সারারাত চার্জে রাখলে কি ফোন বিস্ফোরিত হয় ?

রাতে ফোন চার্জে দিয়ে ঘুমিয়েছিলেন এক ব্যক্তি । ফলে রাতে অতিরিক্ত চার্জ হওয়ার কারণে তার ফোনটি বিস্ফোরিত হয় । এটি এখন থেকে প্রায় ১০ বছর আগের খবর । তবে এই ধরনের ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে ফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো অনেক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করেছিল এবং অবশেষে তারা সমস্যাটির সমাধান করতে সক্ষম হয়েছেন । কিন্তু আমাদের মধ্যে আজও অনেকেই বিশ্বাস করেন যে, সারারাত চার্জে রাখলে ফোন বিস্ফোরিত হয় । শুধু তাই নয়, মোবাইল চার্জিং নিয়েও আমাদের মধ্যে অনেক ভুল ধারণা রয়েছে । যা আজও অনেক মানুষ সত্য বলে বিশ্বাস করে । কিন্তু আসল সত্যটি কি, তা আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে জেনে নিন । আজকে আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করব যে, সারারাত চার্জে রাখলে কি ফোন বিস্ফোরিত হয় ?

চার্জিং সম্পর্কে ভুল ধারণা

গত দেড় দশকে মোবাইল প্রযুক্তির ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। কিন্তু তবুও, স্মার্টফোন সম্পর্কে আমাদের মধ্যে অনেক ভুল ধারণা রয়েছে এবং এই ধারনাগুলো বেসিক ফোনের দিন থেকেই চলে আসছে । ফোনের ব্যাটারি এবং ফোন চার্জিং নিয়ে এমনই কিছু ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে , যেগুলোকে মানুষ এখনও সত্য বলে মনে করে । তার মধ্যে অন্যতম হল সারারাত চার্জে রাখলেই ফোন ফেটে যেতে পারে এবং ব্যাটারি সবসময় ১০০% চার্জ করা উচিত ইত্যাদি । তাই আজকের আর্টিকেলে আমরা, ব্যাটারি ও চার্জিং সংক্রান্ত ভুল ধারণা এবং এর পেছনের সত্যতা সম্পর্কে বিস্তারিত জানব । তাহলে চলুন শুরু করা যাক –

ওভারচার্জিং থেকে ফোন বিস্ফোরণ

অনেক স্মার্টফোন ব্যবহারকারী এখনও বিশ্বাস করেন যে, তারা যদি তাদের ফোনটি সারারাত চার্জে রেখে দেন তবে অতিরিক্ত চার্জিংয়ের কারণে ফোনটি বিস্ফোরিত হতে পারে । অথবা সারারাত চার্জ হওয়ার কারণে ব্যাটারি নষ্ট হয়ে যাবে । কিন্তু আমি আপনাদের বলতে চাই যে, বর্তমানে এটি শুধুমাত্র একটি ভুল ধারণা । আপনি চাইলে আপনার স্মার্টফোনকে একটানা কয়েক দিন চার্জে রেখে দিতে পারেন, তাতে আপনার ফোনের কিছুই হবে না । কারণ এখনকার সময়ের স্মার্টফোনগুলো উচ্চ নিরাপত্তার মান মাথায় রেখে ডিজাইন এবং তৈরি করা হয় । বিশেষ করে যে স্মার্টফোনগুলো লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারিযুক্ত সেগুলোর নিরাপত্তার দিকে অতিরিক্ত যত্ন নেওয়া হয় । কারণ লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি ওভার চার্জিংয়ের জন্য খুবই সংবেদনশীল ।

ওভারচার্জিং সুরক্ষা

কোনো কোম্পানিই চায় না যে, তাদের তৈরি ফোন বিস্ফোরিত হোক এবং বাজারে তাদের ব্র্যান্ডের নাম খারাপ হোক। তাই বর্তমানে প্রতিটি কোম্পানি তাদের স্মার্টফোন এবং ব্যাটারিতে টেম্পারেচার সেন্সর এবং ওভারচার্জিং প্রোটেকশন সার্কিট ইনস্টল করে ।ওভারচার্জিং প্রটেকশন সার্কিট ফোনটিকে অতিরিক্ত চার্জ হওয়া থেকে বাধা দেয় । ব্যাটারির চার্জ ১০০% হওয়ার সাথে সাথে এটি পাওয়ার সাপ্লাই বন্ধ করে দেয় । আবার যখন ব্যাটারির চার্জ ১০০% এর নিচে নেমে যায়, তখন পাওয়ার সাপ্লাই পুনরায় চালু হয় এবং ব্যাটারির চার্জ ১০০% হওয়ার পর পুনরায় বন্ধ হয়ে যায় । এই প্রক্রিয়াটি ক্রমাগত চলতে থাকে, যতক্ষণ না আপনি আপনার ফোনকে চার্জ করা থেকে সরিয়ে দিচ্ছেন । অর্থাৎ, আপনার ফোন দিনের পর দিন চার্জে রাখলেও তা কখনই অতিরিক্ত চার্জ হবে না এবং এতে কোনো ধরনের বিস্ফোরণ ঘটবে না ।

তাপমাত্রা সেন্সর

আপনারা সবাই জানেন যে ফোন চার্জ করার সময় ফোনে তাপ উৎপন্ন হয়, যার কারণে অনেক সময় ফোন গরম হয়ে যায় । তাই বর্তমান সময়ের ফোন গুলোতে টেম্পারেচার সেন্সর দেওয়া হয়েছে, যা ফোন এবং ব্যাটারির তাপমাত্রা পর্যবেক্ষণ করে । স্মার্টফোন নির্মাতা কোম্পানিগুলোর মতে, চার্জ করার সময় ফোনের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছানো খুব সাধারণ ব্যাপার । কিন্তু তাপমাত্রা যদি কোন কারণে এর উপরে চলে যায়, তাহলে হিট সেন্সর ফোনের সফটওয়্যারকে তা জানিয়ে দেয় । ফলস্বরূপ, চার্জিং প্রসেসটি ধীর গতির হয়ে যায়।

গ্রীষ্মের মৌসুমে, আপনি লক্ষ্য করে দেখবেন যে, ফাস্ট চার্জারের মাধ্যমে চার্জ করা সত্ত্বেও, ফোনটি খুব ধীরে ধীরে চার্জ হয়।অর্থাৎ ফোন যত বেশী গরম হবে, চার্জ তত ধীর হবে । তবে আপনি যদি ঘরে এয়ার কুলার বা এসি লাগিয়ে থাকেন এবং ঘর ঠান্ডা থাকে, তাহলে ব্যাপারটা ভিন্ন ।

আরও পড়ুনঃ ব্যালিস্টিক মিসাইল কি ?

0% থেকে 100% চার্জিং

অনেক স্মার্টফোন ব্যবহারকারী বিশ্বাস করেন যে ব্যাটারি সব সময় সম্পূর্ণ চার্জ করা উচিত অর্থাৎ ১০০% চার্জ করা উচিত ।এবং যতক্ষণ না ব্যাটারি সম্পূর্ণরূপে ডিসচার্জ হয় অর্থাৎ ০% বা ১%, তার আগে পর্যন্ত এটি চার্জ করা উচিত নয় । এর পিছনে যুক্তি হল এটি ব্যাটারির সাইকেল লাইফ বাড়ায় অর্থাৎ এইভাবে চার্জ করলে ব্যাটারী অনেক দিন পর্যন্ত ভাল থাকবে এবং সেই সাথে ব্যাটারী অনেক পর্যন্ত ব্যাকআপ দিবে ।  কিন্তু মেইন কথা হল এটা সত্য না

স্মার্টফোন নির্মাতা কোম্পানিগুলোর কথা যদি বিশ্বাস করা হয়, তাহলে ফোনের ব্যাটারি পুরোপুরি ডিসচার্জ কখনই করা উচিত নয়। যখন আপনার ফোনের ব্যাটারির চার্জিং লেভেল ২০% এ নেমে যায়, তখন এটি আবার পুনরায় চার্জ করা উচিত এবং ৮০% এর বেশি চার্জ করা উচিত নয় । অর্থাৎ, ব্যাটারি সবসময় ২০% – ৮০% চার্জ এর মধ্যে রাখতে হবে ।  এর ফ্ললে ব্যাটারির স্বাস্থ্য ভালো থাকে এর আয়ুষ্কালও অনেকটা বৃদ্ধি পায় ।

ব্যাটারি সাইকেল লাইফ

আমাদের মধ্যে আরও একটি বড় ভুল ধারণা হল ব্যাটারির সাইকেল লাইফ সম্পর্কে । প্রকৃতপক্ষে প্রত্যেকটি ব্যাটারির একটি নির্দিষ্ট জীবন চক্র রয়েছে যা প্রায় ৫০০ থেকে ৬০০ এর মধ্যে । এখানে এক সাইকেল মানে হল ব্যাটারি একবার সম্পূর্ণ ডিসচার্জ থেকে ফুল চার্জ পর্যন্ত চার্জ করা । অর্থাৎ, 0% থেকে 100% পর্যন্ত চার্জ করা হলে, ব্যাটারির একটি সম্পূর্ণ চক্র সম্পন্ন হয় ।অর্থাৎ, আপনি ৫০০ থেকে ৬০০ বার পর্যন্ত আপনি ব্যাটারি চার্জ করতে পারবেন । এর পর ব্যাটারির ক্ষমতা ধীরে ধীরে কমে যাবে এবং সেটির চার্জ খুব দ্রুত ডিসচার্জ হতে শুরু করবে । তারপরে একটা সময় পরে আপনাকে ব্যাটারি রিপ্লেস করতে হবে ।

তবে এর অর্থ এই নয় যে সাইকেল সম্পন্ন হওয়ার সাথে সাথেই ব্যাটারিটি ডেড হয়ে যাবে । এর পরেও ব্যাটারি কাজ করবে কিন্তু এর কার্যক্ষমতা ধীরে ধীরে কমতে থাকবে অর্থাৎ ব্যাটারির ব্যাকআপ দেওয়ার ক্ষমতা ক্রমাগত কমতে থাকবে ।

সাইকেল লাইফ মানে

এখন আমাদের মধ্যে আরও একটি ভুল ধারণা হল যে, আপনি ব্যাটারি ৬0% বা ১00% চার্জ করুন না কেন, উভয় ক্ষেত্রেই এটি একটি সম্পূর্ণ সাইকেল হিসাবে বিবেচিত হবে । অর্থাৎ, আপনি যদি একবারে ১00% ব্যাটারি চার্জ করেন, তবে একটি চক্র সম্পন্ন হবে । আবার অন্যদিকে, আপনি যদি একবারে মাত্র ৫0% চার্জ করেন, তবে আরও একটি সাইকেল সম্পন্ন হবে । কেন? কারণ যখন আপনি ব্যাটারির অবশিষ্ট ৫0% চার্জ করবেন, তখন এটি সম্পূর্ণ চক্র হিসাবে বিবেচিত হবে । এইভাবে ৫0% এবং ৫0% এর দুটি চক্র হ্রাস পাবে । আর এভাবে চলতে থাকলে ব্যাটারির সাইকেল লাইফ অনেক দ্রুত শেষ হয়ে যাবে।

তবে আমি আপনাদের বলতে চাই যে এই বিষয়টি সত্য নয় । আসলে 0% থেকে ১00% পর্যন্ত একটি সাইকেল বিবেচনা করা হয়, এটি একেবারে সত্য । কিন্তু এর মানে এই নয় যে আপনি ৫0% চার্জে একটি চক্র হারাবেন । কারণ চক্রটি তখনও সম্পূর্ণ হয়নি ।আপনি যখন পুনরায় ৫0% চার্জ করবেন তখন একটি সাইকেল সম্পূর্ণ হবে । আপনি যদি আমার কথায় বিশ্বাস না করেন, তাহলে আপনি চার্জ সাইকেল নিয়ে জায়ান্ট টেক কোম্পানি অ্যাপলের দেওয়া নিচের বিবৃতিটি পড়তে পারেন …

অন্য চার্জারের মাধ্যমে চার্জ করলে কি ব্যাটারি খারাপ হয়ে যায় ?

অনেক স্মার্টফোন ব্যবহারকারী পরামর্শ দিয়ে থাকেন যে, আপনি যদি আপনার ফোনের সাথে আসা আসল চার্জারের পরিবর্তে অন্য কোম্পানির চার্জার দিয়ে আপনার ফোনটি চার্জ করেন তবে আপনার ফোনের ব্যাটারি নষ্ট হয়ে যাবে । তাই চার্জ করার জন্য সবসময় ফোনের সাথে আসা আসল চার্জারটি ব্যবহার করা উচিত । কিন্তু এই কথাটি অর্ধেক সত্য, পুরো সত্যটি হল আপনি চার্জ করার সময় যে কোনও কোম্পানির চার্জার ব্যবহার করতে পারেন । তবে মেইন বিষয়টি হল চার্জারটি অরিজিনাল এবং আপনার ফোনের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে হবে ।

চার্জারের গুণমান

আপনি যদি খারাপ মানের সস্তা চার্জার ইউজ করেন, যা আপনার ফোনের জন্য কম্পাটিবল নয়, তাহলে আপনার ফোনের ব্যাটারি নষ্ট হতে বাধ্য । এর কারণে আপনার ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে যেতে পারে এমনকি এর কারণে আপনার ফোন বিস্ফোরিতও হতে পারে । হ্যাঁ, যে কোন লোকাল চার্জারের কারণে আপনার ফোন নষ্ট হয়ে যেতে পারে । কিন্তু ওরিজিনাল চার্জার দিয়ে এটি কখনই ঘটবে না । ফোন বিস্ফোরণের যে সব ঘটনা আমাদের সামনে আসে তার বেশিরভাগ গুলোই ঘটে ব্যবহারকারীদের দোষে । আর এর পেছনের অন্যতম কারণ হল ভুল চার্জার বা ভুল তারের ব্যবহার ।

কোনো ফোন কোম্পানিই চায় না যে তাদের ফোন ব্লাস্ট হোক । কারণ যখনই কোনো কোম্পানির ফোন বিস্ফোরিত হয়, তখনই বাজারে সেই কোম্পানির সুনামের ওপর খুব খারাপ প্রভাব ফেলে। কোম্পানিকে তার গ্রাহকদের অবিশ্বাসের মুখে পড়তে হয় । সেই সাথে এর প্রতিযোগী সংস্থাগুলিও এর পুরো সুবিধা নেয় । তাই প্রতিটি কোম্পানিই এ ধরনের পরিস্থিতি এড়িয়ে চলতে চায় । এজন্য স্মার্টফোন কোম্পানিগুলো খুব জোর দিয়ে বলে যে আপনি শুধুমাত্র তাদের অরিজিনাল চার্জার ব্যবহার করে আপনার ফোনটি চার্জ করুন । এমনকি ফোনের ইউজার ম্যানুয়ালেও এই বিষয়টি সতর্কতা হিসেবে লেখা থাকে ।

আরও পড়ুনঃ প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া কমানোর ঘরোয়া উপায়

অরিজিনাল চার্জার ব্যবহার করুন

কিন্তু আপনি যদি অরিজিনাল চার্জার ইউজ করেন এবং সেটি যদি আপনার ফোনের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়, তাহলে এটি কোন কোম্পানির চার্জার তা তেমন কোন বিবেচ্য বিষয় নয় । আমি আসলে বলতে চাইছি যে, আপনার যদি একটি নির্ভরযোগ্য কোম্পানির অরিজিনাল চার্জার থাকে, তাহলে আপনি নির্দ্বিধায় সেটি দিয়ে আপনার যে কোন ফোন চার্জ করতে পারেন । তা যেকোন কোম্পানির (স্যামসাং, শাওমি, ভিভো ইত্যাদি) হতে পারে । তবে ফোন চার্জ করার জন্য কখনই লোকাল চার্জার ব্যবহার করবেন না । কারণ এই চার্জারগুলো নিরাপত্তার মানদণ্ডের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ নয় । এছাড়াও, এই সব লোকাল চার্জারের ইনপুট এবং আউটপুট ভোল্টেজ কম বা বেশি হতে পারে, যা ফোনের ব্যাটারির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ না ।

শেষ কথা

সেজন্য সবসময় অরিজিনাল চার্জার ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয় । এছাড়াও কিছু স্মার্টফোন ইউজার এখনও বিশ্বাস করেন যে, ব্যাটারি সেভার অ্যাপ সত্যি সত্যিই ফোনের ব্যাটারি বাঁচায় । কিন্তু বাস্তবতা হল সম্পূর্ণ বিপরীত । আসলে এই ব্যাটারি সেভ করার অ্যাপগুলি আপনার ফোনের ব্যাটারি বাঁচানোর পরিবর্তে ব্যাটারি চুষতে কাজ করে । 

আমরা আশা করছি এই আর্টিকেলটি পড়ার পরে, আপনি চার্জিং সম্পর্কিত ভুল ধারণাগুলি এবং সেগুলির পিছনের সত্যগুলি সম্পর্কে ভালভাবে জানতে পেড়েছেন । আর্টিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরনের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান ।

ধন্যবাদ

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment