কিভাবে বিটকয়েন আয় করা যায়

বর্তমানে, বিশ্বের প্রতিটি দেশের নিজস্ব মুদ্রা রয়েছে এবং প্রতিটি মুদ্রার একটি মূল্য রয়েছে, যেমন আমাদের দেশের মুদ্রা টাকা এবং আমেরিকার মুদ্রা ডলার। একইভাবে, ইন্টারনেটের জগতেও একটি মুদ্রা রয়েছে যাকে আমরা ভার্চুয়াল মুদ্রা বা ডিজিটাল মুদ্রা বলে থাকি। আজকাল অনেকেই এই ভার্চুয়াল কারেন্সি সম্পর্কে জানতে চায়, ইন্টারনেট জগতে বিটকয়েন নামে একটি ভার্চুয়াল কারেন্সি রয়েছে। তাই আজকের আর্টিকেলে আমি আপনাদের বলব বিটকয়েন কি এবং কিভাবে বিটকয়েন আয় করা যায় । 

বিটকয়েন বর্তমান সময়ে সবচেয়ে ব্যয়বহুল ডিজিটাল মুদ্রা এবং বিনিয়োগকারীরা খুব আগ্রহ নিয়ে এটি কিনছেন। আপনি জেনে অবাক হবেন যে, আজকের সময়ে একটি বিটকয়েনের দাম 52 লাখ টাকারও বেশি। যা কয়েক বছর আগেও 1 টাকার কম ছিল। আর দিন দিন এর চাহিদা এবং মুল্য বেড়েই চলেছে। 

Table of Contents

বিটকয়েন কি

বিটকয়েন হল একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা যাকে আমরা ক্রিপ্টোকারেন্সি নামে চিনি। সাধারণ ভাষায় বলতে গেলে ক্রিপ্টোকারেন্সি হলো সাংকেতিক বা ভার্চুয়াল মুদ্রা। এই ভার্চুয়াল মুদ্রার বাস্তব কোন রুপ বা আকার নেই, অর্থাৎ ক্রিপ্টোকারেন্সি ধরা যায় না বা ছোয়া যায় না। ক্রিপ্টোকারেন্সি শুধুমাত্র অনলাইনে ব্যবহার বা লেনদেন করা যায়। ক্রিপ্টো কারেন্সি এমন একটি কারেন্সি যার উপর সরকার বা কোনো কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণ নেই।

বিটকয়েন লেনদেন শুধুমাত্র ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা যেতে পারে এবং বিটকয়েন জমা করার জন্য একটি অনলাইন ওয়ালেট বা বিটকয়েন ওয়ালেট প্রয়োজন হয়। এটি একটি ওপেন সোর্স মুদ্রা যা যে কেউ ব্যবহার করতে পারে।

বিটকয়েনের দাম সবসময় ওঠানামা করতে থাকে। বিটকয়েন এমন একটি মুদ্রা, যা কোনো দেশের ব্যাংক বা সরকারের এখতিয়ারে থাকে না, তাই বিটকয়েন দিয়ে বিশ্বের যেকোনো স্থানে তাৎক্ষণিকভাবে অর্থ পাঠানো যায় এবং বিটকয়েন দিয়ে যেকোনো পরিমাণ অর্থ পাঠানো বা গ্রহণ করা সম্ভব।

ক্রিপ্টোকারেন্সি কি

ক্রিপ্টো কারেন্সি হল কম্পিউটার অ্যালগরিদমের উপর ভিত্তি করে নির্মিত একটি মুদ্রা। ক্রিপ্টোকারেন্সি কোনো সরকার বা প্রতিষ্ঠান দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় না। এই মুদ্রা কারও মালিকানাধীন নয় এবং এটি একটি স্বাধীন মুদ্রা। এই মুদ্রা বিশেষ ক্রিপ্টোগ্রাফি ব্যবহার করে তৈরি করা হয়, কারণ এটি একটি ডিজিটাল মুদ্রা। এই মুদ্রা সাধারণত অনলাইনে বিভিন্ন পণ্য কেনার জন্য এবং বিভিন্ন পরিষেবার জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

বিটকয়েনের সুবিধা

  • আপনি সহজেই এটি বিক্রি এবং কিনতে পারবেন।
  • এর অ্যাকাউন্ট কখনই ব্লক করা হয় না।
  • এর লেনদেনও অনেক কম।
  • এতে দীর্ঘ সময় বিনিয়োগ করলে বেশি সুবিধা পাওয়া যায়।
  • এটি সহজে হ্যাক বা ট্র্যাক করা হয় না।
  • এটি পিয়ার টু পিয়ার নেটওয়ার্ক বেসে কাজ করে।

বিটকয়েন কোথায় ব্যবহার করা হয়

সাধারনত, বিটকয়েন বিভিন্ন ধরণের অনলাইন পেমেন্ট, অনলাইন কেনাকাটায় বা যেকোনো অনলাইন লেনদেনের জন্য ব্যবহার করা হয়। যেমন আমরা ক্রেডিট কার্ড বা অন্য কোনো ব্যাংক ব্যবহারকারীদের মাধ্যমে অর্থ প্রদান করি, তখন আমাদের রেকর্ড ব্যাংকের কাছে থাকে। কিন্তু বিটকয়েনের ক্ষেত্রে তা হয় না। বিটকয়েনের কোনো মালিক না থাকায় আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে, এটির দ্বারা করা লেনদেনের কোনো তথ্য রেকর্ড করা হয় না। এর লেনদেন ব্লকচেইন নামে একটি পাবলিক লেজারে রেকর্ড করা হয়।

সাতোশি কি

সাতোশি হল বিটকয়েন ক্রিপ্টোকারেন্সির ক্ষুদ্রতম একক। ব্লকচেইন এবং বিটকয়েন ক্রিপ্টোকারেন্সিতে ব্যবহৃত প্রোটোকলের স্রষ্টা সাতোশি নাকামোটোর নামে এর নামকরণ করা হয়েছে । 1 টাকায় যেমন 100 পয়সা আছে, তেমনি 1 বিটকয়েনে 100,000,000 সাতোশি আছে।

1 সাতোশি  0.00000001 ฿
10 সাতোশি 0.00000010 ฿
100 সাতোশি 0.00000100 ฿
1,000 সাতোশি 0.00001000 ฿
10,000 সাতোশি 0.00010000 ฿
1,00,000 সাতোশি 0.00100000 ฿
10,00,000 সাতোশি 0.01000000 ฿
1,00,00,000 সাতোশি 0.10000000 ฿
10,00,00,000 সাতোশি 1.00000000 ฿
আরও পড়ুনঃ ব্লকচেইন কি? ব্লকচেইন প্রযুক্তি কি? ব্লকচেইনের কার্যপ্রণালী

বিটকয়েন আয় করার পদ্ধতি

অনেক মানুষ মনে করে যে বিটকয়েনের মাধ্যমে খুব সহজেই টাকা উপার্জন করা যায়। কিন্তু বাস্তব কথা হলে বিটকয়েন ইনকাম করাটা এত সহজ বিষয় নয়। দ্রুত টাকা উপার্জনের যেমন কোনো সহজ এবং ঝুঁকিমুক্ত উপায় নেই, ঠিক তেমনি বিটকয়েন উপার্জনেরও কোনো জাদুকরী উপায় নেই। বিটকেয়েনের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করার জন্য আপনাকে সময় বা অর্থ বিনিয়োগ করতে হবে।

আজকের এই আর্টিকেলে আপনি বিটকয়েন উপার্জন করতে পারেন এমন কিছু উপায় সম্পর্কে আপনাদের জানানোর চেষ্টা করব।

শপিং রিওয়ার্ডের মাধ্যমে বিটকয়েন ইনকাম

অনলাইনে নিয়মিত কেনাকাটা করার মাধ্যমে আপনি বিনামূল্যে বিটকয়েন উপার্জন করতে পারেন। শপিং রিওয়ার্ডের মাধ্যমে বিটকয়েন ইনকাম করার জন্য আপনাকে আপনার ব্রাউজারে একটি এক্সটেনশন ডাউনলোড করতে হবে। এবং বিভিন্ন ব্র্যান্ডের জিনিস চেকআউট করার সময় এটি ব্যবহার করতে হবে । এর মাধ্যমে আপনারা আপনাদের কেনাকাটার উপর 30% পর্যন্ত ক্যাশব্যাক উপার্জন করতে পারবেন৷ এই ক্যাশব্যাক বিটকয়েনের মাধ্যমে করা হয়ে থাকে।

Lolli হল একটি মার্কিন শপিং রিওয়ার্ড কোম্পানী। যখন কোন ব্যক্তি Nike, Booking.com, Macy’s, Staples এর মত 1,000+ টপ ব্র্যান্ড থেকে অনলাইনে কেনাকাটা করে তখন ললি Bitcoin এর মাধ্যমে 30% পর্যন্ত ক্যাশব্যাক রিওয়ার্ড দিয়ে থাকে।

CoinCorner হল একটি UK কোম্পানি, যেটি Booking.com, O2, Europecar এবং Vodafone-এর মতো সুপরিচিত ব্র্যান্ডগুলিকেও সমর্থন করে এবং আপনাকে ক্যাশব্যাক রিওয়ার্ডের মাধ্যমে বিটকয়েন ইনকাম করার সুযোগ দিয়ে থাকে।

বিটকয়েন ঋণ বা ধার দিয়ে বিটকয়েন ইনকাম

আপনি যদি ইতিমধ্যেই ক্রিপ্টোকারেন্সির মালিক হন অর্থাৎ আপনার কাছে কিছু বিটকয়েন থাকে, তাহলে আপনি সেই বিটকয়েন ঋণ হিসেবে দিয়ে এর থেকে সুদ পেতে পারেন। এই ধরনের পরিষেবা সরবরাহকারী বেশ কয়েকটি কোম্পানি রয়েছে, এর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় হল ব্লকফাই , সেলসিয়াস নেটওয়ার্ক , Crypto.com এবং Nexo ইত্যাদি৷

বিটকয়েন ঋণ সরবরাহ করে এমন বেশিরভাগ কোম্পানি গ্রাহকদের তাদের বিটকয়েন, সুদের জন্য ধার দেওয়ার অনুমতি দেয়। উদাহরণস্বরূপ, আপনার কাছে বর্তমানে থাকা বিটকয়েন যদি আপনার এখন প্রয়োজন না হয়, তাহলে আপনি আপনার বিটকয়েন ধার হিসেবে দিতে পারেন এবং আপনার দেওয়া ধারের উপর আপনি বাড়তি কিছু বিটকয়েন বার্ষিক সুদ হিসেবে পাবেন। এর মানে হল আপনার কাছে থাকা বিটকয়েন শুধু শুধু ওয়ালেটে ফেলে না রেখে এর মাধ্যমে আপনি আরও কিছু টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে বিটকয়েন ইনকাম

বিটকয়েন ইনকামের আরেকটি সহজ উপায় হল অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। অনেক কোম্পানি নতুন গ্রাহকদের আনার জন্য এই ধরনের পদ্ধতি ব্যবহার করে। আপনি ইন্টারনেটে অনেক ই-কমার্স ওয়েবসাইট পেয়ে যাবেন যেগুলোর অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামের মাধ্যমে আপনারা বিটকয়েন ইনকাম করতে পারবেন । তবে আপনি কোন ওয়েবসাইটের অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামে আপনি আপনার সময় বিনিয়োগ করতে চান তা জেনে বুঝে ঠিক করুন।

আপনারা চাইলে Paxful-এর Bitcoin এফিলিয়েট প্রোগ্রামে কাজ করে বিটকয়েন ইনকাম করতে পারেন।

মাইক্রোজবস এবং পে-টু-ক্লিক (PTC) ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিটিসি ইনকাম

বিটকয়েন উপার্জনের সবচেয়ে সস্তা, সহজ কিন্তু সবচেয়ে সময়সাপেক্ষ উপায়গুলির মধ্যে একটি হল মাইক্রোজবসের মাধ্যমে। এর মানে হল যে আপনি কিছু ছোট ছোট কাজ করবেন এবং সেই কাজের বিনিময়ে অল্প পরিমাণে বিটকয়েন ইনকাম করবেন।

মাইক্রোওয়ার্কার্স হল একটি সাইট যা আপনাকে কিছু ছোট কাজ করার জন্য একটি ছোট ফি প্রদান করে। যেমন একটি YouTube ভিডিও দেখা বা সার্ভে কমপ্লিট করা। এই PTC সাইটগুলিতে BTC কাউন্টারপার্ট রয়েছে যেমন BitcoinGet এবং CoinTasker , যেখানে সদস্যরা বিটকয়েন উপার্জন করার জন্য হাজার হাজার কাজ বেছে নিতে পারে।

তবে মনে রাখবেন যে, এইভাবে বেশী পরিমাণ অর্থ উপার্জন করা অনেক কঠিন এবং ক্লান্তিকর কাজ। তবে আপনি যদি কাজ করতে ইচ্ছুক হন, তাহলে এই সাইটগুলির মাধ্যমে আপনারা বিটকয়েন ইনকাম করতে পারবেন। আপনি যদি ক্রিপ্টোকারেন্সি দিয়ে অর্থ উপার্জন করতে চান তাহলে আপনি Coinpayu এবং adBTC এর মতো ওয়েবসাইটগুলিতেও কাজ করতে পারেন ৷

বিটকয়েন স্টোর করে রেখে বিটকয়েন উপার্জন

আপনি যদি খুব বেশি পরিশ্রম না করে বিটকয়েন দিয়ে অর্থ উপার্জন করতে চান তাহলে আপনি কিছু পরিমাণ বিটকয়েন কিনে আপনার বিটকয়েনে স্টোর করে রাখুন এবং পরে যখন বিটকয়েনের দাম বৃদ্ধি পাবে তখন সেগুলো বিক্রি করে দিন। BTC কিনে স্টোর করে রাখা এবং পরে দাম বৃদ্ধি পেলে বিক্রি করে দেওয়া হল ক্রিপ্টো দিয়ে অর্থ উপার্জনের সবচেয়ে সহজ উপায়। এখানে কিভাবে এটা কাজ করে: 

  1. একটি বিটকয়েন ওয়ালেটে সাইন আপ করুন 
  2. ব্যাঙ্ক ট্রান্সফার বা যে কোন মাধ্যমে বিটকয়েন কিনে আপনার বিটকয়েন ওয়ালেটে রেখে দিন।
  3. আপনার BTC স্টোর করে রাখুন এবং দাম বৃদ্ধির জন্য অপেক্ষা করুন – সেটা যতই সময় লাগুক না কেন।

আপনি বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আপনি সপ্তাহ, মাস বা এমনকি বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে পারেন। এটি কেনা এবং স্টোর করে রাখার কৌশলটি এত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে যে এটির একটি ইন্টারনেট নামও রয়েছে- HODL ( হোল্ড অন ফর ডিয়ার লাইফ ) । তাই আপনারা চাইলে এই পদ্ধতিতে বিটকয়েন ইনকাম করতে পারেন।

ট্রেডিং করে বিটকয়েন আয়

বিটকয়েন দিয়ে অর্থ উপার্জন করার দ্রুততম, সহজ কিন্তু ঝুঁকিপূর্ণ উপায় হল বিটকয়েন ট্রেডিং করা। মূলত বিটকয়েন ট্রেডিং হল আপনি বিটকয়েন কিনছেন যখন দাম কম থাকে এবং যখন দাম বেড়ে যায় তখন এটি বিক্রি করে দিচ্ছেন।

যাইহোক, বিটকয়েন সফলভাবে ট্রেড করা ভাগ্য বা অনুমানের বিষয় নয়। যারা এটি নিয়ে প্রোফেশনাল ভাবে কাজ করে তারা জানে কিভাবে ট্রেড করতে হয় এবং কিভাবে ট্রেডিং এর সাথে জড়িত অনেক ঝুঁকি কাটিয়ে উঠতে হয়। এগুলো শেখার জন্য তারা অনেক সময় ব্যয় করে। একজন সফল ট্রেডার জানেন যে, তারা সাময়িকভাবে কিছু অর্থ হারাবেন কিন্তু তারা এটিকে তাদের শিক্ষায় বিনিয়োগ হিসাবে দেখেন, যেহেতু তারা দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্য নিয়ে অগ্রসর হচ্ছেন ।

Bitcointalk ফোরাম পোস্টিং এর মাধ্যমে

Bitcointalk হল প্রাচীনতম ফোরাম গুলির মধ্যে একটি। আসলে, এটি সাতোশি নাকামোতো নিজেই তৈরি করেছিলেন। এটি সম্ভবত ক্রিপ্টোকারেন্সির সবচেয়ে জনপ্রিয় ফোরাম, কারণ এটি লক্ষ লক্ষ মানুষ ব্যবহার করে।

আপনি যদি ফোরামের একজন অনুসারী হন এবং এই ফোরাম থেকে বিটকয়েন উপার্জন করতে চান তাহলে আপনি বিটকয়েনটক ফোরামে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পোস্ট করুন। প্রথমে আপনাকে এই ফোরামে নিয়মিত পোস্ট করে আপনার প্রোফাইলের র‍্যাঙ্ক বৃদ্ধি করতে হবে এবং তারপর Bitcointalk-এ আপনার পোস্টগুলিতে একটি স্পনসরড সিগনেচার থাকবে। অবশেষে, আপনি ফোরামে করা প্রতিটি সিগনেচার করা পোস্টের জন্য অর্থ পাবেন।

মাইনিং করে বিটকয়েন উপার্জন

বিটকয়েনের পাবলিক লেজারে একটি লেনদেন আপডেট করার প্রক্রিয়াকে বিটকয়েন মাইনিং বলা হয়। মাইনিং হল দুটি মূল উপাদানের একটি যা বিটকয়েন ব্লকচেইনকে সুরক্ষিত করে । এটি এমন একটি প্রক্রিয়া যা নতুন ব্লক আবিষ্কার করে এবং তাদের পূর্ববর্তী ব্লক গুলির সাথে যুক্ত করে ব্লকচেইন তৈরি করে। অন্য উপাদান হল নোড, যা সমস্ত লেনদেনের ইতিহাস ট্র্যাক রাখে এবং নতুন লেনদেন যাচাই করে।

যখন বিটকয়েন প্রথম শুরু হয়েছিল, তখন ডেস্কটপ কম্পিউটার ব্যবহার করেই বিটকয়েনের ব্লকচেইন মাইন করা সম্ভব হয়েছিল। কিন্তু সময়ের সাথে বিটকয়েনের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে আরও বেশি লোক বিটকয়েন মাইনিংয়ের জন্য আরও ভাল কম্পিউটার কিনতে শুরু করে। অবশেষে প্রযুক্তি কোম্পানিগুলি “মাইনিং রিগস” ডিজাইন এবং নির্মাণ শুরু করে।

একটি মাইনিং রিগস দিয়ে, আপনি বিভিন্ন ধরনের কয়েন দ্রুত মাইন করতে পারবেন, এবং ভাল পরিমাণ কয়েন ইনকাম করতে পারবেন। প্রতিনিয়ত প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে মাইনাররাও আরও স্মার্ট হয়ে উঠেছে। মাইনাররা এখন হ্যাশ পাওয়ার বাড়ানোর জন্য একাধিক প্ল্যাটফর্মের সাথে সংযোগ শুরু করেছে। এবং মাইনিং রিগের মাধ্যমে মাইনিং ফার্ম তৈরি করেছে।

প্রফেশনাল ভাবে যারা বিটকয়েন নিয়ে কাজ করেন তারা মূলতঃ মাইনিং এর মাধ্যমেই বিটকয়েন আর্ন করে থাকেন। এই প্রক্রিয়াকে বিটকয়েন আর্নিং না বলে বিটকয়েন উৎপাদন বলা উচিত।

সার্ভে করে বিনামূল্যে বিটকয়েন ইনকাম

মার্কেট রিসার্চ কোম্পানির দেওয়া বিভিন্ন জরিপে বা সার্ভেতে অংশগ্রহণ করে আপনি বিনামূল্যে বিটকয়েন উপার্জন করতে পারেন। ইন্টারনেটে এইরকম অনেক ওয়েবসাইট আছে যেগুলোতে বিভিন্ন ধরনের সার্ভে কমপ্লিট করে আপনারা বিটকয়েন ইনকাম করতে পারবেন। এর মধ্যে জনপ্রিয় কিছু সার্ভে সাইট হল –

এই সাইট গুলোতে আপনারা ফ্রি তে অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারবেন এবং তারপর আপনি কোন সার্ভেতে কত পেআউট পাবেন তা দেখতে পারবেন। আপনি এখানে যত বেশি সার্ভে সম্পন্ন করবেন, তত বেশি পরিমাণে আপনি বিটকয়েন উপার্জন করতে সক্ষম হবেন।

মানুষকে সাহায্য করে বিটকয়েন উপার্জন

আপনি যদি অফলাইন/অনলাইনে গবেষণায় দক্ষ হন তবে আপনি এর মাধ্যমে বিটকয়েন উপার্জন করতে পারবেন ।

Bitfortip হল একটি মোবাইল এবং ডেস্কটপ প্ল্যাটফর্ম, যেখানে আপনারা বিভিন্ন ধরনের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে বিটকয়েন টিপস হিসেবে পেতে পারেন।

এই প্ল্যাটফর্মে, যে কেউ যেকোনো কিছু চাইতে পারে এবং উত্তর প্রদানকারী তাদের উত্তরের বিনিময়ে বিটকয়েন টিপস পান।

উদাহরণস্বরূপ, যদি আমি জানতে চাই যে, আমি বাংলাদেশে একটি সাদা পারশিয়ান বিড়াল কোথা থেকে কিনতে পারি, তাহলে যে আমাকে উত্তর দেবে তাকে আমি কিছু বিটকয়েন টিপস হিসেবে দেব।

বিটকয়েনের জন্য কাজ করুন

বিটকয়েনের জন্য কাজ করা এটি উপার্জন করার সবচেয়ে সহজ এবং সবচেয়ে বৈধ উপায়গুলির মধ্যে একটি।

আপনি একজন প্রকৌশলী, ডিজাইনার, লেখক, অনুবাদক, সম্পাদক, ফ্রিল্যান্সার বা ডেভেলপার হোন না কেন, আপনি এখনই বিটকয়েনের জন্য কাজ শুরু করতে পারেন।

আপনার পরিষেবার বিনিময়ে আপনাকে বিটকয়েন অফার করে এমন অসংখ্য প্ল্যাটফর্ম এবং ওয়েবসাইট রয়েছে।

এই প্ল্যাটফর্মগুলির মধ্যে কয়েকটি হল:

ওয়েবসাইটের মাধ্যমে

আপনি যদি টাকা বিনিয়োগ না করে বিনামূল্যে বিটকয়েন উপার্জন করতে চান, তাহলে আরেকটি উপায় আপনার জন্য ভালো হবে, বিনামূল্যে বিটকয়েন উপার্জন করার জন্য অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে, যেখানে ব্যবহারকারীরা নিবন্ধন করে বিনামূল্যে বিটকয়েন বা সাতোশি আয় করতে পারেন, যেমন-

ওয়েবসাইট বিটকয়েন/সাতোশি
Freebitco.In 450 সাতোশি
মুনবিট 450 সাতোশি
Easybitcoinfaucet 250 সাতোশি
আর্থ বিটকয়েন 200-100000 সাতোশি
আইসবিটকয়েন 100-100000 সাতোশি
বিটিসি-কেন্দ্রীয় 200 সাতোশি
বিটলাকি 40 সাতোশি
লাকিবিট 240-13000 সাতোশি
Bitcoinget 70 সাতোশি
বুমফাউসেট 800 সাতোশি

আসুন এখন আপনাকে এই ওয়েবসাইটগুলির মধ্যে একটি সম্পর্কে বলি, যার নাম হল ফ্রিবিটকয়েন, এই ওয়েবসাইটটি সবচেয়ে জনপ্রিয় কারণ ফ্রিবিটকয়েন এমন একটি ওয়েবসাইট যেখানে আমরা প্রতি ঘন্টায় আমাদের ভাগ্য পরিক্ষা করতে পারি এবং ফ্রি সাতোশি জিততে পারি, এবং এই গেম গুলিতে আপনি বিনামূল্যে উপার্জন করতে পারেন।

সতর্কতা

বর্তমানে ইন্টারনেটে অনেক সাইট রয়েছে যা কয়েক দিনের মধ্যে আপনার কয়েন দ্বিগুণ করার দাবি করে বা আপনাকে অবাস্তব সুদের হার দেয়। এগুলো সাইট কয়েন ডবলার্স এবং হাই ইয়েল্ড ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম যা HYIP নামেও পরিচিত।

এই সাইটগুলি আসলে যা করে তা হল নতুন ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে অর্থ নেয় এবং সেই অর্থটি পুরানো ব্যবহারকারীদের পরিশোধ করে। এই প্রক্রিয়াটি সাইটের আশেপাশে শো করে ।

এছাড়াও, তাদের প্রায় সবসময়ই কিছু রেফারেল প্রোগ্রাম থাকে যাতে ব্যবহারকারীরা তাদের বন্ধুদের এখানে নিয়া আসতে পারে।

এরপর এইভাবে কিছুদিন চলার পরে ওয়েবসাইটটি অফলাইনে চলে যাবে এবং আপনার ইনভেস্ট করা অর্থও চলে যাবে। আর কোন অর্থ প্রদান করা হবে না । তাই আমরা সাজেস্ট করব, বিটকয়েন ইনকামের জন্য এই ধরনের পদ্ধতি কখনোই অবলম্বন করবেন না।

এছাড়া আপনারা জুয়া খেলেও বিটকয়েন ইনকাম করতে পারবেন। কিন্তু এই সম্পর্কে আমি আর্টিকেলে আলোচনা করি নাই কারণ জুয়া খেলা বৈধ নয়। আর তাছাড়া এতে রিস্কের পরিমান অনেক বেশী।

শেষ কথা

বিটকয়েনে কোন টাকা ইনভেস্ট করার আগে বুঝে নিন বিটকয়েন কিভাবে কাজ করে। বিটকয়েন এখনও নতুন যারা এটি সম্পর্কে অবগত নন, বিশ্বে বিটকয়েনের প্রকৃত প্রভাব বুঝতে কয়েক মাস সময় লাগতে পারে। আপনি যদি বিটকয়েন বুঝতে চান তবে এর জন্য কিছুটা সময় নিন এবং বিটকয়েন কীভাবে কাজ করে, কীভাবে বিটকয়েন সুরক্ষিত করবেন তা বুঝুন।

আর আপনারা নিশ্চই বুঝতে পেরেছেন যে, বিটকয়েন দিয়ে অর্থ উপার্জনের কোন সহজ, ঝুঁকিমুক্ত উপায় নেই। তবে ভাল খবর হল যে বিটকয়েন থেকে ইনকাম করা সম্ভব , এবং আপনি যদি এটিতে কিছু প্রচেষ্টা করেন তবে আপনি অল্প পরিমাণে হলেও বিটকয়েন ইনকাম করতে পারবেন।

আরটিকেলটি নিয়ে যে কোন ধরনের প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশনে জানান।

ধন্যবাদ

Share on:

আমি অঞ্জন, এই সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা। এই ব্লগে টিপস & ট্রিকস, অনলাইন ইনকাম, কম্পিউটার সমস্যা সমাধান সহ আরো অনেক কিছুর উপর সঠিক ও নির্ভুল তথ্য দেওয়া হয়।

Leave a Comment