OTP কি ? OTP সম্পর্কে বিস্তারিত

ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড বা OTP কি জানেন? যদি না জেনে থাকেন, তাহলে অবশ্যই এই পোস্টটি পড়ুন। আজকের যুগে, আমরা প্রায় সবাই অনলাইনে ঘরে বসে আমাদের সকল কাজ করি, যেমন মোবাইল রিচার্জ বা শপিং, তাই এই ডিজিটাল বিশ্বে আমাদের নিরাপত্তা অনেক গুরুত্বপূর্ণ, যাতে আমাদের ব্যক্তিগত তথ্য এবং অ্যাকাউন্ট উভয়ই অজানা ব্যক্তিদের থেকে নিরাপদ থাকে।

যখন আমরা নেট ব্যাঙ্কিংয়ের সাহায্যে অনলাইন লেনদেন করি, যেমন মোবাইল রিচার্জ করি বা অনলাইন থেকে কোন পণ্য কিনি, তখন সমস্ত বিবরণ পূরণ করার পরে, শেষের দিকে একটি কোড আসে যাকে আমরা OTP বলি।

আপনাদের মধ্যে অনেকেই OTP সম্পর্কে শুনেছেন এবং এটি ব্যবহার করেছেন, কিন্তু আপনি কি জানেন কেন এটি ব্যবহার করা হয়? আপনি যদি না জানেন, তাহলে কোন সমস্যা নেই, আজকের আর্টিকেলে ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড (ওটিপি) কি এবং এর সম্পর্কে বিস্তারিত আপনারা জানতে পারবেন।

One Time Password কি বা OTP কি

One Time Password বা OTP হল একটি ৪ বা ৬ ডিজিটের security code, যা আমরা অনলাইন লেনদেন করার সময় ব্যবহার করি।

যখন আমরা কোন ই-কমার্স ওয়েবসাইট থেকে কোন পণ্য কিনে থাকি তখন আমরা আমাদের এটিএম কার্ড দিয়ে তা পরিশোধ করি, পেমেন্ট করার সময় আমাদের ব্যাংকিং Details পূরণ করার পর, সবশেষে একটি security কোড একটি এসএমএস হিসাবে আপনার ব্যাঙ্ক নিবন্ধিত মোবাইল নম্বরে যায়, যাকে আমরা ওটিপি বলি।

OTP এর ফুল ফর্ম

OTP এর ফুল ফর্ম বা পূর্ণরূপ হল One Time Password ।

OTP কত প্রকার

অধিকাংশ মানুষ শুধুমাত্র একটি OTP সম্পর্কে জানে। আসুন ওটিপির প্রকারগুলি জেনে নিই:-

SMS: বেশিরভাগ ওয়েবসাইট SMS OTP ব্যবহার করে, কারণ এসএমএসের মাধ্যমে আসা ওটিপি সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং ব্যবহার করা সহজ।

Voice Calling: ভয়েস কলিং ওটিপি মানে আপনার মোবাইলে কল করে ওটিপি বলা হবে। ফেসবুক বা হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট তৈরি করার সময় আপনি এই ভয়েস কলিং ওটিপি অপশনটি ব্যবহার করতে পারেন।

Email: Email, ওটিপি জানার আরও একটি উপায়। এতে আপনার ইমেইলে ওটিপি কোড পাঠানো হয় এবং আপনি আপনার ইমেইল আইডি ওপেন করে সেখান থেকে ওটিপি পেতে পারেন।

OTP কত ডিজিট?

ওটিপি সাধারনত 4 ডিজিট থেকে ৮ ডিজিট হতে পারে। বিভিন্ন জায়গায় ওটিপি ভিন্নভাবে ব্যবহার করা হয়, যেমন ব্যাঙ্ক সম্পর্কিত লেনদেনে 6-ডিজিটের ওটিপি থাকে, যেখানে আপনি যখন কোন অ্যাপ বা ওয়েবসাইটে আপনার অ্যাকাউন্ট তৈরি করবেন সেখানে 4 ডিজিট থাকে ওটিপি, এটি ছাড়াও, কিছু ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ে ৮ অঙ্কের ওটিপি রয়েছে। এইভাবে বিভিন্ন উদ্দেশ্যে OTP এর বিভিন্ন সংখ্যা থাকতে পারে। OTP যে কোন সংখ্যার হতে পারে।

আরও পড়ুনঃ SSL সার্টিফিকেট আপনার ওয়েবসাইটের জন্য কেন প্রয়োজন

OTP কেন ব্যবহার করা হয়?

ওটিপি এমন একটি পাসওয়ার্ড যা সাধারণ পাসওয়ার্ডের চেয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন এবং নিরাপদ। অর্থাৎ ব্যবহারকারীরা তাদের অ্যাকাউন্ট তৈরি করার সময় যে পাসওয়ার্ড তৈরি করে। যেমন আমরা যখন কোন ওয়েবসাইটে আমাদের একাউন্ট তৈরি করি, আমরা আমাদের ব্যবহারকারীর নাম এবং পাসওয়ার্ড তৈরি করি, আমরা যে পাসওয়ার্ডটি তৈরি করি তা আমাদের নাম বা জন্ম তারিখ বা অন্য কোন কিছুর মতো খুব সহজ হয় যাতে আমরা সহজেই মনে রাখতে পারি। কিন্তু এতে আমরা ঝুঁকিতে আছি, কারণ হ্যাকাররা সহজেই আমাদের পাসওয়ার্ড হ্যাক করতে পারে এবং আমাদের তথ্য চুরি করতে পারে।

বর্তমানে প্রায় সমস্ত শপিং ওয়েবসাইট তাদের গ্রাহকদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে OTP কোড ব্যবহার করে। অনলাইন লেনদেন সফল করতে এবং কোম্পানিগুলিকে সাইবার অপরাধ থেকে রক্ষা করার জন্য ওটিপি একটি দুর্দান্ত সমাধান।

অথবা এমনও হতে পারে যে, আপনার পরিচিত কোন ব্যক্তি, যদি সে আপনার ব্যবহারকারীর নাম এবং পাসওয়ার্ড জানে, তাহলে সে আপনার অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে ভুল সুবিধা নিতে পারে। তাই আজকাল সব ব্যাংক, ই-কমার্স ওয়েবসাইট এবং অনলাইন রিচার্জ ওয়েবসাইট OTP এর ব্যবহার করে, যাতে তাদের ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্ট নিরাপদ থাকে। ওটিপি আপনার অ্যাকাউন্টকে নিরাপদ রাখে এবং আপনার ব্যাংকিং এবং ব্যক্তিগত তথ্য চুরি হওয়া থেকে রক্ষা করে।

OTP কি ভাবে কাজ করে

ওটিপির মাধ্যমে আমাদের সকল অ্যাকাউন্ট যেমন গুগল একাউন্ট, নেট ব্যাংকিং একাউন্ট, ব্যাংক একাউন্ট ইত্যাদি সবই নিরাপদ থাকে।

OTP এর বিশেষত্ব হল যে, এটি দ্বারা তৈরি কোড শুধুমাত্র একবার ব্যবহার করা যেতে পারে এবং এটি শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য কাজ করে, যদি আমরা সেই সময়ের মধ্যে কোডটি ব্যবহার না করে থাকি, তাহলে সেই কোডটি আর কাজ করবে না। অর্থাৎ, আমরা যখনই অনলাইনে লেনদেন করি, এই কোড প্রতিবার ভিন্নভাবে তৈরি হয়, যাতে আমাদের অ্যাকাউন্ট সম্পূর্ণ নিরাপদ থাকে।

ওয়ান-টাইম পাসওয়ার্ড এলোমেলো অ্যালগরিদমের মাধ্যমে কাজ করে যা প্রতিবার নতুন পাসওয়ার্ড তৈরি করার সময় একটি নতুন এবং ইউনিক কোড তৈরি করে।

এমনকি যদি আপনার একাউন্টের ইউজারনেম এবং পাসওয়ার্ড অন্য কারো কাছে থেকেও থাকে, তারপরেও সে আপনার অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে পারবে না। কারণ তার জন্য ওটিপি প্রয়োজন হবে যা শুধুমাত্র আপনার রেজিস্টার্ড মোবাইল নম্বরে অথবা আপনার ইমেইল আইডিতে আসবে। এই কোডটি ছাড়া সে আপনার অ্যাকাউন্টের কোন সুবিধা নিতে পারবে না।

OTP কোথায় ব্যবহার করা হয়?

নেট ব্যাংকে অনলাইনে লেনদেন করার জন্য ওটিপি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়, এর বাইরে গুগলও ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্টকে আরও সুরক্ষিত করতে ওটিপি নিরাপত্তা ব্যবহার শুরু করেছে।

গুগল একাউন্টে এটি সক্রিয় করার পরে অন্য কোন ব্যবহারকারী আপনার অ্যাকাউন্টের তথ্য দিয়ে তাদের ডিভাইস থেকে লগইন করতে পারবে না। কারণ গুগল সেখানে যাচাই করার জন্য ওটিপি পাসওয়ার্ড চাইবে যা শুধুমাত্র আপনি এসএমএসের মাধ্যমে আপনার মোবাইল নম্বরে পাবেন।

এই কোড ছাড়া সেই ব্যবহারকারী আপনার অ্যাকাউন্টে প্রবেশ করতে পারবে না। সব ই-কমার্স ওয়েবসাইট যেমন Daraz, আমাজন, ফ্লিপকার্ট, স্ন্যাপডিল, ইবে ইত্যাদি এবং অনলাইন Banking যেমন Dutch Bangla Bank, Bkash, Rocket, Nagad ইত্যাদি ডিজিটাল ওয়ালেট পরিষেবা প্রদান করে।

OTP এর সুবিধা

আপনারা যদি ওটিপির সুবিধা জানতে চান, তাহলে আপনাকে অবশ্যই নিচের পয়েন্টগুলো পড়তে হবে। আপনার মনে নিশ্চয়ই এসেছে যে OTP শুধুমাত্র আমাদের মোবাইলে আসে। কিন্তু এ থেকে আমাদের কি লাভ হয়। নিচে OTP এর সুবিধা গুলো দেওয়া হল-

  • আপনার অনলাইন অ্যাকাউন্ট এর মাধ্যমে সুরক্ষিত থাকে
  • ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড শুধুমাত্র একবার ব্যবহার করা যায়।
  • ওটিপি একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য Valid থাকে। যা সময় শেষ হয়ে যাওয়ার পর আর কাজ করবে না।
  • যদি কেউ আপনার অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড জেনে থাকে, তারপরেও তারা আপনার অ্যাকাউন্টে লগইন করতে পারবে না। কারণ এর জন্য ওটিপি প্রয়োজন। এবং যা আপনার মোবাইলে আসবে।
  • যে কোন অনলাইন পেমেন্ট করার সময় ওটিপি প্রয়োজন।
  • মোবাইল রিচার্জ করতেও ওটিপি প্রয়োজন।
  • ওটিপি ছাড়া কেউ আপনার অ্যাকাউন্টের অপব্যবহার বা ক্ষতি করতে পারবে না।
  • অনলাইন ব্যাংক লেনদেন করার জন্য ওটিপি প্রয়োজন।
  • নতুন একাউন্ট তৈরির জন্য ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ডও প্রয়োজন।
  • আপনি এটি Two Factor Authentication জন্যও ব্যবহার করতে পারেন।
  • ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে আপনার সমস্ত অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ এফটিপি সার্ভার কি? বেস্ট FTP Server BD List

OTP কিভাবে অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত করে

এখন আপনাদের জানাব কিভাবে OTP আপনার অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা বাড়ায়। যার কারণে আপনার একাউন্ট অনেক নিরাপদ হয়ে যায়।

OTP আপনার অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা আরও বাড়িয়ে দেয়। যার কারনে কোন হ্যাকার বা কোন ব্যক্তি ওটিপি প্রবেশ না করে আপনার অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে পারবে না। সুতরাং আপনার সাথে থাকা অ্যাকাউন্টের তথ্য কেউ জানতে পারবে না। এই ভাবে OTP আমাদের অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা বাড়ায়।

আপনি ওটিপি ব্যবহার করে আপনার অর্থ সঞ্চয় করতে পারবেন। কারণ অনেক লোক আছে যারা আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের তথ্য হ্যাক করার চেষ্টা করে। যার কারণে যদি তারা আপনার ব্যবহারকারীর নাম এবং পাসওয়ার্ড জানে। তারপরেও, আপনার মোবাইলে আসা ওটিপি প্রবেশ না করে, তারা আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে অর্থ স্থানান্তর করতে পারবে না। এই ভাবে, আপনি OTP এর মাধ্যমে আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টকেও সুরক্ষিত রাখতে পারেন।

যদি আপনি এটিএম মেশিনের মাধ্যমে এটিএম থেকে টাকা উত্তোলন করেন, তাহলে সেই সময়ে আপনার মোবাইল নম্বরে ওটিপি আসবে যা আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের সাথে সংযুক্ত হবে। এখন যত তাড়াতাড়ি আপনি ATM মেশিনে OTP দেবেন, তখনই আপনি এটিএম থেকে আপনার টাকা তুলতে পারবেন। অন্যথায়, এটিএম থেকে আপনার টাকা বের হবে না এবং লেনদেন ব্যর্থ বলে দেবে। এটিএম থেকে টাকা তোলার সময় এটি সবচেয়ে ভাল নিরাপত্তা, এমনকি যদি কেউ আপনার এটিএম পিন নম্বর জানে বা আপনার এটিএম চুরি করে, তবুও সে এটিএম মেশিন থেকে টাকা তুলতে পারবে না।

শেষ কথা

আপনার অনলাইন লেনদেনের সুবিধার্থে এবং সাইবার ক্রাইম এড়াতে ওটিপি হল অত্যন্ত ভাল একটি সমাধান।

সেজন্যই আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনাদের কাছে ওটিপি সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য শেয়ার করার চেষ্টা করলাম।

আর্টিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরনের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান।

ধন্যবাদ

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment