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

আর্টিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরনের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান।

ধন্যবাদ

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

1 thought on “সাইনোসাইটিস কি? সাইনোসাইটিসের কারণ, লক্ষণ, ঘরোয়া প্রতিকার”

  1. অত্যন্ত ব্যাখ্যা বহুল লেখা।চিকিৎসকদের ও উৎসাহি মানুষদের রোগটি সম্পর্কে আগ্রহ বাড়াবে।

    Reply

Leave a Comment